স্পোকেন ইংলিশ এবং IELTS প্রস্তুতির প্রতিষ্টান তাহমিদ’স ইংলিশ জোন।

18789307_10211466787897745_984009204_o

শিক্ষা ডেস্ক : ইংরেজি শিক্ষায় পিছিয়ে পড়া কক্সবাজারে সম্প্রতি যাত্রা শুরু করেছে “তাহমিদ’স ইংলিশ জোন” নামের ইংরেজি শিক্ষার এক আধুনিক প্রতিষ্ঠান। সম্পূর্ণ ভিন্ন ধর্মী এ প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা হলেন পৌর-প্রিপ্যার‍্যাটরি উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক তাহমিদুল মুনতাসির। তার দীর্ঘ দিনের অক্লান্ত পরিশ্রমে গড়ে উঠা এ প্রতিষ্ঠানটি বয়সে নবীন হলেও ছাত্রছাত্রী এবং ইংরেজি শিক্ষায় আগ্রহী তরুণদের মধ্যে ইতিমধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে।

মাত্র সাত মাস আগে গড়ে উঠা এই প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে ৫০ জনের অধিক ছাত্র-ছাত্রী ইংরেজি বিষয়ে কোর্স করছেন। কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্র সাফকাত বলেন, আমি আমার এক বন্ধুর কাছ থেকে তাহমিদ’স ইংলিশ জোনের কথা প্রথম শুনি এবং একটি ক্লাসে কৌতূহলবশত অংশ নেই। প্রথম ক্লাসেই আসলে ইংরেজির প্রতি ভীতি অনেকাংশ দূর হয়ে যায়। এন.জি.ও কর্মী আব্দুল হামেদ বলেন, স্যারের ক্লাস গুলো আসলে খুবই চমৎকার এবং সহজবোদ্ধ। ইংরেজি এত মজার একটা বিষয় স্যারের সাথে দেখা না হলে হয়ত বুঝতে পারতাম না। কক্সবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের এস.এস.সি উত্তীর্ণ ছাত্র- আশেক এবং অহিনের কাছে লিসেনিংয়ের ক্লাস গুলো সবচেয়ে ভাল লাগে। এন.জি.ও কর্মী রোজি আক্তার বলেন তাহমিদ’স ইংলিশ জোনে আমি ৪ মাসের ইংরেজি কোর্স করার পরে এখন বিদেশিদের সাথে ইংরেজি বলার যে ভীতি সেটি অনেকাংশ দূর হয়ে গেছে।

তাহমিদ’স ইংলিশ জোনের কর্ণধার তাহমিদুল মুনতাসির বলেন আমরা প্রতি শুক্রবার ইংরেজি চলচিত্র প্রদর্শন করি যা শিক্ষার্থীদের মাঝে এক নতুনত্ব নিয়ে এসেছে। কক্সবাজারে এরকম একটা প্রতিষ্ঠান চালানো আসলে খুবই চ্যালেঞ্জিং। কারণ এ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে ক্যারিয়ার সচেতনতা খুবই কম এবং ইংরেজীর ভীতি ব্যাপকভাবে কাজ করে। ইংরেজি শিক্ষার প্রতিষ্ঠান গুলোর ব্যাপক বাণিজ্যিকি করণের কারণে গুনগত মান ধরে রাখা খুবই কঠিন। সেক্ষেত্রে আমরা ভিন্ন অবস্থানে। বাণিজ্যিকী করনের চেয়ে কক্সবাজারে ইংরেজী শিক্ষার এক যুগান্তকারী পরিবর্তন নিয়ে আসাই আমার মূল লক্ষ্য।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like