টি-টোয়েন্টিতেও হোয়াইটওয়াশড বাংলাদেশ

shyamya2017-01-07ক্রীড়া ডেস্ক : স্কোর: নিউ জিল্যান্ড ১৯৪/৪, বাংলাদেশ ১৬৭/৬; নিউ জিল্যান্ড ২৭ রানে জয়ী

বোলিং-ব্যাটিং দুই বিভাগেই শেষটা বাজে হওয়াটাই কাল হল বাংলাদেশের। বিশাল লক্ষ্য তাড়ায় তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে ২৭ রানে হেরেছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।

বড় লক্ষ্য তাড়ায় পাওয়ার প্লে কাজে লাগিয়েছিল অতিথিরা। কিন্তু স্পিনাররা আক্রমণে আসার পরেই দিক হারায় তারা। ভালো শুরু পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান। জ্বলে উঠতে পারেননি মাহমুদউল্লাহও। সাকিব আল হাসানের ব্যাটে পরাজয়ের ব্যবধানই কমেছে কেবল।

লেগ স্পিনার সোধি ৪ ওভারে ২২ রান দিয়ে নেন ২ উইকেট। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ২ ওভারে ৯ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট। বাঁহাতি স্পিনার মিচেল স্যান্টনারকে (১/৩৭) এবার সহজেই খেলেছে বাংলাদেশ।

নিউ জিল্যান্ডের ৪ উইকেটে গড়া ১৯৪ রানের জবাবে ৬ উইকেটে ১৬৭ রানে থামে বাংলাদেশের ইনিংস। ফিল্ডিংয়ের সময় পাওয়া চোটের জন্য ব্যাটিংয়ে নামেননি ইমরুল কায়েস ও মাশরাফি বিন মুর্তজা।

ফিরে গেলেন সাকিব

ট্রেন্ট বোল্টের করা ইনিংসের শেষ ওভারে ফিরেন সাকিব আল হাসান। ৩৪ বলে ৪১ রান করেন এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার।

ফিরলেন মোসাদ্দেক

মিচেল স্যান্টনারকে চার হাঁকিয়ে পরের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন মোসাদ্দেক হোসেন। ১২ রান করে তিনি ফেরার সময় বাংলাদেশের স্কোর ১৫০/৫।

সোধির দ্বিতীয় শিকার মাহমুদউল্লাহ

আবার স্পিনে ভুগছে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে ৩ উইকেট নেওয়া ইশ সোধি নিজের প্রথম তিন ওভারে এবার নেন ২ উইকেট। আগের ওভারে ট্রেন্ট বোল্টকে তিনটি চার হাঁকানো মাহমুদউল্লাহ বোল্ড হন সোধির বলে। ১৮ রান করে মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যানের বিদায়ে বাংলাদেশের স্কোর ১২২/৪।

বোল্ড হয়ে ফিরলেন সাব্বির

সৌম্য সরকারের পর সাব্বির রহমানের বিদায়ে ভালো শুরুর সুবিধা হারাতে বসে বাংলাদেশ। কেন উইলিয়ামসনের বলে সুইপ করার চেষ্টায় বোল্ড হন ডানহাতি ব্যাটসম্যান সাব্বির (১৬ বলে ১৮)।

সৌম্যকে ফেরালেন সোধি

পরপর দুটি আঁটসাঁট ওভারের চাপে ফিরেন সৌম্য সরকার। চড়াও হতে গিয়ে লেগ স্পিনার ইশ সোধিকে ফিরতি ক্যাচ দেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। ২৮ বলে ৬টি চারে ৪২ রান করে সৌম্য ফেরার সময় নবম ওভারে বাংলাদেশের স্কোর ৮২/২।

পাওয়ার প্লেতে দ্রুত রান

বড় লক্ষ্য তাড়ায় পাওয়ার প্লে কাজে লাগায় বাংলাদেশ। তামিম ইকবালকে হারালেও সৌম্য সরকারের ব্যাটে প্রথম ৬ ওভারে ৬৯ রান সংগ্রহ করে অতিথিরা। ফিল্ডিংয়ের সময় ইমরুল কায়েস চোট পাওয়ায় ব্যাটিংয়ে নামেননি। তাই ওপেনিংয়ে ফিরেন সৌম্য।

ভালো শুরুর পর আউট তামিম

ট্রেন্ট বোল্টের বলে পুল করতে গিয়ে কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে সহজ ক্যাচ দিয়ে ফিরেন তামিম ইকবাল। ১৫ বলে তিনটি চার আর একটি ছক্কায় ২৪ রান করেন এই বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান।

পঞ্চম ওভারে তামিম ফেরার সময় দলের স্কোর ৪৪/১।

শেষ টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সামনে বড় লক্ষ্য

বোলিংয়ে দারুণ শুরুর পরও শেষ পর্যন্ত দুইশ’ ছুঁইছুঁই লক্ষ্য পেয়েছে বাংলাদেশ। ৪১ রানে ৩ উইকেট হারানো দলকে ৪ উইকেটে ১৯৪ রানের বড় সংগ্রহ এনে দিয়েছেন কোরি অ্যান্ডারসন।

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের সঙ্গে কেন উইলিয়ামসনের ১২৪ রানের জুটি নিউ জিল্যান্ডকে কক্ষপথে ফেরায়। দুইবার জীবন পাওয়া অধিনায়ক ফিরেন ৬০ রান করে। ৪১ বলে দুটি চার আর ১০টি ছক্কায় ৯৪ রানে অপরাজিত থাকেন অ্যান্ডারসন।

অ্যান্ডারসনের ছক্কার রেকর্ড

নিউ জিল্যান্ডের হয়ে টি-টোয়েন্টিতে এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি ছক্কা হাঁকানোর রেকর্ড এখন কোরি অ্যান্ডারসনের অধিকারে। ২০১০ সালে ক্রাইস্টচার্চে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ৮ ছক্কা ছিল আগের রেকর্ড। টি-টোয়েন্টিতে অ্যান্ডারসনের এবারের ১০ ছক্কার চেয়ে বেশি হাঁকিয়েছেন মাত্র তিন ব্যাটসম্যান। ১৪টি ছক্কায় বিশ্ব রেকর্ড অস্ট্রেলিয়ার অ্যারন ফিঞ্চের।

জুটি ভাঙলেন রুবেল 

কেন উইলিয়ামসনকে বোল্ড করে নিজের তৃতীয় উইকেট নেন রুবেল হোসেন। দুইবার জীবন পাওয়া নিউ জিল্যান্ড অধিনায়ক ফিরেন ৬০ রান করে। তার ৫৭ বলের ইনিংসটি গড়া ৬টি চার ও একটি ছক্কায়। উইলিয়ামসনের বিদায়ে ভাঙে তার সঙ্গে কোরি অ্যান্ডারসনের ১২৪ রানের জুটি।

চোট পেয়ে মাঠ ছাড়লেন মাশরাফি

নিজের বলে কোরি অ্যান্ডারসনের শট ফেরাতে গিয়ে ডানহাতে চোট পান মাশরাফি বিন মুর্তজা। কিছুক্ষণ চিকিৎসা নেওয়ার পর মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক। তার অসমাপ্ত ওভার শেষ করেন মোসাদ্দেক হোসেন।

এবার উইলিয়ামসনকে জীবন দিলেন তামিম

মাশরাফি বিন মুর্তজার বলে আবার জীবন পান কেন উইলিয়ামসন। এবার তার বলে নিউ জিল্যান্ড অধিনায়কের ক্যাচ ছাড়েন তামিম ইকবাল। সে সময় ৫৮ রানে ব্যাট করছিলেন স্বাগতিকদের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান।

অ্যান্ডারসনের ঝড়ো অর্ধশতক

প্রথম দুই ম্যাচে ভালো করতে পারেননি কোরি অ্যান্ডারসন। জ্বলে উঠেন দলের বিপদের সময়। ২৭ বলে অর্ধশতক করেন খুনে মেজাজে ব্যাট করা এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। পঞ্চাশে যেতে দুটি চার ও চারটি ছক্কা হাঁকান তিনি। সৌম্য সরকারের বলে টানা দ্বিতীয় ছক্কায় নিজের অর্ধশতকে পৌঁছানোর সঙ্গে কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে জুটিকে তিন অঙ্কে নিয়ে যান তিনি। ১০.২ ওভারে আসে শতরানের জুটি।

উইলিয়ামসনকে জীবন দিলেন সাকিব

কেন উইলিয়ামসকে জীবন দিলেন সাকিব আল হাসান। মাশরাফি বিন মুর্তজার বলে ডিপ মিডউইকেটে নিউ জিল্যান্ড অধিনায়কের সহজ ক্যাচ দুই হাতে নিয়েও জমাতে পারেননি এই অলরাউন্ডার। সে সময় ৫৩ রানে ব্যাট করছিলেন উইলিয়ামসন।

উইলিয়ামসনের অর্ধশতক

তাসকিন আহমেদের বলে চার হাঁকিয়ে অর্ধশতকে পৌঁছান কেন উইলিয়ামসন। সিরিজে নিজের দ্বিতীয় পঞ্চাশে পৌঁছতে ৪৪ বল খেলেন অধিনায়ক। ৪১ রানে ৩ উইকেট হারানো স্বাগতিকদের লড়াইয়ের পুঁজি এনে দিচ্ছেন তিনিই।

উইলিয়ামসন-অ্যান্ডারসনের অর্ধশত রানের জুটি

৪১ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া নিউ জিল্যান্ড প্রতিরোধ গড়ে কেন উইলিয়ামসন ও কোরি অ্যান্ডারসনের ব্যাটে। ৬.৪ ওভারে আসে তাদের জুটির অর্ধশতক। এতে অ্যান্ডারসনের অবদান ২২, উইলিয়ামসনের ২৮।

প্রথম বলে মোসাদ্দেকের উইকেট

প্রথম ওভারে প্রায় নিয়মিতই উইকেট পান মোসাদ্দেক হোসেন। এবার বোলিংয়ে এসে প্রথম বলেই এই অফ স্পিনার ফেরান আগের ম্যাচে অপরাজিত অর্ধশতক করা টম ব্রুসকে। আকাশে তুলে ইমরুল কায়েসের হাতে জমা পড়ার আগে ৫ রান করেন ব্রুস, নিউ জিল্যান্ডের স্কোর তখন ৪১/৩।
 
পাওয়ার প্লেতে রুবেলের ২ উইকেট

পাওয়ার প্লেতে নিউ জিল্যান্ডের ২ উইকেট তুলে নেয় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির মতো সহজ রান এবার পাননি স্বাগতিক ব্যাটসম্যানরা। রুবেল হোসেন ও তাসকিন আহমেদের আঁটসাঁট বোলিংয়ে প্রথম ছয় ওভারে ৪১ রানের বেশি তুলতে পারেননি কেন উইলিয়ামসনরা। দুই ওভারে ৭ রান দিয়ে ২ উইকেট নিয়ে স্বাগতিকদের চাপে ফেলার কাজটা করেন রুবেল।

রুবেলের জোড়া আঘাত

পঞ্চম ওভারের দ্বিতীয় বলে জেমস নিশামকে বিদায় করার পর সেই ওভারের শেষ বলে কলিন মানরোকে ফেরান রুবেল হোসেন। আগের ম্যাচে শতক করা স্বাগতিক টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে শূন্য রানে ফেরাতে ডিপ স্কয়ার লেগে চমৎকার এক ক্যাচ নেন সৌম্য সরকার। নিউ জিল্যান্ডের স্কোর তখন ৩৬/২।

নিশামকে ফেরালেন রুবেল 
 
জেমস নিশামকে এলবিডব্লিউ করে ৩৪ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন রুবেল হোসেন। পঞ্চম ওভারে স্লোয়ারে নিউ জিল্যান্ডের অলরাউন্ডার ফিরে যাওয়ার আগে ১২ বলে করেন ১৫ রান।

বাংলাদেশ একাদশে এক পরিবর্তন

ধারণা মতোই বাংলাদেশের একাদশ পরির্বতন একটি। বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে মুস্তাফিজুর রহমানকে। একাদশে ফিরেছেন তাসকিন আহমেদ।

বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, মাহমুদউল্লাহ, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), তাসকিন আহমেদ, রুবেল হোসেন।

নিউ জিল্যান্ড দলে পরিবর্তন আনতে হতোই। চোট পেয়ে ছিটকে গেছেন লুক রনকি। তার বদলে ডাক পাওয়া টম ব্লান্ডেলের হচ্ছে অভিষেক। আগের রাতেই নিউ প্লাইমাউথে ঘরোয়া সুপার স্ম্যাশ টি-টোয়েন্টির ফাইনাল খেলে দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে ইনিংস শুরু করবেন জেমস নিশাম।

সফরে শেষ টসও জিতলেন মাশরাফি

টসের চিত্রনাট্য অনুসরণ করল আগের ম্যাচকেই। আবার টস জিতলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা, আবার বেছে নিলেন বোলিং। কেন উইলিয়ামসন জানালেন, জিতলে তিনি ব্যাটিংই নিতেন।

মাশরাফি মুর্তজা এই নিয়ে টস জিতলেন টানা চার ম্যাচে। সফরে এটিই তার শেষ টস। প্রথম জয় কি ধরা দেবে?

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like