চকরিয়ায় সাংবাদিককে হত্যার হুমকি দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস : সাংবাদিকদের ক্ষোভ

chakaria-pic-6-1-17

এম মনছুর আলম, চকরিয়া, ০৭ জানুয়ারি: সংবাদ প্রকাশের জের ধরে কক্সবাজারের চকরিয়া প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও কালের কণ্ঠ প্রতিনিধি ছোটন কান্তি নাথকে হত্যার হুমকি দিয়েছে এক ইয়াবা ব্যবসায়ী। গত বৃহস্পতিবার ‘চকরিয়া সূশীল ছাত্রলীগ’ নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে এই হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। এতে ছোটনের ছবি এবং পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের কাটিংও সংযুক্ত করা হয়। এর আগে কথিত ছাত্রলীগ নেতা রাসেলের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকেও নানা ধরণের অপপ্রচারমূলক লেখা পোষ্ট করা হয়।
এদিকে হত্যার হুমকি দেওয়ার বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে চকরিয়াসহ জেলায় কর্মরত সাংবাদিক এবং বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উদ্বেগ প্রকাশ করেন। অবিলম্বে হুমকিদাতা কথিত ছাত্রলীগ নেতা রাসেল চন্দ্র সুশীলকে গ্রেপ্তার এবং ঘটনার দিন প্রকাশ্যে প্রদর্শন করা আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারসহ তাকে আড়ালে থেকে পরিচালনাকারী ইয়াবা ব্যবসার গডফাদারদেরও খুঁজে বের করার জোর দাবি জানান আইন-শৃক্সক্ষলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি।

chakaria-pic-2এ ঘটনার প্রতিবাদে চকরিয়া প্রেস ক্লাব কার্যালয়ে শুক্রবার বিকেল তিনটার জরুরী সভা আহবান করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন- প্রেস ক্লাবের সভাপতি আবদুল মজিদ। সভায় বক্তব্য রাখেন- প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মাহমুদুর রহমান মাহমুদ, সাবেক সভাপতি এম আলী হোসেন, সি. সহ-সভাপতি রফিক আহমদ, সহ-সভাপতি জহিরুল আলম সাগর, সহ-সম্পাদক মুকুল কান্তি দাশ, অর্থ সম্পাদক একেএম বেলাল উদ্দিন, এম মোস্তফা কামাল, আবদুল মতিন চৌধুরী, জিয়াউদ্দিন ফারুক। আরো বক্তব্য রাখেন- বিএম হাবিব উল্লাহ, জামাল হোছাইন, হান্নান শাহ, এম মনছুর আলম, এম রায়হান চৌধুরী, অলিউল্লাহ রনি, শাহজালাল শাহেদ, সাঈদী আকবর ফয়সাল, নুরুদ্দোজা জনি, হুমায়ন কবির চৌধুরী, আবদুল করিম বিটু প্রমূখ।
জরুরী সভায় প্রেস ক্লাব নেতৃবৃন্দরা বলেন, ‘কথিত ছাত্রলীগ নেতা একজন ইয়াবা ব্যবসায়ী। ঘটনার দিন ইয়াবা ব্যবসার টাকার ভাগের বিরোধ নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। রাসেলের হেফাজতে রয়েছে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্রও। আর তার পেছনে রয়েছে ইয়াবা কারবারের সঙ্গে সম্পৃক্ত গডফাদার। তাছাড়া যে স্থানে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে সেখানে হুমকিদাতা রাসেল প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র উঁচিয়ে মহড়া দিয়েছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় পুলিশ এখনো সেই অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার এবং রাসেলসহ সংঘর্ষে জড়ানোদের বিরুদ্ধে কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়নি।’
নেতৃবৃন্দরা হুঁশিয়ার করে বলেন, অবিলম্বে রাসেলকে গ্রেপ্তার এবং তার কাছে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা না হলে পরবর্তীতে সাংবাদিকরা মাঠে নামবেন কর্মসূচী ঘোষণা করে।
উল্লেখ্য, গত ২ জানুয়ারী সন্ধ্যার আগে চকরিয়া পৌরসভার চিরিঙ্গা হিন্দুপাড়াস্থ বালিকা বিদ্যালয় সড়কে ইয়াবা ব্যবসার টাকার ভাগাভাগির বিরোধ নিয়ে দুপক্ষে সংঘর্ষ হয়। এ সময় ইটের আঘাতে গুরুতর আহত হন পথচারী প্রবীণ শিক্ষক হৃদয় রঞ্জন দাশ। সংঘর্ষ চলাকালে কথিত ছাত্রলীগ নেতা রাসেল চন্দ্র সুশীল অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র উঁচিয়ে এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। এনিয়ে পরদিন কালের কণ্ঠসহ বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই সংবাদ প্রকাশের জের ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার এবং সর্বশেষ হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে।
প্রাণনাশের হুমকির শিকার কালের কণ্ঠ প্রতিনিধি ছোটন কান্তি নাথ জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার এবং প্রকাশ্যে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার বিষয়টি জানার পর তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাহেদুল ইসলাম, চকরিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কাজী মতিউল ইসলাম, থানার ওসি মো. জহিরুল ইসলাম খানকে অবহিত করা হয়।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাহেদুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি জানার পর হুমকিদাতাকে ধরতে থানার ওসিকে বলা হয়েছে।’
এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার ওসি মো. জহিরুল ইসলাম খান বলেন, ‘সংবাদ প্রকাশের জের ধরে সাংবাদিক ছোটনকে হত্যার হুমকি ও অপপ্রচার করার বিষয়টি জানার পর রাসেলকে ধরতে এবং অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে অভিযান চালানো হবে। এ ব্যাপারে মামলা নেওয়া হবে।’

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like