আঁখিকে ৭ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ

akhi-photoজাতীয় ডেস্ক :  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে মন্দিরসহ হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলার ‘হোতা’ দেওয়ান আতিকুর রহমান আঁখিকে সাত দিনের হেফাজতে চেয়ে আবেদন করেছে পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই ইশতিয়াক আহমেদ বলেন, শুক্রবার বেলা পৌনে ১২টায় তাকে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের আদালতে পাঠিয়ে এই আবেদন করা হয়।

আঁখিকে বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আনে পুলিশ।

এসআই ইশতিয়াক বলেন, “তাকে নিবিড় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের পুলিশ হেফাজতে চাওয়া হয়েছে। জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম সরাফ উদ্দিন শুক্রবার বিকালে তাকে কারাগারে পাঠানোর অদেশ দিয়েছেন। পরবর্তী শুনানির দিন এখনও ঠিক করেনি আদালত।”

আঁখি নাসিরনগর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। যুবলীগের জেলা কমিটির সাবেক সদস্য তিনি। আঁখির মদের কারবারও রয়েছে।

ফেইসবুকে ‘ইসলাম অবমাননার’ ছবি পোস্ট করার অভিযোগে গত বছরের ৩০ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় ১৫টি মন্দিরসহ হিন্দুদের শতাধিক ঘরে ভাংচুর ও লুটপাট চালানো হয়।

হামলায় আঁখির সম্পৃক্ততার বিষয়টি উঠে আসে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের অনুসন্ধানে।

হরিপুর ইউনিয়ন থেকে ১৪-১৫টি ট্রাক ভরে মানুষ আসার পর নাসিরনগরের হিন্দু পল্লীতে হামলা হয়। যেসব ট্রাকে হামলাকারীরা এসেছিল চেয়ারম্যান আঁখি সেগুলোর ব্যবস্থা ও অর্থের যোগান দিয়েছিলেন বলে তথ‌্য মিলেছে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দলীয় বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে বেকায়দায় ফেলতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সভাপতি সাংসদ র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সমর্থকরা নাসিরনগরে হিন্দুদের বাড়ি-মন্দিরে হামলার নেপথ্যে ছিলেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

পুলিশ আঁখিকে খুঁজলেও এতদিন তিনি লুকিয়ে ছিলেন। রোববার তার দুই সহযোগীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ, তার চার দিনের মধ‌্যে আঁখি ধরা পড়লেন।

হিন্দু পল্লীতে হামলার ঘটনায় স্থানীয় বারোয়ারি মন্দিরের পুরোহিতসহ দুই ব্যক্তি দুটি মামলা দায়ের করেন। প্রত্যেক মামলায় অজ্ঞাতনামা ১০০০ থেকে ১২০০ জনকে আসামি করা হয়।

এরপর কয়েকজনের বাড়িতে কয়েক দফা আগুন দেওয়া হয়। এসব ঘটনায় দায়ের মোট আট মামলায় শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

-বিডিনিউজ।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like