বীচ কার্ণিভাল : শেষ দিনে এসে দর্শকের সাথে প্রতারণা

img_20161230_143156নিজস্ব প্রতিবেদক, ০১ জানুয়ারি : শুরু থেকে নানা অব্যবস্থাপনা ও বিশৃংখলার অভিযোগ থাকলেও অবশেষে দর্শকদের সঙ্গে প্রতারণার মধ্য দিয়ে শেষ হলো তিনদিনের বীচ কার্ণিভাল। গানের মঞ্চে জনপ্রিয় ব্যান্ড শিল্পী জেমস অংশগ্রহণের কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত না আসায় দর্শকরা প্রতারিত হয়েছেন।
রোববার দুপুর ২ টার থেকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সী-গাল পয়েন্টে শুরু হয় বীচ কার্ণিভালের গানের কনসার্ট। বিকাল সাড়ে ৪ টা পর্যন্ত পরিবেশিত হয় কক্সবাজারের স্থানীয় শিল্পীদের গান। এর পর পরই মঞ্চে গান পরিবেশনের কথা ছিল দেশ সেরা জনপ্রিয় ব্যান্ড শিল্পী জেমসের নগর বাউল। কিন্তু বিকাল সাড়ে ৫ টা পর্যন্ত তিনি মঞ্চে উপস্থিত হননি।
বর্ষ বিদায় ও বরণকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন আয়োজিত ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ‘কার্ণিভাল ইভেন্ট’ এর ব্যবস্থাপনায় গত শুক্রবার থেকে কক্সবাজারে শুরু হয় বীচ কার্ণিভাল-২০১৬ । তবে গত বছর আয়োজিত কার্ণিভালে দেশসেরা শিল্পীদের অংশগ্রহনে গানের কনসার্টসহ নানা অনুষ্ঠানমালার আয়োজন থাকলেও এবার বীচ কার্ণিভালের নামে আয়োজন ছিল শুধু গানের কনসার্ট।
শুরু থেকে আয়োজকরা বীচ কার্ণিভালটি নিয়ে একপ্রকার লুকোচুরি খেলা শুরু করে। দৃশ্যমান কোন ধরণের প্রচার-প্রচারণা ছাড়াই হয়নি কার্ণিভালটির। কক্সবাজার শহরের হোটেল-মোটেল জোনসহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সড়ক ও মোড়ে কিছু ব্যানার-ফেস্টুন সাটানোতেই সীমাবদ্ধ ছিল কার্ণিভালটির প্রচারণা। ফলে স্থানীয়রাসহ কক্সবাজারে বেড়াতে আসা পর্যটকদের অনেকেই জানতো না থার্টি ফাস্ট নাইটকে কেন্দ্র করে আয়োজিত কার্ণিভালটি সম্পর্কে। এমনকি কক্সবাজারে কর্মরত অধিকাংশ সাংবাদিকদের পর্যন্ত বৃহস্পতিবার রাত অবধি আয়োজন সম্পর্কে কোন ধরণের তথ্য অবহিত করেননি ব্যবস্থাপনার দায়িত্বপ্রাপ্তরা।
এ নিয়ে লুকোচুরি মধ্যদিয়ে গত শুক্রবার শুরু হয় তিন দিনব্যাপী বীচ কার্ণিভালের নামে দেশসেরা শিল্পীদের গানের কনসার্ট। প্রথম ২ দিন অনুষ্ঠিত গানের কনসার্টে জনপ্রিয় ব্যান্ড শিল্পীরা অংশ নিলেও শেষদিনে এসে প্রতারিত হয় দর্শকরা। ফলে কার্ণিভালটির আয়োজক ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্বপ্রাপ্তদের নিয়ে নানা মহলে প্রশ্নের উঠেছে।
এদিকে জনপ্রিয় ব্যান্ড শিল্পী জেমস নির্ধারিত সময়ের দীর্ঘক্ষণ পরও মঞ্চে উপস্থিত না হওয়ায় দর্শকরা উত্তেজিত উঠেন। এক পর্যায়ে আয়োজকদের অশ্রাব্য ভাষায় গাল-মন্দ করে একযোগে হই-হুল্লোড় ও চিৎকার শুরু করে দেয়।
কনসার্টে গান শুনতে যাওয়া দর্শক ঢাকার আদাবরের রহিম শাহ অসন্তুষ্টি ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বীচ কার্ণিভাল মানে তো নানান অনুষ্ঠানমালার আয়োজন। ঢাকায় থার্টি ফাস্ট নাইট উদযাপন না করে দেশসেরা শিল্পীদের অংশগ্রহণে গানের কনসার্টসহ বীচ কার্ণিভাল আয়োজনের কথা শুনে বন্ধুদের সঙ্গে কক্সবাজার এসেছি।
তিনি বলেন, “ কক্সবাজার আসার পরই বীচ কার্ণিভালের আয়োজন নিয়ে এক প্রতারিত হয়েছি। তারপরও দেশসেরা গানের শিল্পীদের অংশগ্রহণে কনসার্ট শুনার জন্য উদগ্রীব ছিলাম। কিন্তু গানের কনসার্টের শেষদিনে এসে আবারো প্রতারিত হলাম। ”

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like