আত্মঘাতী নারী জঙ্গির পেট বিস্ফোরণে ঝাঁঝরা

25_militanthideout_ashkona_amo_241216_0010জাতীয় ডেস্ক : রাজধানীর পূর্ব আশকোনায় জঙ্গি আস্তানা থেকে বেরিয়ে এসে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আত্মঘাতী হওয়া নারীর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

রোববার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ বলেন, ওই নারীর ক্ষতবিক্ষত পেটে স্প্লিন্টার, ও বোমার টুকরো পাওয়া গেছে।

“তার পেটের নিচের অংশ ক্র্যাশড ছিল। পেটে বোমা রেখে বিস্ফোরণ ঘটানোর কারণেই এ রকম হয়েছে। মনে হচ্ছে বোমাটি হ্যান্ডমেইড গ্রেনেড জাতীয়।”

বোমার অংশ, স্প্লিন্টার এবং ওই নারীর দাঁত ও চুল নমুনা হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়েছে বলে অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ জানিয়েছেন।

পুলিশের ভাষ‌্য, নিহত ওই নারী জঙ্গিনেতা সুমনের স্ত্রী। শনিবার আশকোনার ওই জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের দীর্ঘ ১৬ ঘণ্টার অভিযানে জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ছেলেরও মৃত‌্যু হয়।

পুলিশের আহ্বানে সাড়া দিয়ে জঙ্গিনেতা জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুন্নাহার শীলা ও তার মেয়ে এবং জঙ্গিনেতা মুসার স্ত্রী তৃষ্ণা ও তার মেয়ে আত্মসমর্পণ করলেও সুমনের স্ত্রী, কাদেরীর ছেলে (১৪) ও জঙ্গি ইকবালের মেয়ে (৪) ভেতরে থেকে যায়।

আশকোনায় জঙ্গি আস্তানায় পড়ে আছে এক নারীর নিথর দেহ; জঙ্গি সুমনের এই স্ত্রী আত্মঘাতী বিস্ফোরণে নিহত হন বলে পুলিশ জানিয়েছে

আশকোনায় জঙ্গি আস্তানায় পড়ে আছে এক নারীর নিথর দেহ; জঙ্গি সুমনের এই স্ত্রী আত্মঘাতী বিস্ফোরণে নিহত হন বলে পুলিশ জানিয়েছে

এরপর বেলা ১টার দিকে মেয়েটিকে সঙ্গে নিয়ে বোরকা পরা ওই নারী বেরিয়ে আসেন এবং তার কোমরে বাঁধা গ্রেনেডে বিস্ফোরণ ঘটান বলে পুলিশের তথ‌্য।

বিস্ফোরণে আহত শিশুটিকে তখনই উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। আর ঘটনাস্থলেই নিহত আনুমানিক ৩৫ বছর বয়সী ওই নারীর লাশও পরে মর্গে পাঠানো হয়।

এদিকে জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ছেলের লাশ এখনও আশকোনার ওই আস্তানার ভেতরেই রয়েছে বলে জানিয়েছেন দক্ষিণখান থানার ওসি তপন কুমার সাহা।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, “মৃতদেহটি যে জায়গায় পড়ে আছে সেখানে বিস্ফোরক ও দাহ্য পদার্থ রয়েছে। আমরা দুপুরের মধ্যে লাশটি সরিয়ে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানোর চেষ্টা করছি।”

-বিডিনিউজ।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like