চকরিয়ায় তিন শতাধিক ভাসমান দোকান উচ্ছেদ

chakaria-uno-7-12

চকরিয়া প্রতিনিধি, ০৮ ডিসেম্বর: কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়ায় তিন শতাধিক ভাসমান দোকান উচ্ছেদ করা হয়েছে। এতে চকরিয়া পৌরশহর যানজট মুক্ত পরিচ্ছন্ন হয়ে উঠেছে।

বুধবার সকাল থেকে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলামের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। এসময় সাথে ছিলেন- পৌরসভার সচিব মাসউদ মোরশেদ ও চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জহিরুল ইসলাম খান, চকরিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর মুজিবুল হক মুজিব, কাউন্সিলর মকছুদুল হক মধু।

উপজেলা প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ জানান, চকরিয়া পৌরসভার সোসাইটি এলাকায় চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পশ্চিমপাশে ফুটপাত দখল করে তিন শতাধিক ভাসমান দোকান বসিয়ে ব্যবসা করে আসছিল কিছু ব্যবসায়ী। পাশাপাশি সড়কের উপরে রিক্সা, টমটম, সিএনজি অটোরিক্সা, জীপসহ বিভিন্ন গাড়ি এলোপাতাড়ি পার্কিং করে রাখা হতো। একারণে পৌরশহরে নিত্যদিন যানজট লেগে থাকতো। দুর্ভোগ পোহাতে হতো শিক্ষার্থী, জনসাধারণ ও যাতায়াতকারীদের।

চিরিংগা এলাকার বাসিন্দা নুরুল আলম, জয়নাল আবদীন সহ স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ভাসমান ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করার ফলে স্বতঃস্ফূর্তভাবে সাধারণ মানুষ চলাচল করতে পারছে।

ফল বিক্রেতা হকার মিজান উদ্দীন বলেন, স্বল্প পুঁজিতেও ফুটপাতে বসে ব্যবসা করা যায়। আর এতে সংসারে ভরন-পোষণও চলে ভালমতো। মনের আনন্দে পারিবারিক চাহিদা মিঠানো যায়। তিনি স্বল্প পুঁজি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ব্যবসার জন্য সরকারিভাবে নির্দিষ্ট জায়গা এবং সরকারি সাহায্যের দাবি জানান।

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলাম বলেন, আইনশৃঙ্খলা ও সমন্বয় সভায় গত ৩০ নভেম্বরের মধ্যে পৌরশহরের সড়ক থেকে সবধরনের দোকানপাট উচ্ছেদ ও অবৈধ পার্কিং সরানোর সিদ্ধান্ত হয়। তারই আলোকে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে। সড়কে অবৈধ পার্কিং ও ভাসমান দোকান যাতে ভবিষ্যতে বসতে না পারে সে লক্ষ্যে পৌরসভার পক্ষ থেকে ১২ সদস্যের একটি স্পেশাল টিম সর্বাক্ষণিক নিয়োজিত করা হয়েছে। উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন নিয়মিত মনিটরিং করবে।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like