রোহিঙ্গা নিপীড়নের প্রতিবাদে ঢাকায় হেফাজতের বিক্ষোভ

শুক্রবার জুমার নামাজের পর পৌনে ২টার দিকে বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইট থেকে দৈনিক বাংলা মোড় পর্যন্ত সড়কে অবস্থান নেয় হেফাজতকর্মীরা।

তাদের বিক্ষোভ কর্মসূচির কারণে ওই এলাকার বেশকিছু সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বলে মতিঝিল বিভাগের পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার তারেক বিন রশীদ জানিয়েছেন।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হেফাজতকর্মীদের বায়তুল মোকাররম থেকে দৈনিক বাংলা মোড় পর্যন্ত বিক্ষোভ করার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

হেফাজতকর্মীদের বিক্ষোভ-সমাবেশের কর্মসূচিতে জুমার নামাজের আগ থেকেই বায়তুল মোকররমসহ আশপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল।

গত ৯ অক্টোবর মিয়ানমারের তিনটি সীমান্ত পোস্টে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদীদের’ হামলায় ৯ সীমান্ত পুলিশের মৃত্যুর পর রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গা অধ্যুষিত জেলাগুলোতে সেনাবাহিনীর অভিযান শুরু হয়।

ওই অভিযানে শতাধিক মানুষের প্রাণ হারানোর খবর দিচ্ছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম; যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে, রাখাইন অঞ্চলে ১২শ’রও বেশি ঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রমাণ হিসেবে তারা ১০ থেকে ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে ৮২০টি ঘর পুড়িয়ে দেওয়ার স্যাটেলাইট ছবিও প্রকাশ করেছে।

রোহিঙ্গা মুসলিমদের উৎখাত করতে মিয়ানমার তাদের বিরুদ্ধে জাতিগত শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার কর্মকর্তা জন ম্যাককিসিক।

তিনি বলেছেন,সশস্ত্র বাহিনী রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গদেরকে হত্যা করছে। সেনা অভিযান থেকে বাঁচতে প্রতিবেশী দেশগুলোতে পালাচ্ছে রোহিঙ্গারা।

এরই মধ্যে অবৈধভাবে ঢুকে পড়ার চেষ্টাকালে কয়েকশ’ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে ফেরত পাঠিয়েছে বাংলাদেশ, আটক করেছে ৭০ জনকে।

সীমান্তে রোহিঙ্গাদের ঢলে ‘উদ্বেগের’ কথা বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছেও তুলে ধরেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।

মিয়ানমার সরকার কোনোরকম নৃশংসতার খবর অস্বীকার করেছে। তাদের ভাষ্য, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মনোযোগ আকর্ষণে রোহিঙ্গা মুসলিমরা নিজেরাই নিজেদের ঘর জ্বালিয়ে দিয়েছে।

-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like