ঈদগাঁওতে সাংবাদিকদের সাথে ইউনিটি পরিবারের মতবিনিময়

unity_eidgah

ঈদগাঁও প্রতিনিধি, ১৯ নভেম্বর: কক্সবাজার সদরের বৃহত্তর ঈদগাঁওয়ের স্বেচ্ছাসেবীমূলক সংগঠন ইউনিটি পরিবার (ইউনাইটেড নভিস ইনটেগ্রিটি ফর ট্যালেন্টেড ইয়ুথ) ১৮ নভেম্বর সন্ধ্যায় সংগঠনের নিজস্ব মিলনায়তনে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন।
সংগঠনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইবরাহীমের সভাপতিত্বে ও শিক্ষা বিভাগের পরিচালক মোজাম্মেল হকের সঞ্চালনায়, সদস্য কাউছার মুন্নার কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। সংগঠনের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচী সফলতার সাথে বাস্তবায়ন ও আগামীর পরিকল্পনা সাংবাদিকদের সামনে স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে তুলে ধরেন সংগঠনের চেয়ারম্যান।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের শিক্ষা বিভাগের উপদেষ্টা অধ্যাপক সুলতান আহমদ, সাহিত্য ও সংস্কৃতিক বিভাগের উপদেষ্টা হুমায়ুন আজাদ ছিদ্দিকী, সদস্য আবু তৈয়ব, সাহাব উদ্দীন এমইউপি, শাহাদত হোছাইন, ইমরান, শহিদুল্লাহ, সোয়াইব, তাফসীরুল ইসলাম, মহিউদ্দীন, বেলাল, ওকার উদ্দীন ও মিজানুর রহমান প্রমুখ।
ইতিমধ্যে সংগঠনের উদ্যোগে বাস্তবায়িত কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে ২০১২ সালে স্বাধীনতা দিবসে কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ, ২৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা, ২০১৩ সালে সংগঠনের সদস্যদের আন্তরিকতা, দক্ষতা ও মানোন্নয়ন প্রচেষ্টা কার্যক্রম, ২০১৪ সালে ইউনিটি টি-২০ ক্রিকেট টূর্ণামেন্ট, মহান বিজয় দিবসে গরীব-দুঃস্থ ১১৩ রোগীকে ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান, ৩০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা, ২০১৫ সালে স্বাধীনতা দিবসে গরীব-দুঃস্থ ২৫০ রোগীকে ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান, ১৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ৭ম শ্রেণীর ৩৮৬ জন শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে ৪০জন কৃতি শিক্ষার্থীকে মেধাবৃত্তি প্রদান, সদরের ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় অংশগ্রহণ ও শীর্ষ সনদ লাভ, মহান বিজয় দিবসে বৃহত্তর ঈদগাঁওর গরীব-দুঃস্থ ৩৫০ জনকে শীতবস্ত্র প্রদান, ২০১৬ সালে স্বাধীনতা দিবসে সদর হাসপাতাল ব্লাড ব্যাংক ও কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে সন্ধানীর সহযোগিতায় ২৫ জনের স্বেচ্ছায় রক্তদান, সেপ্টেম্বরে জাতিসত্ত্বার কবি “মুহম্মদ নুরুল হুদা কবি ও কবিতা” বিষয়ক আলোচনা সভা, রচনা প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার মুমূর্ষ রোগীকে স্বেচ্ছায় রক্তদানসহ এলাকার ছাত্র ও যুব সমাজকে শিক্ষা ক্ষেত্রে অনুপ্রাণিত করা, যুব ও নারী অধিকার সংরক্ষণে সচেতনতা, প্রাকৃতিক দূর্যোগ কবলিত এলাকায় অসহায় মানুষের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসা, সাহিত্য, ক্রীড়া, সংস্কৃতি ও বিনোদনের মাধ্যমে সৃজনশীল কাজে উৎসাহিত করা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নে যুব সমাজকে এগিয়ে নেয়াই হচ্ছে সংগঠনের প্রধান লক্ষ্য-উদ্দেশ্য।
সে সাথে আসন্ন ২০১৭ সালের বার্ষিক কর্ম পরিকল্পনাও পেশ করেন। উপস্থিত সাংবাদিকবৃন্দ সংগঠনের উপস্থাপিত কর্ম পরিকল্পনা মনোযোগ সহকারে শুনেন এবং সবধরণের সহযোগিতার আশ^াস দেন।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like