সমুদ্র পথে মানবপাচার: ৪৬১ জনের ব্যাংক একাউন্টের তদন্ত

humentraficker-imageবিশেষ প্রতিবেদক, ০৮ নভেম্বর ২০১৬: স্বারষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের দেয়া ৪৬১ জনের একটি তালিকা নিয়ে তাদের ব্যাংক একাউন্টের লেনদেন সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের গোয়েন্দা ইউনিট। কক্সবাজার থেকে সাগরপথে মানবপাচারে জড়িতদের অর্থের উৎস জানতেই নেয়া হয়েছে এমন উদ্যোগ। কক্সবাজারের সকল ব্যাংকের শাখায় চিঠি পাঠিয়ে ইতিমধ্যে এ ৪৬১ জনের ব্যাংক একাউন্টের তথ্য নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আর এ তথ্যের ভিত্তিতে মানবপাচারে ফেঁসে যেতে পারেন এরা। এদের ব্যাংক একাউন্টে অস্বাভাবিক লেনদেনের প্রমাণ পেলেই মামলা করতে পারে দুদক।
সূত্র জানিয়েছে, সাগরপথে ঝুঁকিপূর্ণ মানবপাচার। যার প্রধান রুট কক্সবাজার উপকূল। এই এলাকা হয়ে মানব পাচারের একের পর এক লোমহর্ষক খবর গেল বছর পর্যন্ত বেশ নাড়া দেয় গোটা দেশকে। এরপর টনক নড়ে প্রশাসনের। বাড়ে সব সংস্থার তৎপরতা।
অভিযোগ আছে, এই অবৈধ কর্মকান্ড ঘিরে লেনদেন হয় বিপুল অর্থের। তাই, চিহ্নিত মানবপাচারকারীদের অর্থ লেনদেনের তথ্য যাচাইয়ের এই উদ্যোগ নেয় বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিট। এজন্য তারা ৪৬১ সন্দেহভাজনের একটি তালিকা পাঠায় কক্সবাজার অঞ্চলের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে। এসব ব্যক্তির নামে ব্যাংক হিসাব থাকলে তাতে সন্দেহজনক বা অস্বাভাবিক লেনদেনের প্রতি বিশেষ নজর রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়। তালিকাভুক্ত সবার বাড়িই কক্সবাজার জেলায়।
এর মধ্যে ৩৫৯ জনই টেকনাফ উপজেলার বাসিন্দা। এছাড়া সন্দেহভাজনদের ৪২ জন মিয়ানমারের নাগরিক। আর ৫ জনের অবস্থান মালয়েশিয়ায়। তালিকাভুক্তদের ১শ জন আবার বিভিন্ন মানবপাচার মামলার আসামী। এরমধ্যে উখিয়া-টেকনাফ আসনের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির ভাই ও ভাগিনার নামও রয়েছে। আছেন কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান ও তাদের স্বজনরা। তবে এমন তালিকা পাঠানোর কথা স্বীকার করলেও এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করেননি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা।
যদিও এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন কক্সবাজারে পাচাররোধে সোচ্চার বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা। এ প্রসঙ্গে মানবপাচার বিরোধী জেলা ট্রার্সপোর্টের সদস্য আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা জানান, মানবপাচারকারিদের অর্থের লেনদেন অনুসন্ধানের দাবি দীর্ঘদিনের। এখন তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। তবে মানবপাচারের মত জঘন্য অপরাধে জড়িতদের আইনের আওতায় নেয়া না হলে অপরাধ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হবে না।
কক্সবাজার জেলা দায়রা ও জজ আদালতে এপিপি এডভোকেট অরূপ বড়ুয়া তপু জানান, মানি লন্ডারিং আইন ২০১২ এর ধারার বিভিন্ন উপ ধারায় দেখা যায় মানবপাচারে জড়িত ব্যক্তির ব্যাংক একাউন্টে অস্বাভাবিক লেদদেন থাকলে তার বিরুদ্ধে মামলা করা যাবে। এছাড়া সরকার চাইলেই এসব ব্যক্তির টাকা ক্রোক ও ফ্রিজ করতে পারেন।
বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে আসা ৪৬১ জনের তালিকায় রয়েছে, বহুল সমালোচিত কারান্তরিন এমপি আব্দুর রহমান বদির ছোট ভাই মৌলভী মুজিবুর রহমান, এমপি আব্দুর রহমান বদির ভাগীনা ও সাবরাং পুরানপাড়ার আব্দুর রহমান প্রঃ অসি আব্দুর রহমানের পুত্র সাহদেুর রহমান নিপু, টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদের পুত্র দিদার আহমদ, টেকনাফের শামলাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মৌলভি আজিজ, টেকনাফ সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আলম, রামুর খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মাবুদ, রামুর কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম ওরফে কালাম মেম্বার। এ ছাড়াও তালিকায় বর্তমান ও সাবেক ইউপি সদস্য রয়েছে বেশ কয়েকজন। তালিকায় অন্যান্যরা হলো-
টেকনাফ উপজেলা:
টেকনাফ উপজেলার শাহপরীরদ্বীপ ইউনিয়নের মিস্ত্রিপাড়ার মরহুম জালাল আহমদের পুত্র নুর হোসেন, মরহুম হাজি আলী হোসেনের পুত্র রশিদ আহমদ, আব্দুর রহমানের পুত্র মুহিব উল্লাহ মাঝি, মরহুম মোঃ হাসিম ওরফে হাতকাটা হাসিমের পুত্র আবু তাহের, মরহুম নজির আহমদের পুত্র নূরুল আলম, হাজী আলী হোসেনের পুত্র এনায়েত উল্লাহ, মিয়ানমারের নাগরিক রশীদ উল্লাহ মাঝি (সে মিস্ত্রীপাড়ার আব্দুল মতলব এর মেয়ে মরিয়ম খাতুনকে বিয়ে করে ওই এলাকায় বসবাস করছে), মোঃ হোসেনের পুত্র মোঃ আমিন, মরহুম সোনা আলী বলীর পুত্র আব্দুস সালাম, দলিল মিয়ার পুত্র মোঃ হোসেন, জোর আহমদের পুত্র জাফর আহমদ, শাহপরীরদ্বীপ বাজারপাড়ার মরহুম আমির হোসেনের পুত্র মোঃ রফিক, একই এলাকার মরহুম নজির আহমদের পুত্র মোঃ আব্দুল জলিল, কালা মিয়ার পুত্র হাবিবুর রহমান, বাচা মিয়ার পুত্র গোলাম হোসেন, মরহুম হাজী এজাহার মিয়ার পুত্র মনির উল্লাহ, মরহুম সুলতান আহমদের পুত্র মোঃ কাসিম মাঝি, মরহুম মতিউর রহমানের পুত্র জমির উদ্দিন কাবিরা, মরহুম জালাল আহমদের পুত্র মোঃ শরীফ হোসেন, মরহুম মোঃ হোসেনের পুত্র শরীফ হোসেন ভুলু, মরহুম হাসেমের পুত্র মোঃ সেলিম প্রঃ লম্বা সেলিম, মরহুম মীর আহমদের পুত্র আয়াছ। ডাঙ্গারপাড়ার আবুশামা ওরফে বাডু হাজীর পুত্র হেলাল উদ্দিন, মোঃ ফিরোজের পুত্র মোঃ এমরান, মোঃ ফিরোজের পুত্র মোঃ এনাম উল্লাহ, বশির আহমদের স্ত্রী হাফেজা বেগম, ইমাম শরীফের স্ত্রী হাসিনা বেগম, মরহুম আবু শামা ওরফে বাডু হাজীর পুত্র ফিরোজ আহমদ, মরহুম আবু তাহেরের পুত্র মোঃ হাসেম প্রঃ পোয়া মাঝি, মরহুম আব্দুল মোতালেবের পুত্র দেলোয়ার। দক্ষিনপাড়ার মাহমুদুল্লাহ মাঝির পুত্র মোঃ শফিক, আবুল কাসেম মিয়ার পুত্র আবু তাহের, মহুরম নূর আহমদের পুত্র মোঃ জাফর, মরহুম আব্বাস মিয়ার পুত্র মোঃ ইসলাম, মরহুম ওমর মিয়ার পুত্র মোঃ কাসিম, হাবিব উল্লাহ ওরফে কবিরা হাবিব উল্লাহর পুত্র রহিম উল্লাহ, সুলতান আহমেদের পুত্র ইলিয়াছ, মরহুম নুর হাকিম মাঝির পুত্র জয়নাল আবেদিন, মরহুম কবির আহমদের পুত্র বদি আলম, আলী মাঝি, এজাহার মিয়া মাঝির পুত্র ফয়েজউল্লাহ মাঝি (সে মিয়ানমারের নাগরিক, শাহপরীরদ্বীপের দক্ষিনপাড়ার বাসিন্দা নুর আহমদ মাঝির মেয়েকে বিয়ে করে শ্বশুরবাগীতে বসাবাস করছে)। শাহপরীরদ্বীপ ঘোলাপাড়ার মরহুম কবির হোসেনের পুত্র সামশুল আলম। মাঝেরপাড়ার মরহুম আব্দুল লতিফের পুত্র মোঃ সাব্বির আহমদ, কালা মিয়ার পুত্র মোঃ কামাল হোসেন, মরহুম আব্দুস শুক্কুরের পুত্র আব্দুর রহমান, নুর হাকিম মাঝির পুত্র রহিম উল্লাহ, আক্তার হোসেন মাঝির স্ত্রী দিলদার বেগম, শামরুক প্রঃ শারেক বানু সাইক্কানি, মোক্তার মিয়ার পুত্র আবুল কালাম, মরহুম কালা মিয়ার পুত্র আব্দুল শক্কুর, জাহেদ হোসেন মাঝির পুত্র সৈয়দ উল্লাহ, মকবুল আহমদ মাঝির পুত্র হাফেজ উল্লাহ, দুদু মিয়া বলির পুত্র সলিম উল্লাহ, নজির আহমদের পুত্র মোঃ আমিন, মরহুম অলি আহমদ ফকিরের পুত্র মোঃ আজগর, মরহুম সুলতান আহমদের পুত্র আব্দুল জলিল ও মৌলভী আব্দুল্লাহ, মরহুম সুলতান আহমদের পুত্র মোঃ সাহাব মিয়া। কোনারপাড়ার ফয়জুর রহমানের পুত্র মোঃ হাসান, সৈয়দ করিম চৌকিদারের পুত্র মোঃ আমিন ও মোঃ ইয়াহিয়া, হাবিবুর রহমানের পুত্র মোঃ জোবাইর, সুলতান আহমদের পুত্র দিল মোহাম্মদ, সুলতান আহমদের পুত্র মনির উল্লাহ, মরহুম মোঃ হোসেনের পুত্র সোনা মিয়া, সৈয়দ আকবরের পুত্র আলী হোসেন, ইমাম শরিফের পুত্র আবুল ফয়েজ। ডেইলপাড়ার মরহুম মতিউর রহমানের পুত্র সাব্বির আহমদ। পশ্চিমপাড়ার শফি মিয়ার পুত্র মোঃ কবির হোসন, আলী আহমদের পুত্র কায়সার। হাজীপাড়ার সৈয়দ উল্লাহর পুত্র মুজিব উল্লাহ। উত্তরপাড়ার মরহুম নজির আহমদের পুত্র সৈয়দ, মরহুম নজির আহমদের পুত্র জিয়াবুল। বাজারপাড়ার মোঃ ধলু হোসেনের পুত্র বেলাল উদ্দিন, মরহুম সুলতান আহমদের পুত্র মোঃ ইউনুছ, হাজী সালেহ আহমদের পুত্র ইসমাইল ও জিয়াবুল।
সাবরাং ইউনিয়নের হারিয়াখালীর গুরা মিয়ার পুত্র আবুল কালাম, সোলতান আহমদের পুত্র আমান, আবুল উরফে কাবিলের পুত্র ছমদ, নইল্যার পুত্র ভুট্টু, আব্দুল হকের পুত্র নুরুল আলম, আব্দুর রহমানের পুত্র কামাল, আব্দুল মাজেদের পুত্র আলমগীর, সুফি আহমদের পুত্র জাহাঙ্গীর, মোঃ চান্দুরার পুত্র মোঃ জাকের আলী, আমির হোসেনের পুত্র জিয়াউর রহমান প্রঃ জিয়ারু, নুর আহমদের পুত্র মোঃ কবির মেম্বার ও সাদ্দাম। কচুবনিয়ার সিদ্দিক আহমদের পুত্র রশিদ আহমদ ডাইলা, মরহুম ইউসুফের পুত্র মোঃ সিদ্দিক আহমদ, সিদ্দিক আহমদের পুত্র ইমাম হোসেন, ফজল আহাম্মদের পুত্র মোহাম্মদ ইসলাম প্রঃ বাগু, আঃ মাজেদের পুত্র শওকত ফারুক, মকবুল আহমদের পুত্র আব্দুল করিম, আব্দুল করিমের পুত্র আব্দুল্লাহ, আব্দুল জলিলের পুত্র আব্দুল্লাহ, ঈমান শরীফের পুত্র রশীদউল্লাহ ডাইলা, সিদ্দিক আহমদের পুত্র ইমাম হোসেন, কবির আহমদের পুত্র মোঃ আমিন, শফি আহমদের পুত্র জাহেদ হোসেন, আব্দুল মালেকের পুত্র ফরিদ আহমদ, জালাল আহমদের পুত্র মোঃ ইদ্রিস মুন্না, মরহুম নুর মোহাম্মদের পুত্র আবু বক্কর, নজির আহমদের পুত্র ইসমাইল, দরবেশ আলীর পুত্র বাক্কু, দিল মোহাম্মদের পুত্র মোঃ শফিক, কালা মিয়ার পুত্র হাবিুবর রহমান, শামুসল আলমের পুত্র জাফর আলম, মরহুম আমির হোসেনের পুত্র মোঃ রফিক, নজির আহমদের পুত্র আব্দুস সালাম, সুলতান আহমদের পুত্র শাহজাহান ও জাবেদ, মোঃ কাশেমের পুত্র গিয়াস উদ্দিন, মরহুম বকসু মিয়ার পুত্র নাগু মিয়া ওরফে নুর উদ্দিন, মরহুম সুলতান আহমেদের পুত্র মৌলভি বশির প্রঃ ডাইলা, আব্দুর রহিমের পুত্র নজির আহমদ প্রঃ নজির ডাকাত, আব্দুল খালেকের পুত্র আব্দুল হামিদ ও মো: হামিদ (মালয়েশিয়ায় অবস্থান করে পাচার কাজ করে), আব্দুল খালেকের পুত্র রমজান (মালয়েশিয়ায় অবস্থান করে পাচার কাজ করে), আহমদের পুত্র মিয়া, মরহুম মোছাব্বর আহমদের পুত্র গুরা মিয়া, মোঃ কাসেম প্রঃ জিমা কাসেম, ফজল আহমদের পুত্র মোঃ ইসলাম প্রঃ বাগু ও জাফর আলম।
কোয়াংছড়িপাড়ার আব্দুল আজিজের পুত্র মোহাম্মদ, মরহুম আমির হোসেনের পুত্র এজহার মাঝি, আব্দুল জব্বারের পুত্র মাজেদ মাঝি। কাটাবনিয়ার মৃত কালু মিয়ার পুত্র আবুল কাসেম প্রঃ বাদু কোম্পানী, সুফি আহমদের পুত্র জাহাঙ্গীর, মরহুম আজিজুর রহমানের পুত্র আবু তাহের, মরহুম সৈয়দুর রহমানের পুত্র জিয়াউর রহমান, আব্দুর রহমানের পুত্র কামাল, কামালের স্ত্রী মুন্নি, আব্দুর রহমানের পুত্র আবুল কালাম, আব্দুর রহমানের পুত্র জামাল, মরহুম ফয়েজুর রহমান মেম্বারের পুত্র ফরিদ, আবুল কাসেম ওরফে বাদু কোম্পানীর পুত্র মোঃ ইসহাক, মরহুম সৈয়দুর রহমানের পুত্র মৌলভী ছালামত উল্লাহ, ইউসুফ আলীর পুত্র সিদ্দিক আহমদ, আজিজুর রহমানের পুত্র ফয়েজ, মরহুম মকবুল আহমদের পুত্র নুরুল ইসলাম প্রঃ কালাপুতু, মরহুম শফিউল্লাহর পুত্র মীর আহমদ, কালা পুতুর পুত্র আব্দুল্লাহ, মোঃ হোসেনের পুত্র জাফর আলম, আব্দুল মাবুদের পুত্র আব্দুর রহিম, সৈয়দুর রহমানের পুত্র মৌলভী ছালামত উল্লাহ, শহর মুল্লুকের পুত্র আব্দুল্লাহ, কবির আহমদের পুত্র জাহাঙ্গীর, আব্দুল মাবুদের পুত্র ওসমান ও ওমর ফারুক, আব্দুল মাজেদের পুত্র আলমগীর ও শওকত। মুন্ডারডেইলের মরহুম হোসেন আলী সিকদারের পুত্র জহির উদ্দিন প্রঃ কানা জহির, মোঃ কবির আহমদের পুত্র মোঃ শাকের মাঝি, নাজির হোসেন প্রঃ নাজু মিয়ার পুত্র নুরুল আলম নুরু প্রঃ নুরু মাঝি, জহির আহমদ মেম্বারের পুত্র রব্বানি, মাষ্টার সৈয়দ আহমদের পুত্র দানু, নজির মেম্বারের পুত্র আব্দুল মাজেদ, মুছা আলীর পুত্র অলি আহমদ, হাজী আমির হোসেনের পুত্র জিয়ারুল, আব্দুল মতলবের পুত্র ফিরোজ। আলীর ডেইলের মরহুম নজির আহমদ মেম্বারের পুত্র আকতার কামাল ও শাহেদ কামাল, সুলতান আহমদের পুত্র আকিল, দিল মোহাম্মদের পুত্র মোঃ ফরিদ। দক্ষিনপাড়ার মরুহুম গণি মিয়ার পুত্র নুরু হাকিম মাঝি, মরহুম আব্দুল হাসিমের পুত্র আনার আলী ও নুর আলম। নয়াপাড়ার নজু মিয়ার পুত্র নুর মোহাম্মদ মেম্বার, লাল মিয়ার পুত্র ঈমান শরিফ, লাল মিয়ার পুত্র মোঃ শরিফ, আব্দুল্লার পুত্র মোঃ লিটন, মোঃ জালালের পুত্র মোঃ আবুল হাসিম, মোঃ হোসেনের পুত্র মোঃ দলিল আহমদ, ফজল মেম্বারের পুত্র শফিক। কোয়াংছড়িপাড়ার আমান উল্লাহ, জাহেদ হোসেন পুতুইক্যা, মীর আহমদের পুত্র খুইল্যা মিয়া, আব্দুলের পুত্র বশির আহমদ। পুরানপাড়ার মৌলভী আব্দুল গফুরের পুত্র হাফেজ মোক্তার। মন্ডলপাড়ার আমির হামজার পুত্র জাহিদ হোসেন, খায়েব হোসেন, নুর হোসেন মেম্বার, নবী হোসেন, সামসুল আলম ও আব্দুল গফুর। খুরেরমুখের আব্দুল মালেকের পুত্র ইসমাইল। আছারবনিয়ার ছৈয়দুর রহমানের পুত্র আবুল কালাম। বাজারপাড়ার মরহুম হাজি আব্দুল করিমের পুত্র হামিদ হোসেন। হাদুরছড়ার আনু ফকিরের পুত্র আব্দুল গফুর। পানছিপাড়ার মোঃ ইউনুসের পুত্র মোঃ তৈয়ব। বাহারছড়ার মরহুম আব্দুস সালামের পুত্র হাবি উল্লাহ, মরহুম আব্দুস সালামের পুত্র জাফর, সৈয়দ আহমদের পুত্র হেলাল উদ্দিন। চান্দুলীপাড়ার মরহুম কাদির হোসেনের পুত্র আব্দুল হাকিম প্রঃ কালাইয়া, নুর মোহাম্মদের পুত্র নুর বশর, আব্দুল মজিদের পুত্র শাহ আলম। ফতেআলীপাড়ার লাল মোহাম্মদের পুত্র আইয়ুব খান, মোহাম্মদের পুত্র আমির হোসেন। জালিয়াপাড়ার মরহুম দুদু মিয়াদের পুত্র মোঃ সৈয়দ আলম।
টেকনাফ পৌর পুরান পল্লান পাড়ার নুর হাফেজ, নাইট্যংপাড়ার জাফর আহমদের স্ত্রী হাসিনা বেগম।
টেকনাফ সদরের মৌলভী পাড়ার মোঃ আনোয়ারের পুত্র জাবেদ, নুর আহমদের পুত্র ইসমাইল। খানকার পাড়ার আজিজুর রমজানের পুত্র আব্দুর রহমান, মরহুম আব্দুর রহিমের পুত্র মোহাম্মদ মাঝি। শীলবনিয়াপড়ায় বসবাসকারী মরহুম কালা মিয়া প্রঃ মৃত মোঃ হাসিমের পুত্র রোহিঙ্গা নাগরিক মুহিব উল্লাহ মাঝি, মৃত মোঃ মিয়ার পুত্র আবুল হোসেন ড্র্ইাভার। দক্ষিণ ডেইলপাড়ার আব্দুল গফুরের স্ত্রী হালিমা খাতুন। কচুবনিয়ার মঈনুজ্জামানের পুত্র আব্দুর রহিম। মহেশখালীয়া পাড়ার হামিদ প্রঃ হামিদ ডাকাত, মরহুম সাহাব মিয়ার পুত্র মোঃ ফিরোজ। গোদারবিলের পুতুর পুত্র শাকের ও দিল মোঃ দিলু, কালু বৈদ্যর পুত্র মোঃ সৈয়দ, আব্দুস সালামের পুত্র ফরিদ, আব্দুল শুক্কুরের পুত্র হাফেজ আহমদ, মাহবুবেব পুত্র শফিক ও জাহাঙ্গীর (মালয়েশিয়ায় অবস্থান করে পাচার কাজ চালায়)। মিঠাপানির ছড়ার আলী আহমদ প্রঃ আলী বলি, মরহুম গোলাল আহমদের পুত্র নুরুল ইসলাম মাঝি, মোতায়াল্লীর পুত্র মোঃ আলী। রাজারছড়ার কালা মিয়ার পুত্র সিরাজ মিয়া। হাবিরছড়ার শফিক আহমদের পুত্র নুরুল ইসলাম ও মোঃ হোসেন প্রঃ লম্বা হোসেন, মরহুম নুর আহমদের পুত্র নুর সালাম, শফিক আহমদের পুত্র নুরুল আমিন, মীর আহমদের পুত্র সরোয়ার। উত্তর লেঙ্গুরবিলের ফকির আহমদের পুত্র হেলাল উদ্দিন, সামসুল আলমের পুত্র সিরাজ, জহির আহমদের পুত্র তৈয়ব, মোজাহার মিয়ার পুত্র আব্দুল গফুর। দক্ষিণ লম্বরীর সোনা মিয়ার পুত্র মোঃ ইদ্রীস, মোঃ আলম, মোঃ জাহাঙ্গীর, মরহুম গুরা মিয়ার পুত্র সলিম মাঝি, মৃত আব্দুস সালামের পুত্র মোঃ তৈয়ব। ধুমপ্রাং বিলের মরহুম আশরাফ আলীর পুত্র আইয়ুব আলী মাঝি। নতুন পল্লানপাড়ার ফজল হকের পুত্র শেখ করিম, শেখ আহমদের পুত্র মোঃ আব্দুল, জালাল আহমদের পুত্র গফুর আলম। বড়ইতলীর মোহাম্মদ আমিনের পুত্র ইলিয়াছ, মরহুম আবদুর রশিদের পুত্র ইরু, মরহুম আবদুর রশিদের পুত্র মোঃ জলিল। বাজারপাড়ার মফিজুর আলমের পুত্র আবু বক্কর আল মাসুদ, রবিউল হোসেন ওরপে আনসারের পুত্র জাহাঙ্গীর আলম, আলী আহমদের পুত্র কায়সার। চকবাজারের মৃত কালা মিয়া প্রঃ দলিলুর রহমানের পুত্র হেবজ রহমান প্রঃ রোহিঙ্গা হেবজ মাঝি, সদরের আবদুল হাইর পুত্র বদি আলম।
হ্নীলা ইউনিয়নের রঙ্গীখালীর আলী হোসেনের পুত্র ঠান্ডু মিয়া, নাদির হোসেনের পুত্র রশিদ আহমদ, মরহুম বদিউর রহমানের পুত্র নুর মোহাম্মদ, মৃত সোলেমানের পুত্র কালু, মরহুম সোলেমানের কন্যা ছুরা খাতুন, আব্দুল হাকিমের পুত্র দুদু মিয়া। আলীখালীর গবি সুলতানের পুত্র মৌলভী মোঃ মিয়া, মৃত হায়দার আলীর পুত্র জামাল উদ্দিন, জামাল উদ্দিনের পুত্র শাহনেওয়াজ, শাহ আজম ও জুয়েল। পশ্চিম লেদার মৃত আবুল কাসেমের পুত্র মোঃ নরুল হুদা, আব্দুল কাসেমের পুত্র মোঃ নুরুল কবির, আব্দুর রহিমের পুত্র সোহাগ আব্দুল্লাহ। লেদা অনিবন্ধিত শরনার্থী শিবিরের এ-ব্লকের মৌলভী ফজল করিম সিকু, কবির প্রঃ ডাঃ কবির, মৃত হোসেন আলীর পুত্র ক্যাম্প সভাপতি হাফেজ আইয়ুব, বি-ব্লকের জাহেদ, আবু সিদ্দিক, সি-ব্লকের নাজির হোসেন, হাশিম উল্লাহ, বাইল্যা, হামিদ হোসেন, ডি-ব্লকের আব্দুল করিম, মৌলভী আবু তাহের, নাদির হোসেন, সামসু, ই-ব্লকের আমির হোসেন (ক্যাম্প সাধারণ সম্পাদক), শফি মাঝি, নুরু। নয়াপড়া নিবন্ধিত শরনার্থী শিবিরের ই-ব্লকের মরহুম ফরিদ হোসেনের পুত্র সিরাজ, আব্দুল হাফেজ, আনোয়ার সাদেক, মোঃ সিরাজ, মরহুম আমির হামজার পুত্র মোঃ আলম ওরফে মাত আলম, ডি-ব্লকের মৌলভী কামাল, আব্দুস সালামের পুত্র জামাল মাঝি, আবু শামার পুত্র নেজাম মাঝি, মোঃ শফি প্রঃ মো নাছির, সলিম, রশিদ উল্লাহ, রফিক, আই-ব্লকের হারুন প্রঃ হারুন ডাকাত, বি-ব্লকের মৌলভী ছানাউল্লাহ, আব্দুল শুক্কুর প্রঃ কালা শুক্কুর, মোঃ জেবাইর, সি-ব্লকের মৌলভী নরুল হক, মোঃ সালাম প্রঃ দাড়ি সালাম, নাজিম উদ্দিন, গুরা মিয়া, নরুল হাকিম, শাহ আলম, নুরুল বশর, মাষ্টার হাবিবুল্লাহ, এইচ-ব্লকের হাছন আহমদ, মরহুম আমানউল্লাহর পুত্র জাফর, মোঃ বাকের আহমদের পুত্র মাহমুদুল হোসেন ওরফে মোহাম্মদুল হোছন, আই-ব্লকের হাজি সুলতান। জাদিমুরা এলাকার জাফর প্রঃ বার্মাইয়া জাফর, বাচা মিয়ার পুত্র সৈয়দ হোসেন, তাজর মুল্লুকের পুত্র নুরুল ইসলাম, বাচা মিয়ার পুত্র মোঃ কবির প্রঃ লেং কবির, মৌলভী আব্দুস সালাম, হাফেজ আব্দুর রহমানের পুত্র এনায়েত উল্লাহ।
হোয়াইক্যং ইউনিয়নের উনচিপ্রাংয়ের মৌঃ আব্দুল আলীমের পুত্র ছৈয়দ আকবর, আব্দুর রশীদের পুত্র মোঃ শামসুল আলম, আব্দুর রশিদের পুত্র মোঃ ইসমাইল, মৌঃ আব্দুল আলীমের পুত্র মীর কাশেম। লম্বাবিলের খ্ইুল্যা মিয়ার পুত্র মমতাজ, জুহুর আলীর পুত্র মমতাজ, গোলাম আকবরের পুত্র বদি আলম। করাচীপাড়ার মৃত আব্দুস শুক্কুরের পুত্র ওসমান প্রঃ বুলু। কাঞ্জরপাড়ার শুক্কুর আহমদের পুত্র করিম উল্লাহ। নয়াপাড়ার ফজল মেম্বারের পুত্র শফিক। রইক্ষ্যংয়ের হাবিবুর রহমানের পুত্র নুরুল আলম।
বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর নয়াপড়ার রশীদ আহমদের পুত্র আব্দু সালাম প্রঃ আব্দু কোম্পানী, রশীদ আহমদের পুত্র আজিজুল ইসলাম প্রঃ পুতুইয়া, মৃত সোলতান আহমদের পুত্র মোঃ আলী, মকবুল আলীর পুত্র রহমত আলম, মরহুম নুরুল ইসলামের পুত্র ফরিদ আলম। পুরাণপাড়ার মরহুম নুরুল ইসলামের পুত্র বেলাল, সৈয়দ করিম প্রঃ কইজ্জার পুত্র শওকত আলম, গোলাইয়ার পুত্র শহিদুল্লাহ। ঝাউবাগান এলাকার হাসু প্রঃ বামাইয়া হাসু।
সেন্টমার্টিন ইউনিয়নের পশ্চিমপড়ার আব্দুল আলীর পুত্র কবির আহমদ, সৈয়দ কাশিমের পুত্র ফয়জুর রহমান, মরহুম মিয়া হোসেনের পুত্র আজিম আলী, মাস্টার সামসুল ইসলামের পুত্র জাহেদ, মাস্টার আব্দুর রহমানের পুত্র সিরাজুল ইসলাম, মোঃ হাসানের পুত্র সামসুল ইসলাম, লাল মিয়ার পুত্র আব্দুর রহমান, মৃত আব্দুল গণির পুত্র মোঃ সলিম, জাফর আহমদ প্রঃ টিভি জাফরের পুত্র আবু তাহের, মৃত মোঃ সিদ্দিকের পুত্র কামাল হোসেন। পূর্বপড়ার মৃত আব্দুল গফুরের পুত্র সাবেক মেম্বার কবির আহমদ, মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র আবু তালেব, কালু মিয়ার পুত্র আব্দুল শুক্কুর, হাজী আবুল কালামের পুত্র মোঃ ইসহাক, মৃত জাফর আহমদের পুত্র নজির আহমদ, করিম উল্লাহর পুত্র মোঃ ইসমাইল। দক্ষিনপড়ার করিম উল্লাহর পুত্র মোঃ ইসমাইল মাঝি। মাঝেরপড়ার মৃত জাফর আহমদের পুত্র আবুল কালাম। কোনারপড়ার মৃত মোঃ এজাহার মিয়ার পুত্র আব্দুর রাজ্জাক, মৃত মোঃ হোসেনের পুত্র হাফেজ উল্লাহ। গলাচিপাপাড়া মৃত হাজী আমির হোসেনের পুত্র রশীদ আহমদ। নজরুলপাড়ার নুর আহমদের পুত্র নুর ইসলাম। বাজারপাড়ার মোঃ বকসু মিয়ার পুত্র মোঃ ইউনুছ মাঝি।
কক্সবাজার সদর উপজেলা:
কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নের মুহুরীপাড়ার মৃত জামাল আহাম্মেদ সিকদারের পুত্র ইউপি সদস্য কুদরত উল্লাহ, বাসটার্মিনালস্থ লারপাড়ার লালুর পুত্র আবুল কালাম ওরফে ইয়াবা কালাম, মুহুরীপাড়ার ওমর আলীর পুত্র মোঃ শাহজাহান, দক্ষিন ডিককুলের মৃত মোঃ সুলতানের পুত্র আবু নফর (রোহিঙ্গা হিসেবে পরিচিত)। কক্সবাজার পৌরসভার নুনিয়ারছড়ার সব্বির আহমদের পুত্র আবু, লাইট হাউজপাড়ার আব্দুস শুক্কুরের পুত্র আবুল কালাম। ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ওয়াহেদর পাড়ার আব্দুস সালামের কন্যা রুজি আক্তার ওরফে বকুলি বেগম, আব্দুস সালামের পুত্র সমসুল আলম, আব্দুল সালামের পুত্র জাফর আলম। খুরুস্কুল ইউনিয়নের কুলিয়াপাড়ার মোঃ মনুর পুত্র ফরিদ, আব্দুর রহমানের পুত্র ইমরান, কোনারপাড়ার বাদশার পুত্র মনির খান। ভারুয়াখালী ইউনিয়নের দক্ষিনপাড়ার নূর আলমের পুত্র মোঃ হানিফ, বৌদুর পুত্র মনির মাঝি, সাদাতপাড়ার মৃত দুদু মিয়ার পুত্র মোনা মিয়া, মৃত ইয়াকুব আলীর পুত্র মমতাজ, পশ্চিমপাড়ার আব্দুল খালেকের পুত্র সাবের। চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের মাধ্যম গজালিয়ার আলী বসুর পুত্র নুরু ওরফে মালয়েশিয়া রফিক, দক্ষিনপাড়ার মৃত সৈয়দ আকবরের পুত্র দিন মোহাম্মদ, ইব্রাহিমের পুত্র জাফর আলম, কালা মিয়ার পুত্র বাহাদুল্লাহ। ঈদগাঁও বাসষ্টেশনস্থ মৃত আনুমিয়া শিকদারের পুত্র করিম শিকদার,
উখিয়া উপজেলা:
উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের চেপটখালীর মোস্তাফিজ সিকদারের পুত্র ফয়েজুল ইসলাম, মৃত মাস্টার শরীফের পুত্র আবুল কালাম, লম্বরী পাড়ার মৃত ইসলাম মিয়ার পুত্র বেলালা উদ্দীন ওরফে লাল বেলাল, সোনাইছড়ির মৃত ইউসুফ আলীর পুত্র রুস্তম আলী, সোনারপাড়ার মৃত কাদের হোসেনের পুত্র জমির উদ্দীন ওরফে কালা জমির, নুরুল কবিরের স্ত্রী রেজিয়া বেগম রেবি ওরফে রেডি ম্যাডাম, জুম্মাপাড়ার মৃত মকবুল আহমেদের পুত্র বেলাল ওরফে বেলাল মেম্বার, মৃত কবির আহমদের পুত্র আব্দুস সালাম ওরফে লম্বা সালাম, মনির আহমদের পুত্র ইসহাক আহমেদ, মৃত কবির আহমদের পুত্র নুরুল আলম ওরফে নুর, মৃত আমীর হামজার পুত্র ছৈয়দ আলম ওরফে ছৈয়দ্যা, পাইন্নাসিয়ার শামসুল আলমের পুত্র ছৈয়দ আলম, দক্ষিন সোনাইছড়ির মৃত ফজল আহমদের পুত্র মোঃ ছিদ্দিক, মৃত ফজল আহমদের পুত্র ইউসুফ জালাল, দক্ষিন ধুয়ার বিলের আলী হোসেন ফকিরের পুত্র আলী আকবর, ইসলাম মিয়ার পুত্র শামসুল আলম। হলদিয়াপালং ইউনিয়নের পশ্চিম মরিচ্যার মৃত রাজমহল বড়–য়ার পুত্র বাবুল বড়–য়া।
রামু উপজেলা :
রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের দক্ষিন গোয়ালিয়াপালংয়ের কালু ওরফে বাঘ কালুর পুত্র বাদশা মিয়া, আব্দুর রহমানের পুত্র মৌলভী মোহাম্মদ উল্লাহ, হোসাইন আলীর পুত্র আব্দুল করিম, ইউনুস আলীর পুত্র নুরুল ইসলাম, পশ্চিম গোয়ালিয়াপালংয়ের সরোয়ারের পুত্র রায়হান উদ্দীন ছুট্রু, ধোঁয়াপালংয়ের আব্দুস সালামের পুত্র হামিদুল হক ওরফে কালাবু। ফতেখারকূল ইউনিয়নের মন্ডলপাড়ার জাহেদ হোছন ওরফে বামার্ইয়া হোছনের পুত্র ইউনুচ রানা চৌধুরী ওরফে বামার্ইয়া ইউনুচ, হাজী জাহেদ হোসেনের পুত্র পাকি। কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের ডেপারকুলের মৃত মোঃ কালুর পুত্র মোস্তাক আহমদ, আব্দুল মোনাফের পুত্র ওয়ায়েদু। চাকমারকুল ইউনিয়নের দক্ষিন চাকমারকুলের মোঃ কালু ওরফে বাঘ কালুর পুত্র নুর মোহাম্মদ, মৃত মোঃ আলীর পুত্র আব্দুর রহিম, নয়াপাড়ার নূর আহমদ ওরফে নুরুর পুত্র শফিউল আলম (সে ৯ বছর যাবৎ মালয়েশিয়ায় রয়েছে), শফিউল আলমের স্ত্রী মঞ্জুরা বেগম, আব্দুল গফুরের পুত্র রাশেদুল ইসলাম, পূর্ব শাহমদেরপাড়ার মৃত শফিউল আলমের পুত্র ছুরত আলম। কচ্চপিয়া ইউনিয়নের দোছড়ির মৃত মালেকুজ্জামানের পুত্র আব্দুল হামিদ ওরফে জেবর মল্লুক। গর্জনিয়া ইউনিয়নের বড়বিলের কালা মিয়ার পুত্র জাফর।
চকরিয়া উপজেলা :
চকরিয়া উপজেলার জুলহাজারা ইউনিয়নের উলুবনিয়ার আবু তাহেরের স্ত্রী ফাতেমা বেগম। বদরখালী ইউনিয়নের ৩ নং ব্লকের নুর আহমদের পুত্র ফরিদুল ইসলাম প্রকাশ লম্বা ফরিদ, নুরুল আলম বাহাদুরের পুত্র কলিম উল্লাহ। পূর্ব বড়ভেওলা ইউনিয়নের কালাগাজী সিকদারপাড়ার মৃত সাব্বির আহমেদের পুত্র মেহেদী হাসান। খুটাখালী ইউনিয়নের সেগুনবাগিচার লাল মোহাম্মদের পুত্র সিরাজুল ইসলাম ওরফে হাসু। ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের তেজাপাড়ার জসিম উদ্দিনের পুত্র মোঃ রাসেল। চকরিয়া পৌর ৫ নং ওয়ার্ডের বাদশা মিয়া ওরফে বাদশার পুত্র মিজানুর রহমান। চকরিয়া সদরের মৃত মোজাহেরের পুত্র জাফর আলম ওরফে জাফর কোম্পানী।
পেকুয়া উপজেলা:
পেকুয়া উপজেলার টেটং ইউনিয়নের কাচারী পাহাড়ের নুর আলমের পুত্র মোঃ শুক্কুর। মগনামা ইউনিয়নের কোদাইল্যাদিয়ার মৃত নূর মোহাম্মদের পুত্র সরবত আলী, ছৈয়দ আলমের পুত্র ইউনুছ, ফুলতলার আব্দুল মালেকের পুত্র সাইয়েদ খান শান্ত, মরিচচাড়িয়ার মৃত সিরাজের পুত্র নাজিম উদ্দীন, নূর সুলতানের পুত্র আহমদ উল্লাহ (বর্তমানে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছে)। পেকুয়া সদর ইউনিয়নের মেহেরনামা ছড়াপাড়ার আণোয়ার হোসেনের পুত্র বেলাল, পূর্ব গোয়াখালীর মৃত জামাল উদ্দীনের পুত্র পারভেজ, আব্দুল হামিদ সিকদারপাড়ার মৃত মৌলভী নুর আহমদের পুত্র মোঃ ছালেহ ছোটন ওরফে ছালেহ জঙ্গী। পেকুয়া বারবাকিয়া ইউনিয়নের কঠিরপাড়ের মৃত ছিদ্দিক আহমদের পুত্র মোঃ জামাল হোছাইন।
মহেশখালী উপজেলা:
মহেশখালী উপজেলার কুতুবজোম ইউনিয়নের ঘটিভাঙ্গার হাজী কালা মিয়ার পুত্র জাফর আলম, হাজী মকবুল সোবহানের পুত্র আমীর হোসেন, হাজী নুর হোসেনের পুত্র আমীর হোসেন, মকসুদ মিয়ার পুত্র এবাদুল্লাহ, মৃত হযরত আলীর পুত্র এমদাদ মিয়া, নয়াপাড়ার মোঃ আমিনের পুত্র রহমত উল্লাহ, মৃত কবির আহমদের পুত্র জালাল আহমদ, মোস্তাক আহমদের পুত্র আমির হোছন, আলী মিয়ার পুত্র সিরাজ মিয়া, মৃত কেরামত আলীর পুত্র ছৈয়দ কবির, মোঃ সোলতানের পুত্র মোঃ কাশেম, মৃত কবির আহমদের পুত্র ফরিদ আহমদ ওরফে ল্যাং ফরিদ, সোনাদিয়ার মৃত আছাদ আলীর পুত্র আব্দুল গফুর নাগু, পৌরসভার বড় রাখাইনপাড়ার মৃত ইথুইং এর পুত্র লাসেন থুই, শিমং এর স্ত্রী লান্নুয়ে, ছোট মহেশখালীর মৃত হাজী শামসুল ইসলাম সিকদারের পুত্র সিরাজুল ইসলাম বাশী ও জহিরুল ইসলাম সিকদার, দুদু মিয়ার পুত্র আমানুল্লাহ।
কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়নের দক্ষিন মগডেইলের মৃত জালাল আহমদের পুত্র কফিল উদ্দীন।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like