বিনা বিচারে ১৭ বছর কারাভোগের পর জামিন পেল শিপন

গণমাধ্যমের প্রতিবেদন আমলে নিয়ে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও জেবিএম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার ওই মামলার বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করে।

শিপনকে নিয়ে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের ওই প্রতিবেদনটি আদালতের নজরে এনেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী কুমার দেবুল দে।

মঙ্গলবার শিপনের পক্ষে তিনিই শুনানি করেন; রাষ্ট্রপক্ষের ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম জহিরুল হক।

পরে কুমার দেবুল সাংবাদিকদের বলেন, “আদেশে আদালত বলেছে, ৬০ দিনের মধ্যে এ মামলার বিচার শেষ করতে হবে। সেই পর্যন্ত শিপন জামিনে থাকবেন।

“জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর শিপনের কোথাও আশ্রয় না থাকলে তার পুর্নবাসনের জন্য জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আবেদন করতে বলা হয়েছে।”

পর ৩০ অক্টোবর গণমাধ্যমের ওই প্রতিবেদন নজরে আসার পর আদালত ৮ নভেম্বর শিপনকে হাজির করতে কারা কর্তৃপক্ষকে সময় দিয়েছিল।

১৯৯৪ সালে পুরান সূত্রাপুরের দুই মহল্লার মধ্যে মারামারিতে একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় জাবেদ নামে একজন বাদী হয়ে সূত্রাপুর থানায় মামলা করেন, যাতে শিপনকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে।

মামলার এফআইআরে তার বাবার নাম অজ্ঞাত থাকলেও ১৯৯৫ সালে আদালতে দেওয়া অভিযোগপত্রে তার বাবার হিসেব ৫৯, গোয়ালঘটা লেনের রফিকের নাম দেওয়া হয়। কিন্তু এর পরে মামলার কার্যক্রম আর এগোয়নি।

পরে ২০০০ সালে গ্রেপ্তার হওয়ার পর ৭ নভেম্বর থেকে কাশিমপুর কারাগার পার্ট-২-তে ছিলেন শিপন।

-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like