হাসিনার উন্নয়ন পরিকল্পনায় সমর্থন কিমের

pm01_ed

নিউজ ডেস্ক: শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনায় পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছেন বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম।

মঙ্গলবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি একথা বলেন বলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইসহানুল করিম জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, “বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট বলেছেন, বাংলাদেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনা যা করছেন তার সঙ্গে তিনি সম্পূর্ণ একমত।”

জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় সহায়তার জন্য বিশ্ব ব্যাংকের পূর্ণ অঙ্গীকারের কথাও বলেছেন জিম ইয়ং কিম।

এ খাতে তহবিল সংগ্রহে বাংলাদেশকে সহায়তার কথা বলেছেন তিনি।

বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে বাংলাদেশকে দারুণ সম্ভাবনাময় দেশ হিসাবে উল্লেখ করেন বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট।

বাংলাদেশে ব্যবসার পরিবেশ সহজ হওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে  জিম ইয়ং কিম বলেছেন, বিষয়টি অন্যদের কাছে তুলে ধরবেন তিনি।

বিকালে প্রায় পৌনে এক ঘণ্টার  এই সাক্ষাৎকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকারের মূল লক্ষ্য বাংলাদেশের জনগণের মৌলিক চাহিদা পূরণ করা, বিশেষ করে খাদ্য ও বাসস্থান।

বাংলাদেশের খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতার হওয়ার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলে বিদেশি সাহায্য পাওয়া যায় না বলে নবম সংসদে তৎকালীন বিএনপি সরকারের অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের বক্তব্যও এ প্রসঙ্গে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

নারী উন্নয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “মোট জনগোষ্ঠীর অর্ধেককে বাইরে রেখে উন্নয়ন সম্ভব না।”

বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার পর্যায়ের সর্বনিম্ন স্তরে ৪৫ হাজার নারীর অংশগ্রহণের কথাও প্রধানমন্ত্রী এসময় উল্লেখ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর বাংলাদেশের উন্নয়ন স্থবির হয়ে পড়ে।

সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে আলোচনায় আওয়ামী লীগ সরকার  আমলে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের অনুমতি দেওয়ার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে এক বিএনপি নেতার মালিকানাধীন একটি মাত্র মোবাইল কোম্পানি থাকার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার ক্ষমতায় আসার পরই মোবাইল ফোনের ব্যবসা সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেন। এতে প্রতিযোগিতার সৃষ্টি হয় এবং মূল্য কমে আসায় মোবাইল ফোন সাধারণ নাগরিকদের আয়ত্ত্বে আসে।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা গওহর রিজভী,  অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, বিশ্ব ব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যানেট ডিক্সন, প্রধান অর্থনীতিবিদ পল রোমার, বিশ্ব ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক সুভাষ চন্দ্র গ্রেগ,  বিশ্ব ব্যাংকে বাংলাদেশের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞ্চা, আবাসিক প্রতিনিধি চিমিয়াও ফান উপস্থিত ছিলেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like