‘পরিকল্পিত উন্নয়ন করা হলে কক্সবাজার হবে আন্তর্জাতিক পর্যটনকেন্দ্র’

rihab-pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, ১৫ অক্টোবর: কক্সবাজারে পরিকল্পিতভাবে উন্নয়ন করা হলে এটি একটি আন্তর্জাতিক পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠবে। আর এই জন্য সরকারী ও বেসরকারীভাবে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে। এই ক্ষেত্রে রিয়েল এস্টেট এন্ড হাউজিং এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) কক্সবাজারের উন্নয়নে পাশে থাকবে। ১৪ অক্টোবর বিকালে কক্সবাজারের হোটেল দি কক্স টুডে’র সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত “কক্সবাজার পর্যটন সিটির উন্নয়ন ঃ সমস্যা ও সম্ভাবনা” শীর্ষক মতবিনিময় সভা বক্তারা এসব কথা বলেন।
রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিনের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন-স্থানীয় সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল। কক্সবাজার সোসাইটি ও ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউট কক্সবাজার কেন্দ্রের সহযোগিতায় অনুষ্ঠানে সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন- রিহ্যাবের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ভোলা-৩ আসানের এমপি নূরুন্নবী চৌধুরী (শাওন)।
রিহ্যাব আয়োজিত এই মতবিনিময় সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন- রিহ্যাবের ভাইস-প্রেসিডেন্ট (এডমিন) প্রকৌশলী সরদার মো. আমিন।
বক্তব্য রাখেন- কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লেঃ কর্ণেল (অবঃ) ফোরকান আহমদ, নাটোর-২ আসনের সাংসদ শফিকুল ইসলাম শিমুল, ভোলা-২ আসনের সাংসদ আলী আজম, টাঙ্গাইল-৫ আসনের সাংসদ মোঃ ছানোয়ারা হোসেন, রাজশাহী-৩ আসনের সাংসদ মোঃ আয়েন উদ্দিন, চট্টগ্রাম-৩ আসনের সাংসদ মাহফুজুর রহমান, ময়মংনসিংহ-১০ আসনের সাংসদ ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল, ময়মনসিংহ-৯ আসনের সাংসদ আনোয়ারুল আবেদীন খান প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, রাজধানী ঢাকাসহ বিভাগীয়, জেলা ও পর্যটন এরিয়া গুলোকে পরিকল্পিত নগরায়নে রূপান্তরের পাশাপাশি আবাসন সমস্যা সমাধানে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে রিহ্যাব। রিহ্যাব এর প্রধান উদ্দেশ্যই হলো বাংলাদেশে পরিকল্পিত নগর গড়ে তোলা। তাই কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প বিকাশে রিহ্যাব ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। তার আলোকে রিহ্যাবের ২৫ তম জন্ম দিনে ‘কক্সবাজার পর্যটন সিটির উন্নয়ন ঃ সমস্যা ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভা আয়োজন করা হয়েছে। সভাটি কক্সবাজারের উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে বলে বক্তারা মনে করেন।
মতবিনিময় সভায় বক্তারা কক্সবাজার পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রসারণ, বিমান বন্দর আধুনিকায়ন, সাগর জেটি নির্মাণ, এমিউজমেন্ট পার্ক গড়ে তোলা, রাস্তাঘাট ও পরিবেশের উন্নয়ন, নিরাপত্তা জোরদারের উপর গুরুত্বারোপ করেন।
এছাড়া শুধু শহর কেন্দ্রীক উন্নয়ন সীমাবদ্ধ না রেখে জেলার সেন্টমার্টিন, টেকনাফ, মহেশখালী ও রামুসহ আকর্ষণীয় পর্যটন স্পটগুলোর উন্নয়ন ঘটাতে হবে বলেও মত দেন।
সভাপতির স্বাগত বক্তব্যে আলমগীর শামসুল আলামিন বলেন, রাজনৈতিক পরিস্থিতিসহ নানা কারণে সারাদেশের অধিকাংশ ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম অনেকটা বন্ধ ছিল। আমরা আবার ঘুরে দাঁড়াতে চাই। বিশ্ব দরবারে কক্সবাজারকে তুলে ধরতে নতুন পরিকল্পনা নিয়ে এগুতে চাই। এ সময় তিনি উন্নয়নের জন্য ‘কমিটমেন্ট’ নিয়ে কাজ করতে হবে বলে মন্তব্য করেন।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like