সংবাদ সম্মেলনে গণশিক্ষামন্ত্রীর তালগোল

fileবিডিনিউজ : আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উদযাপনের কর্মসূচি জানাতে সংবাদ সম্মেলনে এসে ৮ সেপ্টেম্বরকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বলে তালগোল পাকিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার।

বুধবার নির্ধারিত সময়ের দুই ঘণ্টা পর শুরু হওয়া সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের কাছে ভুলেভরা এবং সাক্ষরতার হার নিয়ে কোনো তথ্য-উপাত্ত ছাড়াই মন্ত্রীর লিখিত বক্তব্যের অনুলিপি দেওয়া হয়।

সব গণমাধ্যমকর্মীর হাতে বক্তব্যের অনুলিপি পৌঁছার আগেই সাংবাদিকদের সম্বোধন করে ফিজার বলেন, “আসসালামুআলাইকুম, ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস…”

এ সময় একসঙ্গে কয়েকজন সাংবাদিক বলেন, ভুল হচ্ছে।

সঙ্গে সঙ্গে থেমে যান মন্ত্রী। কাগজে ফের চোখ বুলিয়ে মাথাটা খানিকটা নিচু করে বলেন, “কে লিখেছে এটা! ছি ছি ছি!”

“কাট-পেস্ট করেছে মনে হয়,” সাংবাদিকের মধ‌্য থেকে একজন বলে ওঠেন।

প্রাক-প্রাথমিক থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার ভার যার হাতে, সেই মন্ত্রীর মুখ থেকে এই ভুল তথ‌্য আসায় সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত সাংবাদিকরা বিভিন্ন মন্তব্য করতে থাকেন।

মিনিট দুয়েক চুপচাপ বসে থাকেন মন্ত্রী। মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব নজরুল ইসলাম চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে থাকেন বেশ কিছুক্ষণ। মন্ত্রীর একান্ত সচিব শেখ আতাহার হোসেনকে দেখা যায় একটি ফাইল হাতে নিয়ে মন্ত্রীর ঘাড়ের ডানপাশে দাঁড়িয়ে থাকতে।

“প্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ, স‌্যরি,” নতুন করে শুরু করেন ফিজার।

প্রথমে মন্ত্রীর এই বক্তব্যের অনুলিপি দেওয়া হয়েছিল সাংবাদিকদের

প্রথমে মন্ত্রীর এই বক্তব্যের অনুলিপি দেওয়া হয়েছিল সাংবাদিকদের

সাংবাদিকদের দেওয়া লিখিত বক্তব্যের প্রথম লাইনেই ছিল, “৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এ বছর ২০১৬ বিশ্বব্যাপী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করা হচ্ছে।”

একজন সাংবাদিক বলেন, কর্মকর্তারা ভুল করলেও তা দেখার সঙ্গে সঙ্গে মন্ত্রীর বোঝা উচিৎ ছিল, ভুলটি তার নিজের কাছেই ধরা পড়লে ভাল হত।

সংবাদ সম্মেলন শেষে মন্ত্রী-সচিবের সামনেই মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. নজরুল ইসলাম খান কয়েক কর্মকর্তাকে শাসিয়ে বলেন, “কেন এই বক্তব্যের কপি আগে মন্ত্রীকে দেখাননি?”

সংবাদ সম্মেলনের মাঝপথেই মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা শুরুতে সরবরাহ করা অনুলিপি ফেরত নিয়ে নেন।

গত ২৭ অগাস্ট সরকার উপানুষ্ঠানিক বোর্ড গঠন করলেও লিখিত বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা আইনের আওতায় উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা বোর্ড স্থাপন করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে ফিজার বলেন, “যাই হোক।”

দেশে সাক্ষরতার হার কত সে বিষয়ে লিখিত বক্তব্যে কোনো পরিসংখ্যান না দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে ফিজার বলেন, একেক পরিসংখ্যানে একেক রকম সাক্ষরতার হারের উল্লেখ রয়েছে। সাক্ষরতা নিয়ে ২০১১ সালে সবশেষ জরিপ হয়েছে, তাই সাক্ষরতার হারের কথা বলিনি।

মন্ত্রীর বক্তব্যে বলা হয়- উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা বোর্ড স্থাপন করা হচ্ছে, যা ইতোমধ‌্যে গঠিত হয়েছে

মন্ত্রীর বক্তব্যে বলা হয়- উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা বোর্ড স্থাপন করা হচ্ছে, যা ইতোমধ‌্যে গঠিত হয়েছে

২০১৬ সালে এসে অনেক এলাকাই শতভাগ সাক্ষরতার আওতায় এসেছে দাবি করে মন্ত্রী বলেন, “সেই হিসাবটা কিন্তু তেমনভাবে আসছে না। এখন যারা জন্ম নিচ্ছে তারা তো নিরক্ষর থাকছে না, লেটেস্ট কোনো সার্ভে নেই। আমরা এখন সাক্ষরতার হার ৭১ শতাংশই বলছি।”

ঝরে পড়ার হার কাগজে-কলমে ২০ শতাংশ থাকলেও তা আরও কম হবে বলেও দাবি করে গণশিক্ষামন্ত্রী।

বুধবার বেলা ১২টায় এই সংবাদ সম্মেলনের আমন্ত্রণ জানিয়ে গত মঙ্গলবার গণমাধ্যমকর্মীর আমন্ত্রণপত্র পাঠায় গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বেলা ১২টার আগ থেকেই সাংবাদিকরা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত হতে শুরু করলেও সচিবালয়ে একই সময়ে আইনমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন থাকায় দুপুর ১টা ৪৭ মিনিটে সংবাদ সম্মেলনে আসেন ফিজার।

এক ঘণ্টা ৪৭ মিনিট পর সংবাদ সম্মেলন শুরু হলেও মন্ত্রীর বক্তব্য শুরুর আট মিনিট পর এতে যোগ দেন এক সপ্তাহ আগে এই মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসেবে যোগ দেওয়া মোহাম্মদ আসিফ-উজ-জামান।

সচিবের দেরির কারণ ব্যাখ্যায় নিজ থেকেই মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, “ডিলে হতে হতে সচিব মনে করেছিলেন লাঞ্চের পরে হবে।”

কর্মসূচি

‘আতীতকে জানব, আগামীকে গড়ব’ প্রতিপাদ্য নিয়ে এবার বিশ্বে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উদযাপন হবে।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তন পর্যন্ত শোভাযাত্রা করবে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এছাড়া সাক্ষরতা দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকতে সম্মতি জানিয়েছেন বলেও জানান মন্ত্রী ফিজার।

ইউনেস্কো ৮ সেপ্টেম্বরকে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস ঘোষণা করে। এরপর থেকে প্রতি বছর বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এই দিবস পালন করে আসছে।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like