মাটি খুঁড়ে অস্ত্র উদ্ধার, গ্রেফতার ৭ ডাকাত

ctg_dakat_coxsbazartimes

চট্টগ্রাম ডেস্ক  : ডাকাতির প্রস্তুতিকালে সাতকানিয়া উপজেলার দক্ষিণ ঢেমশা ও আমিলাইষ ইউনিয়ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্রসহ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার দিনগত রাত সাড়ে ১২টা থেকে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত এ অভিযান চালানো হয়।

উদ্ধার করা অস্ত্রের মধ্যে আছে চারটি একনলা বন্দুক, একটি এলজি, ২৪টি কার্তুজসহ কিরিচ, চাকু ও ছোরা।

গ্রেফতার সাত ডাকাত হলেন, দক্ষিণ ঢেমশার মৃত বজলুর রহমানের ছেলে মহসিন কায়সার (৪৮), আমিলাইষ এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে আবুল কাশেম (৪০), বোয়ালখালী উপজেলার সাধন চৌধুরীর ছেলে শংকর চৌধুরী (৫২), ভোলার লালমোহন উপজেলার রশিদ আহমদের ছেলে মো. জাহাঙ্গীর আলম (৩২), মির্জা আলীর ছেলে মো. সামশুল আলম (৪৮), আবু তাহেরের ছেলে জাকির হোসেন (৩৫) ও ইয়াছিনের ছেলে মো. মনির (২৫)।

পুলিশ জানায়, এদের মধ্যে প্রথম চারজনকে দক্ষিণ ঢেমশা ইউনিয়নের নাপিতের চর গ্রামের কালামের দোকান থেকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় ৭ থেকে ৮ জন ডাকাত সদস্য পালিয়ে যায়। পরে অভিযান চালিয়ে আমিলাইষ ইউনিয়নের পশ্চিম ডলু দেওয়ান এলাকায় অভিযান চালিয়ে বাকি তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়।

সোমবার বিকেল তিনটায় ডাকাত গ্রেফতার ও অস্ত্র উদ্ধার বিষয়ে পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) হাবিবুর রহমান বলেন, ডাকাতরা ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে এ অভিযান চালানো হয়। প্রথমে দক্ষিণ ঢেমশা এলাকার একটি চায়ের দোকান থেকে চারজনকে একটি একনলা বন্দুক, একটি এলজি ও ১৮টি কার্তুজসহ কিরিচ, চাকু ও ছোরাসহ গ্রেফতার করা হয়। এসময় বেশ কয়েকজন ডাকাত পালিয়ে যায়। পরে গ্রেফতার হওয়াদের তথ্যের ভিত্তিতে আমিলাইষ এলাকায় অভিযান চালিয়ে পশ্চিম ডলু দেওয়ান পুকুরের দক্ষিণ পূর্ব পাড়ের মাটি খুঁড়ে তিনটি একনলা বন্দুক ও ছয়টি কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনের সময় গ্রেফতার হওয়া ডাকাত সদস্যদের ও উদ্ধার করা অস্ত্রশস্ত্র সাংবাদিকের সামনে আনা হয়।

অস্ত্রগুলো মাটির নিচে থাকায় দেখতে পরিত্যক্ত মনে হলেও এগুলো সচল রয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) হাবিবুর রহমান বলেন গ্রেফতার ডাকতদের মধ্যে আগে থেকেই মহসিন কায়সারের বিরুদ্ধে তিনটি, আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে দুইটি ও শংকরের বিরুদ্ধে একটি ডাকাতির মামলা রয়েছে।

গ্রেফতার ডাকাত সদস্যদের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা হবে জানিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) হাবিবুর রহমান বলেন, তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে দুটি ও ডাকাতি প্রস্তুতির বিষয়ে আরও একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে। পরিপূর্ণ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকাতদের সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হবে আদালতে।

-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like