দখলমুক্ত জালিয়ার দ্বীপে হচ্ছে নাফ ট্যুরিজম পার্ক

jaliar dip pic

পর্যটন ডেস্ক: সীমান্ত এলাকা টেকনাফের নাফ নদীর বুকে জেগে ওঠা জালিয়ার দ্বীপে গড়ে তোলা হচ্ছে বিশ্বমানের পর্যটনকেন্দ্র নাফ ট্যুরিজম পার্ক। পর্যটকদের আকর্ষণ করতে সেখানে গড়ে তোলা হবে আন্তর্জাতিক মানের ক্যাবলকার, হোটেল, মোটেল, কটেজ, বিচ ভিলা, ওয়াটার ভিলা, সুইমিংপুল, কনভেনশন হল, বার, অডিটোরিয়াম, অ্যামিউজমেন্ট পার্ক, ক্রাফট মার্কেটসহ চিত্ত বিনোদনের সব উপকরণ। চলতি বছরই এ পার্কের কাজ শুরু করতে যাচ্ছে সরকার। জালিয়ার চরের এই ২৭১ একর জায়গা জুড়ে পর্যটক আকর্ষণের সব ব্যবস্থাই করবে সরকার। দীর্ঘদিন পর অবৈধ দখলদারের হাত থেকে এই জালিয়ার চর মুক্ত করেছে সরকার। এখন সে এলাকাকে ঘিরে আধুনিক ট্যুরিজম পার্ক গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার।

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) মনে করে এর মাধ্যমে প্রতি বছর বিপুল পরিমাণ অর্থ আয় করা সম্ভব। নাফ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ার মাধ্যমে জালিয়ার চরকে অর্থনীতির মূল স্রোতের সঙ্গে যুক্ত করতে চায় সরকার। এর ফলে ওই সীমান্ত অঞ্চলে একদিকে যেমন অপরাধ কর্মকাণ্ড কমে আসবে তেমন সীমান্তবর্তী অঞ্চলের পিছিয়ে পড়া মানুষ যুক্ত হবে অর্থনীতির মূল স্রোতের সঙ্গে।

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবনী চৌধুরী বলেন, সরকার দেশের বিনিয়োগ ও অর্থনীতির উন্নয়নে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছে। এর অংশ হিসেবে টেকনাফের নাফ নদীতে জেগে ওঠা জালিয়ার চরে গড়ে তোলা হবে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল। আর এর মধ্যে থাকবে পর্যটক আকর্ষণের সব ধরনের চিত্ত বিনোদন। গড়ে তোলা হবে একটি আধুনিক ট্যুরিজম পার্ক। এর মাধ্যমে সেখানে সৃষ্টি হবে নতুন নতুন কর্মসংস্থান। বাড়বে ব্যবসা-বিনিয়োগ। বৃদ্ধি পাবে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড। সেখানে হবে আকর্ষণীয় ঝুলন্ত ব্রিজ। বেজার একটি সূত্র জানায়, সেখানে কমপক্ষে এক লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে। বিনিয়োগ হবে কয়েক হাজার কোটি টাকার।

-বাংলাদেশ প্রতিদিন

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like