হাসনাত-তাহমিদ জিজ্ঞাসাবাদের পর্যায়ে: ডিএমপি কমিশনার

জাতীয় ডেস্ক : গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি থেকে উদ্ধারের পর ‘নিখোঁজ’ আবুল হাসনাত রেজাউল করিম ও তাহমিদ হাসিব খান ‘জিজ্ঞাসাবাদের পর্যায়ে’ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন ঢাকার পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাত এবং প্রবাসী যুবক তাহমিদকে উদ্ধারের পর পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দিয়েছে দাবি করলেও কাউকে পায়নি বলে তাদের পরিবার ইতোমধ্যে জানিয়েছে।

শনিবার নিজের দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান বলেন, “তারা এখনও জিজ্ঞসাবাদের পর্যায়ে রয়েছেন।”

ওই দুজন কোথায় আছে- প্রশ্ন করা হলে তা এড়িয়ে গিয়ে তিনি বলেন, “সেটা তদন্তকারী দল বলতে পারবে। তাদের জিজ্ঞাসা করেন।”

হাসনাত ও তাহমিদ কোথায় জানতে চাইলে এক সপ্তাহ আগে ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছিলেন, “যাদের উদ্ধার করা হয়েছিল তাদের প্রত্যেককে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। কেউ এখন পুলিশের কাছে নেই।”

তারপর হাসনাতের বাবা এম আর করিম এবং  তাহমিদের বাবা শাহরিয়ার খান উভয়েই বলেন, তাদের সন্তানরা বাড়িতে ফেরেনি। তারা পুলিশের কাছেই রয়েছে বলে তাদের ধারণা।

গুলশানের ওই ক্যাফেতে ১ জুলাইয়ের জিম্মি দশার একটি ভিডিওচিত্র প্রকাশের পর নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাতের বিরুদ্ধে হামলায় সম্পৃক্ততার সন্দেহের কথা উঠে আসে ফেইসবুকে।

হাসনাত নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। ক্যাফেতে নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে যে পাঁচ হামলাকারী নিহত হন, তাদের মধ্যে নিবরাজ ইসলামও ঢাকার এই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন।

অন্যদিকে ব্যবসায়ী শাহরিয়ার খানের ছেলে তাহমিদ কানাডার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন। গুলশানের ঘটনার একদিন আগে দেশে ফিরে ইফতারের পর বন্ধুদের সঙ্গে তিনি ওই ক্যাফেতে গিয়েছিলেন বলে পরিবারের ভাষ্য।

আবুল হাসনাত রেজাউল করিম ও তাহমিদ হাসিব খান

ঘটনার কয়েকদিন পর ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া এই দুজনেরও হামলায় সম্পৃক্ততার সন্দেহের কথা জানিয়েছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে আসাদুজ্জামান মিয়া গুলশানে জঙ্গি হামলার তদন্তে ‘যথেষ্ট অগ্রগতি’ হয়েছে বলে দাবি করেন।

“সন্ত্রাসীরা সবাই দেশি। দেশেই তারা প্রশিক্ষণ নিয়েছে। তবে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্র জড়িত থাকতে পারে- এটা উড়িয়ে দেই না। আমরা সেটা তদন্ত করে দেখছি।”

গুলশানে হামলাকারীদের মোকাবেলা করতে গিয়ে নিহত বনানী থানার ওসি মো. সালাউদ্দিনকে নিয়ে বিএনপি-ঘনিষ্ঠ পেশাজীবী নেতা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বক্তব্যের নিন্দাও জানান ডিএমপি কমিশনার।

তিনি বলেন, “গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. জাফরুল্লাহ অত্যন্ত কুরুচিপূর্ণ ও আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। তার এই উদ্দেশ্য প্রণোদিত বক্তব্যে আমরা মর্মাহত হয়েছি। এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছি।”

ওসি সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে গুম-খুনের অভিযোগ তুলে তার মরণোত্তর বিচার দাবি করেছিলেন জাফরুল্লাহ।

আছাদুজ্জামান বলেন, “তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন তা আপত্তিকর। সন্ত্রাসী-জঙ্গিদের মদদ দেওয়ার অপচেষ্টা করেছেন। এ ধরনের উস্কানিকর বক্তব্য দেওয়া থেকে সবাইকে আহ্বান জানাব। এর বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

গুলশান হামলার মতো ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে রাজধানীজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

“ভবিষ্যতে যাতে এধরনের ঘটনা না ঘটে তার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। যথেষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।”

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like