মিতু হত্যা : শাহজাহান ব্যাকআপ টিমের সদস্য ছিলেন

sap1চট্টগ্রাম ডেস্ক : পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সর্বশেষ শুক্রবার যে দুজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে তার মধ্যে একজন শাহজাহান মিয়া(২৮)ও অপরজন মো. সাইদুল আলম সিকদার প্রকাশ সাকু মাইজ্যা (৪৫)।

মিতু হত্যার মূল হত্যাকারীদের নিরাপত্তা দিতে ব্যাকআপ টিমের সদস্য হিসেবে ঘটনাস্থলে শাহজাহান দায়িত্ব পালন করেছে বলে পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।

অন্যদিকে সাকু মিতু হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ভুয়া রেজিস্ট্রেশন নম্বরের মোটরসাইকেলটি তার ভাই মো. কামরুল ইসলাম সিকদার প্রকাশ মুছাকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহারের জন্য সরবরাহ করে।

মিতু হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. কামরুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল রাঙ্গুনিয়া থানাধীন ইসলামপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে শাহজাহানকে গ্রেপ্তার করে। সে রাঙ্গুনিয়ার কুলরানীর হাট খাগড়ার মৃত কবির আহম্মদের ছেলে। আর সাকু রানীর হাট মধ্যম খাগড়ার মৃত. শাহ আলম সিকদারের ছেলে।

পুলিশ জানায়, সাকু মিতু হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ভুয়া রেজিস্ট্রেশন নম্বরের মোটরসাইকেলটি সরবরাহ করে। আর শাহজাহান মিতুকে হত্যার সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আগমন কিংবা হত্যার পরবর্তীতে কোনো আক্রমণ আসলে হত্যায় নিয়োজিত অন্যদের রক্ষা করার জন্য ব্যাকআপ টিমের সদস্য হিসেবে কাজ করে। সাকু ব্যবসা করে এবং শাহজাহান একজন ভবঘুরে বলে পুলিশ নিশ্চিত করেছে। তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

-রাইজিংবিডি

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like