ফাহিমের কম্পিউটারে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, সতর্ক থাকার পরামর্শ

160618155728_faizullah_fahim_crossfire_death_640x360_focusbangla

জাতীয় ডেস্ক :  মাদারীপুরে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত গোলাম ফাইজুল্লাহ ফাহিমের বাসা থেকে জব্দ কম্পিউটার থেকে হামলার ছকসহ জঙ্গি তৎপরতা নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়ার দাবি পুলিশের। 

একই সঙ্গে পুলিশ বলছে, আটক অবস্থায় সে (ফাহিম) যেসব তথ্য দিয়েছে সেগুলোও গুরুত্বের দাবি রাখে। কম্পিউটার এবং ফাহিমের দেয়া সব তথ্য বিশ্লেষণ করে সমন্বিত পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে পুলিশ।

গত বুধবার (১৫ জুন) ফরিদপুর সরকারি নাজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষক রিপন চক্রবর্তীর ভাড়া বাসায় তার উপর চাপাতি, ছুরি নিয়ে হামলা করে ফাহিমসহ ৬ দুর্বৃত্ত।

এ সময় ওই শিক্ষকের বাঁচাও বাঁচাও চিৎকারে প্রতিবেশিরা ছুটে এলে হামলাকারিরা পালিয়ে যাওয়ার সময় জনতার হাতে ধরা পড়ে গোলাম ফাইজুল্লাহ ফাহিম। পরে জনতা তাকে পুলিশে সোপর্দ করে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) পুলিশ বাদি হয়ে ফাহিমসহ হামলায় অংশ নেয়া ৬ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করে। শুক্রবার (১৭ জুন) ফাহিমকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। আদালত ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

রিমান্ডে নেয়ার পর কয়েক ঘণ্টা পর শনিবার (১৮ জুন) ভোরে জেলা সদরের বাহাদুরপুর ইউনিয়নের মিয়ারচরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ফাহিম নিহত হয় বলে জানায় পুলিশ।

রিমান্ডে নেয়ার পর ফাহিমের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাকে সঙ্গে নিয়ে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় মাদারিপুর পুলিশ। অভিযানে ফাহিমের বাসা থেকে তার ব্যবহৃত একটি কম্পিউটার জব্দ করার কথা জানায় তারা।

ওই কম্পিউটারে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউল মোর্শেদ। কম্পিউটারে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে পুলিশ পরবর্তী ধাপে কাজ শুরু করেছে।

পুলিশি তৎপরতার মধ্যেও জঙ্গি হামলা হতে পারে জানিয়ে সদর থানার ওসি বলেন, সবাইকে সতর্কতা অবলম্বন করে চলতে হবে। অপরিচিত লোকজনের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে পুলিশকে তাৎক্ষণিকভাবে অবহিত করারও পরামর্শ দেন ওসি জিয়াউল মোর্শেদ।

মাদারীপুর সদর থানা ও গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, ফাহিমের কাছ থেকে পাওয়া গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য নিয়ে কাজ করছে পুলিশ। তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। ফাহিমের দেয়া তথ্যমতে সে নিষিদ্ধ সংগঠন হিযবুত তাহরির সক্রিয় সদস্য ছিল বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। মাদারীপুরসহ আশপাশের জেলায় হামলার পরিকল্পনাও ছিল এদের। তাই পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক টিম মাঠে কাজ করে যাচ্ছে হামলায় অংশ নেয়া বাকিদের ধরতে।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সরোয়ার হোসেন জানান, দেশে একটি অরাজকতা সৃষ্টি করার লক্ষ্যে জঙ্গিরা তৎপর রয়েছে। মাদারীপুরে জঙ্গি হামলায় অংশ নেয়া বাকিদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে এবং পুরো জেলায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

-বাংলামেইল২৪ডটকম

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like