মাহির মামলায় শাওনের জামিন

Shaon-mahi-coxsbazartimes.com-

বিনোদন ডেস্ক: চিত্রনায়িকা শারমিন আক্তার নীপা ওরফে মাহিয়া মাহির দায়ের করা মামলায় গ্রেফতারকৃত তার কথিত স্বামী শাহরিয়ার ইসলাম শাওনের জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত।  

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) শুনানি শেষে এ জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকার সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম শামসুল আলম।

আদালতে জামিনের আবেদন জানিয়ে শুনানি করেন শাওনের আইনজীবী বেলাল হোসেন।

সংশ্লিষ্ট আদালতের স্পেশাল পিপি শামিম বাংলানিউজকে জানান, জামিনের আবেদনের শুনানিতে মাহির বাবা-মা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। শাওনের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আপোস হয়েছে এবং শাওনের জামিনে তাদের আপত্তি নাই বলে আদালতকে জানালে বিচারক তার জামিন মঞ্জুর করেন।

গত ২৭ মে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে শারমিন আক্তার নীপা ওরফে মাহিয়া মাহি মামলাটি করেন। এরপর শাওনকে গ্রেফতার করা হয়।

মাহি মামলায় উল্লেখ করেন, গত ২৫ মে অন্যত্র তার (মাহিয়া মাহি) বিয়ে হয়। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ না হতেই ২৭ মে তার বন্ধু আসামি শাহরিয়ার ইসলাম তার সঙ্গে কিছু অন্তরঙ্গ ছবি কয়েকটি অনলাইন নিউজপোর্টাল এবং ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।

দাম্পত্য সম্পর্ক নষ্ট ও তাকে সামাজিকভাবে হেয় করতে শাওন এসব করেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।

৩০ ও ৩১ মে আদালতের নির্দেশে শাওনকে দু’দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাইবার সিকিউরিটি এন্ড ক্রাইম বিভাগের এসআই সোহরাব মিয়া।

৩১ মে দুই দিনের রিমান্ড শেষে শাওনকে হাজির করে ফের সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হলেও আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেন ঢাকার সিএমএম আদালত।

ওইদিন শাওনের জামিনের আবেদন জানিয়ে তার আইনজীবী বেলাল হোসেন শাওনে-মাহির বিয়ের কাবিননামা দাখিল করেছিলেন।

শুনানিতে এই আইনজীবী বলেন, ২০১৫ সালের ১৫ মে পারিবারিকভাবে ৪ লাখ টাকা কাবিনে মাহি ও শাওনের বিয়ে হয়। বাড্ডার একটি কাজি অফিসে তাদের বিয়ের রেজিস্ট্রিও হয়। সুতরাং, শাওন মাহিকে মিথ্যাভাবে স্ত্রী দাবি করেননি।

মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলামের আদালত এ জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে শাওনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এরপর মামলাটি ঢাকার সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে হস্তান্তরিত হলেও বাদী-বিবাদীপক্ষ এর মধ্যেই আপোস করে ফেলেছেন।

-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like