‘ছোলা-চিনি কম খান, সিন্ডিকেট সাইজ হয়ে যাবে’

CTG-DC-coxsbazartimes

বুধবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে এক মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন, বাজার স্থিতিশীল থাকলেও দুয়েকজন ব্যবসায়ী সরকারকে বিব্রত করতে পণ্যের দাম বাড়াচ্ছে।

“কিছু ব্যবসায়ী খাদ্যে ভেজালও দিচ্ছে। রোজার মাসের মুনাফা দিয়ে সারা বছর তারা চলবে, এই মানসিকতা।”

‘রোজায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের অবাধ সরবরাহ নিশ্চিতকরণ এবং মূল্য স্থিতিশীল রাখার লক্ষে’ আয়োজিত সভায় নগরীর বিভিন্ন বাজারের প্রতিনিধি, ক্যাব, চট্টগ্রাম চেম্বার অফ কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, চাক্তাই-খাতুনগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন বলেন, এ বছর দেশে অস্থির পরিস্থিতি নেই। উৎপাদনও কম না। তবে চিনির বাজার একটু অস্থির।

“চিনি কম খাওয়া ভালো। ছোলাও একটু কম খান। কম খেলে, যারা সিন্ডিকেট করে তারা সাইজ হয়ে যাবে।”

তিনি বলেন, ৭৫-৭৬ টাকার ছোলা এখনও ৮৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এসব ব্যবসায়ীদের কারসাজি, হয়রানি-প্রতারণা ছাড়া কিছুই নয়। ছোলা ৭৫ টাকার ওপর বিক্রি করার কোনো কারণ নেই।

“অহেতুক চিনির দাম বাড়ানো হয়েছে। মসুর ডাল, ছোলা, মটর, সয়াবিন তেল বেশি দামে বিক্রির প্রমাণ পেলে জেল-জরিমানা করা হবে।”

২৬ মে ৫১ জন আমদানিকারকের সঙ্গে এক সভায় কিছু পণ্যের বিক্রয়মূল্য নির্ধারণ করা হয়। ওই সভায় অস্ট্রেলিয়া থেকে আমদানি করা ছোলা ৭৫ টাকা, বার্মার ছোলা ৮৫ টাকা, সাদা মটর ৪০ টাকা, মসুরের ডাল ৮০ থেকে ৮৫ টাকা কেজিদরে বিক্রির সিদ্ধান্ত হয়।

অন্যদিকে টিসিবি ট্রাকে প্রতিকেজি ছোলা বিক্রি করছে ৭০ টাকায়।

বাজার তদারকিতে নগরীতে অঞ্চলভেদে ৮-১০টি মনিটরিং কমিটি হবে জানিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, এতে ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরাও থাকবে।

বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজন মতো প্রশাসন কঠোর হবে বলে জানান তিনি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like