লিচুর উপকারী গুণ

liche-1

স্বাস্থ্য ডেস্ক: চলছে লিচুর ভর মৌসুম। বাহারি রঙ আর মনকাড়া স্বাদের রসে ভরা লিচুর ভক্ত ছোট বড় সবাই। বাজারে লিচুর প্রাপ্তিও রয়েছে উল্লেখ করার মতো। এই ফলে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ‘সি’। প্রতি ১০০ গ্রাম লিচুতে পাবেন শর্করা ১৩.৬ গ্রাম, ক্যালরি ৬৬ কিলোগ্রাম, কার্বোহাইড্রেট ১৬.৫৩ গ্রাম, খাদ্য আঁশ ১.৩ গ্রাম, ফোলেট ১৪ মাইক্রোগ্রাম, সোডিয়াম ১ গ্রাম, পটাসিয়াম ১৭১ মিলি গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৫ মিলিগ্রাম, লৌহ ০.৩১ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ৩১ মিলিগ্রাম ও ভিটামিন ‘সি’ ৩১ মিলিগ্রাম। শুধু স্বাদের যোগানদাতা নয়, নানা রোগ থেকে আমাদের রক্ষা করতে লিচু অতুলনীয়। আসুন জেনে নেয়া যাক লিচুর উপকারী গুণ সম্পর্কে।

– লিচুতে থাকা প্রচুর পরিমান ক্যালরি আমাদের শক্তি যোগাতে সহায়তা করে।

– লিচুতে থাকা কার্বোহাইড্রেট ও ফাইবার হজমে দারুণভাবে সহায়তা করে।

– মেনোপোজ পরবর্তী নারীদের শরীরে প্রয়োজনীয় ক্যালসিয়াম সরবারহে লিচু খুবই উপকারী।

– লিচুর আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড শরীরে বিটা ক্যারোটিনসহ প্রয়োজনীয় ভিটামিন শোষণে সহায়তা করে।

– লিচু সূর্যের ক্ষতিকর আলট্র্রাভায়োলেট রশ্মি থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

– লিচুতে থাকা নিয়াসিন ও রিবোফ্লাভিন নামক ভিটামিন ‘বি’ কমপ্লেক্স শরীরের জ্বালাপোড়া, দুর্বলতা দূর করে।

– লিচুতে থাকা ভিটামিন সি জ্বরঠোসা, জিহ্বার ঘা, জিহ্বার চামড়া ছিলে যাওয়া রোগ প্রতিরোধ করে।

– কচি লিচু শিশুদের বসন্ত রোগের ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

– কাশি, পেটব্যথা, টিউমার দমনে লিচু কার্যকর।

– লিচুতে থাকা ক্যালসিয়াম আমাদের দেহের হাড়, দাঁত, চুল, ত্বক, নখ ভালো রাখতে সহায়তা করে।

– পোকামাকড়ে কামড়ালে লিচুর পাতার রস ব্যবহারে ভালো হয়।

সতর্কতা: লিচু যথেষ্ট গরম ফল। এটি বেশি খেলে পেট গরম হয়ে ডায়রিয়া হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই পরিমিত পরিমাণ খাওয়া উচিৎ। এছাড়াও বেশি মিষ্টি লিচু অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের পরিহার করা উচিৎ।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like