আজীবন ছাত্র ইউনিয়ন কর্মী মনে করি নিজেকে ॥ মনির মোবারক

1471846_781294515231050_1706832669_nছোটকাল থেকে মানুষ ও দেশের জন্য কিছু করার তাগিদ ছিলো। স্কুল পর্যায় শেষ করার পর এক বন্ধুর হাত ধরে নীলপতাকা তলে সমবেত হওয়া। সেই থেকে ছাত্র ইউনিয়নের সাথে যুক্ত হয়েছি। লড়াই করেছি, প্রতিবাদ করেছি অন্যায়ের বিরুদ্ধে, ছাত্র অধিকার আদায়ে রাজপথে সব সময় থাকার চেষ্টা করেছি। ছাত্র ইউনিয়নে আসাটাকে বলা যায় আমার দ্বিতীয় জন্ম। পোষ্টার সাঁটানো, মাইকে বক্তৃতা দেওয়া, মানুষকে দাওয়াপত্র পৌঁছানো, মানুষের সাথে পরিচিত হওয়া সব সব কিছু শিখার সৌভাগ্য হয়েছে আমার এই সংগঠন থেকে। শহর কমিটির সদস্য থেকে শুরু করে জাতীয় পরিষদ সদস্য সর্বশেষ সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করার সৌভাগ্য হয়েছে।
আজ থেকে প্রায় দেড় বছর আগে অনুষ্ঠিত জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সম্মেলনে বক্তৃতাকালীন বলেছিলাম,- আমি স্বপ্ন দেখি প্রতিটি স্কুল, প্রতিটি কলেজ, প্রতিটি থানা উপজেলায় ছাত্র ইউনিয়নের নীল পতাকা উড়বে। যে দিন এই স্বপ্ন পূরণ হবে সেই দিন আমি নিজেকে সবচেয়ে খুশী, সবচেয়ে সুখী মনে করবো। ওই সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির চেয়ারম্যান থেকে সাংগঠনিকভাবে আমি বিদায় নিলেও নিজেকে আজীবন ছাত্র ইউনিয়ন কর্মী মনে করি।
প্রয়াত ছাত্র ইউনিয়ন নেতা শিল্পী সঞ্জীব চৌধুরীর একটি গান দিয়ে বলতে চাই “আমি স্বপ্নের কথা বলতে চাই, আমি অন্তরের কথা বলতে চাই, আমি ঘুরিয়া ঘুরিয়া, সন্ধানও করিয়া স্বপ্নেরও পাখি ধরতে চাই’’। এই অস্থির সময়ে ছাত্র ইউনিয়নের প্রতিটি কর্মীর বুকে স্বপ্ন জাগে একটি শোষণহীন সমাজের। স্বপ্ন দেখে একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র নির্মাণের।
আজ ছাত্র ইউনিয়নের গৌরবের ৬৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হবে। কক্সবাজারেও অনেক আয়োজনের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করা হবে। এই সংগঠনের সৈনিকরা নিজের মূলবান সম্পদ জীবনকে উৎসর্গ করেছিলেন দেশ ও মানুষের কথা বলতে গিয়ে। সন্ত্রাস-সাম্প্রদায়িকতা ও সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে ছাত্র ইউনিয়ন হারিয়েছে মতিউল, মির্জা কাদের, রাজু, সঞ্জয় তলাপাত্র, সুভাষসহ অনেককে। মহান মুক্তিযুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করে ছাত্র ইউনিয়নের যোদ্ধারা। ৫২’র অগ্নিগর্ভ হতে জন্ম নেওয়া ছাত্র ইউনিয়ন একে একে ৬২ শিক্ষার আন্দোলন, ৬৯ এর গণঅভ্যূত্থান, ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধ, ৯০ এর স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, ২০১৩ তে রাজাকারের ফাঁসির দাবীতে জন্ম নেওয়া সারাদেশে উত্তাল আন্দোলনে সর্বোপরি নারী নিপীড়নের বিরুদ্ধে, ধর্ষণের বিরুদ্ধে, ব্লগার, সাংবাদিক, অধ্যাপক হত্যার প্রতিবাদে এখনো রাজপথে লড়াই সংগ্রাম করে যাচ্ছে ছাত্র ইউনিয়ন।
আজকের দিনে আমি শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি, যারা শহীদ হয়েছেন লড়াই-সংগ্রাম করতে গিয়ে, যাদের শ্রমে আর ত্যাগে আজকের এই ছাত্র ইউনিয়ন তাদের।
প্রাণ থেকে বলতে চাই, অন্তর থেকে বলতে চাই, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সকল নেতাকর্মী আবার এক কাতারে হউক সকল ভেদাভেদ ভুলে।
আজ এ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর দিনে ছাত্র ইউনিয়নের সকল স্তরের, যে যেখানে আছেন সকলকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। শিক্ষা-সংস্কৃতি রক্ষার লড়াই ও সাম্রাজ্যবাদ-সাম্প্রদায়িকতাবিরোধী সংগ্রামে ছাত্র ইউনিয়ন অতীতেও সামনের কাতারে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে ভবিষ্যতেও সেই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখবে আমার বিশ্বাস। বর্তমান ছাত্র ইউনিয়ন কক্সবাজার জেলা সংসদের সকল নেতাকর্মীকে আমার শুভেচ্ছা জানাই।
জয় হোক সমাজতন্ত্রের, নিপাত যাক সাম্প্রদায়িকতা, ধ্বংস হোক সাম্রাজ্যবাদ। ….জয়তু ছাত্র ইউনিয়ন লেখক : সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, জেলা ছাত্র ইউনিয়ন, কক্সবাজার।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like