চট্টগ্রামের হেলে পড়া ২ ভবন বিপদজনক

সংস্থাটির প্রধান নগর পরিকল্পাবিদ শাহীনুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে একটি কমিটি বৃহস্পতিবার নয়টি ভবন পরিদর্শন শেষে এ সিদ্ধান্ত দিয়েছে।

সিডিএর কমিটিটি নগরীর হালিশহরে লেগে যাওয়া দুটি ভবনের অনুমোদন ছাড়া নির্মিত অংশ ভেঙে ফেলার নির্দেশও দিয়েছে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে শাহীনুল ইসলাম বলেন, ওয়াসার বিপরীতে একটি ভবন ও জুবলি রোডের এনায়েত বাজারে তিন তলা একটি ভবনকে বিপদজনক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ভবন দুটি নিয়ে করণীয় বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, রোববার বিশেষজ্ঞদের পরিদর্শনের পর তাদের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বুধবার রাত ৮টার ঠিক আগে প্রতিবেশী মিয়ানমারে ৬ দশমিক ৯ মাত্রার ভূমিকম্পে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে একটি শপিং কমপ্লেক্সসহ নয়টি ভবন হেলে পড়ে। এতে কেউ হতাহত হয়নি।

ঘটনার পর হেলে পড়া ভবনগুলো পরিদর্শন করে মতামত দেওয়ার জন্য শাহীনুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে সিডিএ।

বৃহস্পতিবার পরিদর্শন শেষে প্রধান নগর পরিকল্পাবিদ শাহীনুল বলেন, “রোববারের মধ্যে নয়টি ভবনের নকশা, নির্মাণকারী সংস্থা ও প্রকৌশলীদের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জমা দিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।”

দুই ভবনের বর্ধিতাংশ ভাঙার নির্দেশ

হালিশহরের বি ব্লকে পাশাপাশি থাকা দুটি ভবনের সিডিএ’র অনুমোদন ছাড়া অংশ ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানান শাহীনুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, “প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, একটি ভবন আরেকটির সাথে লেগে আছে। কোনটি হেলে আছে- তা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে না।”

সিডিএ’র প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ জানান, সাধারণত নির্মাণের সময় দুটি ভবনের মধ্যবর্তী অংশে নির্দিষ্ট দূরত্ব রাখতে হয়। এ দুটির ক্ষেত্রে তা মানা হয়নি। সে কারণে ভবন দুটির অনুমোদন ছাড়া নির্মিত অংশ ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

হালিশহর বি ব্লকের দুই নম্বর রোডের ওই ভবন দুটির একটির মালিক প্রয়াত আকাম্বির হোসেন এবং অপরটির মালিক সৌদি প্রবাসী মোহাম্মদ খোকন।

-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like