যমুনা ব্যাংকের ৩৫ লাখ টাকা গায়েব, ম্যানেজার লাপাত্তা

যমুনা ব্যাংক কুমিল্লা শাখা থেকে তিন গ্রাহকের ৩৫ লাখ টাকা উধাও হয়ে গেছে বলে থানায় অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। ঘটনার পর থেকে লাপাত্তা রয়েছেন ব্যাংকটির লাকসাম রোড শাখা ম্যানেজার মোশাররফ হোসেন। তবে তিনি নিখোঁজ বলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। কুমিল্লার স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকা তাদের ফেইসবুক পেইজে এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

ফেইসবুক পেইজে আরও উল্লেখ করা হয়, এ পর্যন্ত তিন গ্রাহক পত্রিকাটির সম্পাদককে ফোন করে তাদের হিসাব থেকে এই অর্থ লোপাটের কথা জানালেও এর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, যমুনা ব্যাংকের গ্রাহক শহরের চর্থার আনোয়ারা বেগম, ঠাকুরপাড়ার নজরুল ইসলাম ও ছাত্রলীগ নেতা জসিম খানের হিসাব থেকে ৩৫ লাখ টাকা অন্য হিসাবে স্থানান্তর ও প্রতারণার মাধ্যমে চেকে তুলে নেয়া হয়েছে বলে থানায় অভিযোগ করেছেন তারা। এর মধ্যে আনোয়ারা বেগমের হিসাব থেকে ১৯ লাখ ৮০ হাজার, নজরুল ইসলামের হিসাব থেকে ৯ লাখ ৬ হাজার, জসিম খানের হিসাব থেকে ৬ লাখ ৯ হাজার টাকা সরিয়ে ফেলা হয়। এ ব্যাপারে ওই গ্রাহকেরা কুমিল্লা কোতোয়ালি থানায় মৌখিকভাবে অভিযোগ করলেও তাদের কেউ কেউ মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। শুক্রবার ব্যাংক বন্ধ থাকায় অন্য গ্রাহকেরা তাদের হিসাব থেকে অর্থ সরিয়ে নিয়েছে কিনা সেটাও জানতে পারছেন না তারা।

আনোয়ারা বেগম অভিযোগ করেন, তার হিসাব থেকে ৬ এপ্রিল ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা অন্য হিসাবে সরিয়ে নেয়া হয় এবং ব্যাংক ম্যানেজার সমস্যার কথা বলে তার কাছ থেকে তিনটি চেক নেন। তাতে ৪ এপ্রিল ৬ লাখ, ৫ এপ্রিল ৬ লাখ এবং ৬ এপ্রিল ৩ লাখ টাকা তুলে নেয়। সব মিলিয়ে তার ১৯ লাখ ৮০ হাজার টাকার কোনো হদিস নেই।

অপর গ্রাহক জসিম খান জানান, তার মেসার্স খান ট্রেডার্স নামের হিসাব থেকে ৬ লাখ ৯ হাজার টাকা সরিয়ে নেয়া হয়েছে অন্য হিসাবে। যার সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক নেই।

এদিকে, কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শকের (তদন্ত) বরাত দিয়ে স্থানীয় দৈনিক পত্রিকাটি নিজেদের ফেইসবুক পেইজে প্রকাশ করেছে, কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শামসুজ্জামান জানান, যারা মৌখিকভাবে জানিয়েছেন তাদের লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অন্যদিকে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ম্যানেজার মোশাররফ হোসেন নিখোঁজ উল্লেখ করে সাধারণ ডায়েরি করেছে। ঠাকুর পাড়ার নজরুল ইসলাম প্রমাণসহ জানিয়েছেন তার হিসাব থেকে ৯ লাখ ৬ হাজার টাকা সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

এদিকে, ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণ করা হয়েছে বলে কুমিল্লা প্রেসক্লাবে উপস্থিত সাংবাদিকের কাছে দাবি করেন তার ভাই শাহাদাত হোসেন ও জাকির হোসেন।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এ রবের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

-বাংলামেইল২৪

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like