দুদকে সাংবাদিক নিষিদ্ধ!

দেশ ডেস্ক : সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ সংস্থাটির প্রধান কার্যালয়ের ভিতরে প্রবেশ নিয়ে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। গত সপ্তাহ থেকে দুদকের ভিতরের প্রবেশ নিয়ে কড়াকরি থাকলেও ৪ এপ্রিল থেকে অলিখিতভাবেই এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়।

এর ফলে সোমবার সকাল থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত কোনো গণমাধ্যমকর্মী দুদকে প্রবেশ করতে পারেননি। এই নিষেধাজ্ঞাকে রেকর্ডপত্রের নিরাপত্তার প্রশ্নে দুদকে প্রবেশ সীমিত করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন ‍দুদক সচিব আবু মো. মোস্তফা কামাল। তবে দেশের সুশীল সমাজ মনে করছেন, যেকোন প্রতিষ্ঠানের সচ্ছতা-জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমকে স্বাধীনভাবে কাজ দিতে হবে।

গণমাধ্যমকর্মীরা জানান, গত কয়েকদিন ধরেই দুদকে সাংবাদিক প্রবেশে কড়াকড়ি চলছে। পূর্বতন নিয়ম মেনে কোনো সাংবাদিক ভেতরে ঢুকলে তার কাছে নানা বিষয়ে জানতে চাওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে সোমবার সকাল ১০টায় বেসিক ব্যাংক মামলার চার আসামিকে রিমান্ডে আনা হচ্ছে-এমন তথ্যের ভিত্তিতে দুদক বিটের দুই সাংবাদিক সেগুনবাগিচাস্থ দুদক কার্যায়ে প্রবেশ করতে চান। কিন্তু রিসিপশনেই তাদের আটকে দেয়া হয়। বলা হয়, ‘সাংবাদিকরা যাতে অবাধে ভেতরে প্রবেশ করতে না পারেন এ বিষয়ে উপরের নির্দেশ রয়েছে। বিকেল ৩টার পর কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে নির্ধারিত আইডি কার্ড নিয়ে সাংবাদিকরা প্রবেশ করতে পারবে’। পরে বিকাল সাড়ে ৩টায় কয়েকজন সাংবাদিক পরিদর্শন কার্ড নিয়ে, রেজিস্ট্রারে স্বাক্ষর দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেন। তবে ভিতরে যেতে পারলেও, তা সিমাবদ্ধ থাকে দুদকের সচিব ও জনসংযোগ কর্মকর্তার রুম পর্যন্ত।

এব্যাপারে দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্য নিতে একাধিক গণমাধ্যমকর্মী ৫ তলায় প্রবেশ করলে সেখানকার নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলার কাজে নিয়োজিতরা বলেন, ‘সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আছে। উপরে কীভাবে উঠলেন? চেয়ারম্যান স্যারের ডাইরেক্ট অর্ডার সাংবাদিকরা যেনো উপরে প্রবেশ না করতে পারে’।

তারা জানান, আমাদের ওপর নির্দেশ আছে কোনো সাংবাদিক যেনো উপরে না উঠতে পারে। আপনারা শুধু তিনতলায় পিআরও’র (জনসংযোগ কর্মকর্তা) রুমে যেতে পারবেন।

পরে সাংবাদিক প্রবেশে লিখিত কোনো নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে কি না-জানতে চাওয়া হলে দুদক সচিব বলেন, এটি শুধু সাংবাদিকদের জন্য নয়, সকল পরিদর্শকদের জন্যই এটি করা হয়েছে এবং এটি আমরা কন্টিনিউ করতে চাই। কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত যে, নিরাপত্তার স্বার্থে সবধরণের দর্শনার্থী প্রবেশ সীমীত করা হবে। তবে প্রকাশযোগ্য সব তথ্যই ওয়েবসাইট, জনসংযোগ কর্মকর্তা ও সচিবের দপ্তর থেকে সাংবাদিকরা পেতে পারেন। তথ্য প্রাপ্তিতে গণমাধ্যমের কোনো অসুবিধাই হবে না আশা করি।

সাংবাদিকদের এই রকম কড়াকড়ি আরোপের বিষয়টি কিভাবে দেখছেন বলে জানতে চাওয়া হয়েছিল বেসরকারি সংগঠন ‘সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)’ এর সাধারণ সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদারের কাছে। তিনি বলেন, ‘গণমাধ্যম হলো রাষ্ট্রের চতুর্থ ব্যাচ। যেকোনো প্রতিষ্ঠানের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের ভুমিকা অপরিসীম। আর গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারলে ওই ভূমিকাটা পরিপূর্ণ পালন করতে পারবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি যারা নতুন কমিশনার হয়েছে। তারা দুদককে কার্যকর ও দুর্নীতিমুক্ত ও দায়বদ্ধ করতে চান। আর তাদের এই চাওয়ার এক্ষেত্রে গণমাধ্যম তাদের সহায়তা করতে পারে। গণমাধ্যম একটি সহায়কশক্তি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। আশা করি আমাদের কমিশনার সেটা অনুধাবন করে গণমাধ্যমকে স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ দিবেন।’

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১২ সালে পদ্মাসেতু দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে দুদক অনুসন্ধান শুরু করলে একবার ভেতরে সাংবাদিক প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়। পরে সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিবাদের মুখে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়।

-বাংলামেইল২৪

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like