পদোন্নতির পর কারাগারে ফখরুল

Mirza-Fakhrul-Islam-Courtকক্সবাজারটাইমস ডেস্কঃ বিএনপির মহাসচিব মনোনীত হওয়ার ঘণ্টা দেড়েকের মধ্যে কারাগারে যেতে হলো মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে। বুধবার (৩০ মার্চ) বেলা সাড়ে এগারটায় এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দীর্ঘ ৫ বছর ধরে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করে আসা মির্জা ফখরুলকে পূর্ণাঙ্গ মহাসচিব মনোনীত করার ঘোষণা আসে। সে সময় তিনি ছিলেন ঢাকার সিএমএম আদালতে। সকাল সাড়ে দশটায় পল্টন থানার নাশকতার তিন মামলায় আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন জানিয়েছিলেন ফখরুল।এ সময়ই মহাসচিব মনোনীত হওয়ার খবর এসে পৌঁছালে আদালত কক্ষেই ফুল দিয়ে মির্জা ফখরুলকে অভিনন্দন জানান দলীয় নেতাকর্মী ও আইনজীবীরা। বেলা পৌনে বারটার দিকে শুনানি শেষে তিন মামলার মধ্যে দু’টিতে জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। অন্য মামলাটিতে জামিন পেয়েছেন তিনি। ফলে অভিনন্দনের ফুল নেওয়ার পর পরই কারাগারে যেতে হয়েছে বিএনপির নতুন এই মহাসচিবকে। সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান ফখরুল। শুনানি শেষে দুই মামলায় জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট গোলাম নবীর আদালত।মির্জা ফখরুলের আইনজীবী জয়নুল আবেদিন মেজবাহ জানান, পল্টন থানার নাশকতার ৪/১-২০১৫ নম্বর মামলায় জামিন দিলেও ৫/১-২০১৫ ও ৭/১-২০১৫ নম্বর মামলায় জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত।

গত ২৯ ফেব্রুয়ারি মির্জা ফখরুলকে ১৫ দিনের মধ্যে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে ৫ সদস্যের আপিল বিভাগ। ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারিকে ঘিরে ২০ দলীয় জোটের আন্দোলনের সময় পল্টন থানার নাশকতার ওই তিন মামলায় মির্জা ফখরুলকে হাইকোর্ট অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়ে রুল জারি করেছিলেন। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিলে গেলে আপিল বিভাগ রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জামিন এবং জামিনের মেয়াদ শেষে আত্মসমর্পণ করতে নির্দেশ দেন। এছাড়াও হাইকোর্টকে রুল নিষ্পত্তি করতে বলেন। হাইকোর্ট গত বছরের ২৪ নভেম্বর রুল নিষ্পত্তি করে ওই তিন মামলায় মির্জা ফখরুলকে তিন মাসের জামিন দেন।
তবে ফখরুলের আইনজীবীদের দাবি, রুল নিষ্পত্তির মাধ্যমে সাধারণত মামলার বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত জামিন হয়। কিন্তু এখানে মাত্র তিন মাসের জামিন দেওয়া হয়েছে। এ কারণে হাইকোর্টের আদেশ চ্যালেঞ্জ করে মির্জা ফখরুল গত ০৭ জানুয়ারি লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করেন। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি এ আবেদনের শুনানি শেষে চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী আবেদনটি ১৮ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠিয়ে দেন।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি এ আবেদনের শুনানি চলাকালে সিলেটে বিচার বিভাগ নিয়ে মির্জা ফখরুল মন্তব্য করেছেন বলে নজরে এলে তার কাছে ব্যাখ্যা চান পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চ।২৯ ফেব্রুয়ারি ফখরুলের ব্যাখ্যাসহ জামিনের আবেদনের শুনানি শেষে ১৫ দিনের মধ্যে তাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like