ইরফানের মাঝে ‘ডুব’ দিলেন সবাই!

irfan_press_2_374629433

সবার চোখ উৎসুক। হোটেল লা ম্যারিডিয়নে ১৪তম তলার মিলনায়তনের দরজার দিকেই বারবার তাকাচ্ছেন সবাই। এই বুঝি এলেন ইরফান খান! ‘লাইফ অব পাই’-এর পাই। ২০১১ সালে ভারতের চতুর্থ বেসামরিক সম্মাননা পদ্মশ্রীতে ভূষিত হয়েছেন যিনি। এর পরের বছর ‘পান সিং তোমর’ ছবির জন্য যার ঘরে এসেছে ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

তিনটি ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডস, তিনটি আইফা অ্যাওয়ার্ডস, এশিয়ান ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডসহ অনেক আন্তর্জাতিক সম্মানও রয়েছে ইরফানের ঝুলিতে। ‘জুরাসিক ওয়ার্ল্ড’ ছবিতেও যিনি ছিলেন। সামনে টম হ্যাঙ্কসের সঙ্গে দেখা যাবে ড্যান ব্রাউনের উপন্যাস নিয়ে নির্মিত ‘ইনফারনো’ ছবিতে।

এমন একজন অভিনেতা বাংলাদেশের বাংলা ভাষার ছবিতে অভিনয় করবেন, তা স্বপ্ন মনে হলেও তা সত্যি করেছেন মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। তার কাজে মুগ্ধতাই ঢাকায় নিয়ে এসেছে ইরফানকে। ৪৯ বছর বয়সী এই অভিনেতা ঢাকায় পা রেখেছেন গত ১৬ মার্চ। সেদিন থেকেই জোরেশোরে চলছে ‘ডুব’ নিয়ে আলোচনা।

ফারুকীর নতুন ছবিটিতে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করবেন ইরফান। শুক্রবার (১৮ মার্চ) রাতে রাজধানীর ওই পাঁচতারকা হোটেলে অনুষ্ঠিত এর মহরতে তিনি হাজির হতেই ক্যামেরা আর মোবাইলের আলো যেন বন্ধ হলো না ক্ষণিকের জন্য! সবাই যেন ‘ডুব’ দিলেন তার মাঝেই!

টি-শার্টের ওপর ধবধবে সাদা শার্ট। বোতামগুলো খোলা। চুলগুলো পেছনে ঝুটি বাঁধা। গালভর্তি দাড়ি। সঙ্গে গোঁফ। সত্যিকারের পৌরুষত্ব বুঝি একেই বলে! ইরফানকে দেখতে, তার সঙ্গে ছবি তুলতে, সেলফি তুলতে মোটামুটি সোরগোল পড়ে গেলো।

শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধরা পর্যন্ত ইরফানের ভক্ত। মহরত অনুষ্ঠানের উপস্থাপক স্ট্যান্ডআপ কমেডিয়ান নাভিদ মাহবুব জানালেন, তার দুই সন্তানই ‘লাইফ অব পাই’ দেখে তার ভক্ত বনে গেছে। ইরফান আসবেন জেনে কে আসেননি! চলচ্চিত্র ও সংগীত জগতের শিল্পী, নির্মাতা, কলাকুশলী থেকে শুরু করে সাহিত্যিক, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম, ঢাকায় নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রদূতকেও দেখা গেলো। সবাই ইরফানের কথা মনভরে শুনলেন।

ইরফান ক্যারিয়ারে অর্ধশতরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন। যেগুলোর প্রায় সবই হিন্দি নয়তো ইংরেজি ভাষার। তাই বাংলা ভাষার ছবিতে অভিনয় করতে এসে বাংলা না শিখলে চলবে? ভাষা বিষয়ক এক প্রশ্নের উত্তরে তার বক্তব্য- ‘বাংলা খুব কঠিন ভাষা। জানি এটা পুরোপুরি আয়ত্ত্বে আনতে পারবো না। তবু চেষ্টা করছি যতোটা শেখা যায়’- বলছিলেন বলিউড অভিনেতা ইরফান খান। শুক্রবার (১৮ মার্চ) রাতে ‘ডুব’ ছবির মহরত অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি। এতে প্রধান চরিত্রে দেখা যাবে তাকে।

মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘ডুব’ ছবিটা বাংলা ভাষার। তাই বাংলায় সংলাপ বলতে হবে ইরফান। এজন্য তিনি ভাষাটা রপ্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন মহরতে। তার কথায়, “ধরুন প্রকৃতি শব্দটাকে বাংলার মতো করেই বলতে হবে ‘প্রকৃতি’। আবার আমি ‘মৃত্তিউ’ বললে সবাই বলছে না-না-না, এটা হবে মৃত্যু! সুতরাং ব্যাপারটা সহজ নয়।”

বাংলার সঙ্গে ইরফানের বরাবরই যোগাযোগ আছে। তার অর্ধাঙ্গিনী সুতপা সিকদার বাঙালি। মীরা নায়ারের ‘দ্য নেমসেক’ (২০০৭) ছবির গল্প ছিলো যুক্তরাষ্ট্র অভিবাসী পশ্চিমবঙ্গের দুই প্রজন্মকে ঘিরে। গত বছরের ব্যবসাসফল ও প্রশংসিত ছবি সুজিত সরকারের ‘পিকু’র কথাও মহরতে উল্লেখ করলেন ইরফান।

চ্যালেঞ্জিং হলেও ‘ডুব’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ না হয়ে ইরফানের উপায় ছিলো না! কারণ ফারুকীর ছবি দেখে মুগ্ধ হয়েছেন তিনি। বিশেষ করে ‘পিঁপড়াবিদ্যা’ দেখেই তার আগ্রহ জন্মেছে। ফারুকীর গল্প বলার ধরণ বেশি আকৃষ্ট করেছে তাকে। আরেকটি প্রশ্নের উত্তরে সেকথা বলতে ভুললেন না ইরফান। তার মতে, ‘প্রতিটি ছবিরই আলাদা ভাষা থাকে, নান্দনিকতা থাকে, শৈল্পিক গুণাবলি থাকে।’

অনুষ্ঠানে ফারুকী বলেন, ‘এ ছবিটা নিয়ে অনেকদিন ধরে গোপনে কাজ করছিলাম। স্ক্রিপ্ট যখন লিখছিলাম ইরফান খানের কথা ভাবনায় ছিলো। আগামী দেড় মাস কঠিন পরীক্ষা। আশা আছে ভালোভাবেই কাজটা শেষ করতে পারবো।’

সংবাদকর্মীদের প্রশ্নোত্তর পর্বে ফারুকী আরও জানান, ছবি মুক্তির আগ পর্যন্ত কার কেমন চরিত্র কিংবা গল্পটা গোপন রাখার চেষ্টা করবেন। ভারতীয় অভিনেতা ও ভারতীয় প্রযোজকের সঙ্গে কাজ করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি ছবি বিনিময়ের পক্ষে কখনও ছিলাম না। এখনও না। তবে যৌথ প্রযোজনা হতে পারে।’

ইরফান খানের সঙ্গে ছবিটিতে অভিনয় করবেন রোকেয়া প্রাচী, নুসরাত ইমরোজ তিশা ও পার্নো মিত্র। এ প্রসঙ্গে রোকেয়া প্রাচী বললেন, ‘এমন একজন অভিনেতা বাংলাদেশের ছবিতে কাজ করছেন এটা প্রকৃত অর্থে আমাদের সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার।

তার সঙ্গে কাজ করলে অনেক কিছু শিখতে পারবো। এটা অনেক বড় সুযোগ। এ ছবির মাধ্যমে আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের পথটা অনেক বড় হয়ে যেতে পারে।’

ছবিটিতে নিজের প্রস্তুতির ব্যাপারে প্রাচী বলেছেন, ‘পরিচালক যা ভাবছেন তা দেওয়াই অভিনয়শিল্পীর প্রস্তুতি। পরিচালকের নির্দেশনা মেনে সঠিকভাবে কাজ করার মানসিকতা ধরে রাখাই অভিনেতা-অভিনেত্রীর মূল কাজ।’

ওপার বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী পার্নো মিত্রও ‘ডুব’ নিয়ে উচ্ছ্বসিত। তিনি বলেন, ‘কলকাতায় মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর অনেক সুনাম। আমি এ ছবিতে তার পরিচালনায় কাজ করবো জেনে সবাই বাহবা দিয়েছে। আর ইরফান খানের সঙ্গে কাজ করা সব অভিনেত্রীরই স্বপ্ন। আমার সহশিল্পী হিসেবে তার নাম দেখবো, এটা অবশ্যই আনন্দের।’

ফারুকীর সহধর্মিণী তিশা বলেছেন, ‘এ ছবির চিত্রনাট্য খুবই সুন্দর। এমন চিত্রনাট্য তৈরির জন্য ফারুকীকে ধন্যবাদ। ইরফান খানকেও ধন্যবাদ এ ছবিতে যুক্ত হয়ে তার সঙ্গে কাজের সুযোগ দেওয়ার জন্য।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জাজ মাল্টিমিডিয়ার স্বত্ত্বাধিকারী আব্দুল আজিজ ও কলকাতার এসকে মুভিজের অন্যতম অংশীদার হিমাংশু ধানুকা। ছবিটির মিউজিক পার্টনার লাইভ টেকনোলজিস।

‘ডুব’ মুক্তি দেওয়া হবে আন্তর্জাতিকভাবে। তাই এর ইংরেজি নাম রাখা হয়েছে ‘দ্য বেড অব রোজেস’। এটি ফারুকীর ষষ্ঠ ছবি। আগের পাঁচটি হলো ‘ব্যাচেলর’, ‘মেড ইন বাংলাদেশ’, ‘থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার’, ‘টেলিভিশন’ ও ‘পিঁপড়াবিদ্যা’।

-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like