অস্ত্রোপচারের পর কেমন আছেন ট্রি-ম্যান

Tree_Man1456149083স্বাস্থ্য ডেস্ক: অস্ত্রোপচারের পর ট্রি–ম্যান আবুল ভালই আছেন। তবে ভাত খেতে পারছেন না। খেতে গেলে মুখে তেতো লাগছে। আরো কিছু সমস্যা অনুভব করছেন। তবে চিকিৎসক বলছেন, এটা কোন সমস্যা না। অস্ত্রোপচারের পর এমন একটু সমস্যা হয়।

শনিবার সকালে ট্রি-ম্যান আবুল বাজনদারের ডান হাতে অস্ত্রোপচার করা হয়। অস্ত্রোপচারের পর তার শারীরিক অবস্থা কেমন জানতে চাইলে আবুল বলেন, ‘ভাত খেতে পারছি না, তেতো লাগে। শরীর দুর্বল। গায়ে হালকা ব্যাথা রয়েছে। ডাক্তার বলেছেন, সারাদিন শুয়ে থাকার কারণে হয়তো একটু গা ব্যাথা হয়েছে।’

এছাড়া তার শরীরে অস্বস্তি অনুভব হচ্ছে। অস্ত্রোপচার করা ডান হাতে মাঝে মধ্যে ব্যাথা ও যন্ত্রনা হচ্ছে বলে জানান আবুল।

আবুলের চিকিৎসায় গঠিত মেডিক্যাল টিমের সমন্বয়কারী ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের (ঢামেক) বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা ডাঃ সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘এতে ভয়ের কিছুই নেই। অস্ত্রোপচারের পর এমন একটু সমস্যা হয়।’

ভাত খেতে না পারলেও আবুল ফলমূল খেতে পারছেন। কিন্তু নিজের ফল কেনার সামর্থ নেই। আবুল জানান, সাভার থেকে এক নারী তাকে দেখতে এসেছিলেন। তিনি তাকে কিছু আপেল কিনে দিয়ে গেছেন। তিনি আবুলকে বলেছেন, তিনি গার্মেন্টসে চাকরি করেন। অনেক আগেই আবুলকে দেখতে আসতে চেয়েছিলেন । কিন্তু ছুটি না পাওয়ায় আসতে পারেন নি। আগামীতে ছুটি পেলে আবার একবার এসে দেখে যাবেন।’

অপারেশনের সময় কী আপনি সবকিছু দেখতে পেরেছেন-এ প্রশ্নে আবুল বলেন, ‘আমার জ্ঞান ছিলো কিন্তু চিকিৎসকরা আমাকে দেখতে দেন নি। ইনজেকশন দেওয়ার সময় শুধু টের পেয়েছি। অপারেশনের সময় চিকিৎসকরা ছবি তুলে রেখেছেন। পরে আমাকে দেখিয়েছেন। ছবিতে হাতের আঙ্গুলগুলো দেখতে পেয়েছি।’

অস্ত্রোপচার সফল হওয়ায় আবুল অত্যন্ত খুশি হয়েছেন। তিনি বলেন, সুস্থ হয়ে তিনি এই হাত দিয়ে তার মেয়েকে আদর করতে পারবেন, খাওয়াতে পারবেন, নিজে খাবার খেতে পারবেন, কাজ করে মা-বাবাকে খাওয়াতে পারবেন, সংসার চালাতে পারবেন। আবুল আরো বলেন, ১০ বছর পর আবার হাত ভাল হবে, এর থেকে খুশির বিষয় আর কি হতে পারে! মেয়ের জন্মের পর প্রায় তিন বছর হয়ে গেছে। এখনো মেয়েকে স্পর্শ করার সৌভাগ্য হয় নি।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক মোঃ আবুল কালাম বলেন, ‘আমরা প্রথমে আবুলের ডান হাতের দুই আঙুলে অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেই। কিন্তু অস্ত্রোপচারের সময় পরিস্থিতি ভাল বুঝে সিদ্ধান্ত নেই এবং তার ডান হাতের পাঁচটি আঙুলেই অস্ত্রোপচার করা হয়। সুস্থ হয়ে সে তার ডান হাত দিয়ে ধরতে পারবে, খেতেও পারবে।’

আবুল জানান, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন মঙ্গলবার তার হাতের ব্যান্ডেজ খুলে আবার ড্রেসিং করা হবে।

আবুলের স্ত্রী হালিমা জানান, স্বাস্থ্যমন্ত্রী আবুলকে দেখতে রোববার হাসপাতালে এসেছিলেন। তিনি বলেছেন, দুঃশ্চিন্তার কিছু নেই। আবুলের যত উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন প্রধানমন্ত্রী তার ব্যবস্থা করবেন।

আবুলকে সহযোগিতা করার জন্য হালিমা প্রধানমন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী, চিকিৎসক, সংবাদিকসহ সর্বস্তরের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন এবং তাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। একইসাথে তিনি আবুলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

-রাইজিংবিডি

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like