পুলিশ প্রহরায় দুই ‘জঙ্গিবাড়ি’

বাংলামেইল: জঙ্গি আটক এবং বিস্ফোরক উদ্ধারের পর বাড্ডা ও মোহাম্মদপুরের দু’টি বাসায় পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। এদিকে এসব ঘটনায় রাজধানীর দু’টি ধানায় তিনটি মামলা হয়েছে।

বাড্ডা থানার ওসি এম এ জলিল জানান, ডিবির অভিযানের পর বাড্ডার ওই বাসার সামনে পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। বাড্ডার মতো মোহাম্মদপুরের নবোদয় হাউজিংয়ের বি-ব্লকের ২৮ নম্বর বাড়িটির সামনেও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জানা গেছে, ডিবির কর্মকর্তারা এসব স্থানে তদন্ত করছে।

রাজধানীর বাড্ডার সাঁতারকুলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শকের ওপর হামলা, নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের দুই সদস্য গ্রেপ্তার ও মোহাম্মদপুরসহ রাজধানীর আশপাশের এলাকায় অভিযানে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গুলি উদ্ধারের ঘটনায় পৃথক তিনটি মামলা হয়েছে।

এর মধ্যে বাড্ডা থানায় আটক শাহ আলম ও জামালের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে একটি, ডিবির কর্মকর্তার ওপর হামলার ঘটনায় একটি এবং মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গত শুক্রবার রাতে বাড্ডার সাঁতারকুলে পাঁচতলা একটি বাড়ির নিচতলায় একটি মেসে অভিযান চালানোর সময় দুর্বৃত্তদের চাপাতির কোপে আহত হন ডিবির পরিদর্শক বাহাউদ্দিন ফারুকী।

মেসের বাসিন্দারা সেখান থেকে পালিয়ে গেলেও সাঁতারকুল এলাকার অন্য একটি স্থান থেকে শাহ আলম ওরফে সালাউদ্দিন ওরফে হিরন ও জামাল হোসেন ওরফে কামাল নামে দুই জনকে আটক করে ডিবি। এই দুইজন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য বলে ডিবির দাবি।

পরে তাদের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে শনিবার মোহাম্মদপুরের নবোদয় হাউজিংয়ের একটি বাড়ির পঞ্চম তলার একটি ফ্ল্যাট থেকে ২০টি বোমা ও বোমা তৈরির বিপুল সরঞ্জাম এবং আশকোনা ও টঙ্গী থেকে গুলি এবং ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

এছাড়া সাঁতারকুল থেকে চাপাতি ও গুলি উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে ১৯টি বোমা নিষ্ক্রিয় করা হয়। উদ্ধার করা পাঁচ কেজি ওজনের একটি বোমা তুরাগ নদীতে নিষ্ক্রিয় করা হয়।

ডিএমপি’র ডিসি (মিডিয়া) মারুফ হোসেন সরকার বলেন, গত শুক্র ও শনিবারের ঘটনায় রোববার রাতে বাড্ডা থানায় দুইটি ও মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like