মানহানির মামলায় গয়েশ্বরের বিরুদ্ধে সমন

Goshar00141455783810রাজনীতি ডেস্ক: শহীদ বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে ‘বিতর্কিত মন্তব্যের’ অভিযোগে দায়ের করা মানহানির মামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার সকালে শাহবাগ থানা পুলিশ প্রতিবেদনটি আদালতে দাখিল করে। ঢাকা মহানগর হাকিম নুরু মিয়া মামলার প্রতিবেদন আমলে নিয়ে এ সমন জারি করেন।

এর আগে গত ২১ জানুয়ারি ঢাকা মহানগর হাকিম আমিনুল হকের আদালতে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান ও মার্কেন্টাইল ব্যাংকের সহকারী ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনীন্দ্র কুমার নাথ এ মামলা দায়ের করেন। ওইদিন মামলাটি আমলে নিয়ে শাহবাগ থানা পুলিশকে ঘটনাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন বিচারক।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, গত ২৫ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবে রাজশাহী ইউনিভার্সিটি ন্যাশনালিস্ট এক্স-স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত ‘স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রুহুল কবীর রিজভী’ শিরোনামে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘যারা শেষ দিন (একাত্তরের ১৪ ডিসেম্বর) পর্যন্ত পাকিস্তানের বেতন ভাতা খাইছে, তারা (শহীদ বুদ্ধিজীবী) নির্বোধের মত মারা গেল, আমাদের মতো নির্বোধরা শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে তাদের কবরে ফুল দিই, আবার না গেলে পাপ হয়। তারা যদি বুদ্ধিমান হন, তাহলে ১৪ তারিখ পর্যন্ত নিজের ঘরে থাকলেন কীভাবে?

তিনি আরো বলেন, ‘যারা পাকিস্তানের বেতন খেলো তারা হয়ে গেল মুক্তিযোদ্ধা, আর যারা না খেয়ে পালিয়ে বেড়াল তারা হয়ে গেল রাজাকার। যারা ২৫ মার্চ মারা গেছেন, তারা মারা গেছেন না জানার কারণে। আর যারা ১৪ ডিসেম্বর মারা গেছেন তারা অজ্ঞতার কারণে মারা যাননি। তারা জ্ঞাতসারে অবস্থান করছিলেন।’

আসামির এই বক্তব্য পরদিন বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হলে অন্যান্য শহীদ পরিবারের সদস্যরা নিদারুনভাবে জনসমক্ষে হেয় ও অপমান হওয়ায় বাদী বাধ্য হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেছেন। এ মামলায় দণ্ডবিধির ৫০০ ধারার বিধান অনুয়ায়ী গয়েশ্বর রায়ের শাস্তি প্রার্থনা করেছেন বাদী।

-রাইজিংবিডি

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like