‘মাছের রাজা ইলিশ দেশের রাজা পুলিশ’

songsod1455025771রাইজিংবিডি: এবার জাতীয় সংসদে পুলিশ বাহিনী সদস্যদের ব্যবহার নিয়ে কথা বলতে গিয়ে ‘মাছের রাজা ইলিশ দেশের রাজা পুলিশ’ বলে মন্তব্য করেছেন বিরোধী দল জাতীয় পার্টির (জাপা) সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম ওমর।

মঙ্গলবার দশম জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনে বগুড়া-৬ আসনের বিরোধীদলীয় সদস্যের অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

এর আগে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) পরিচ্ছন্নতা বিভাগের পরিদর্শক বিকাশ চন্দ্র দাসকে (৪০) রাজধানীর ল্যাবএইড স্পেশালাইজড হাসপাতালে দেখতে গিয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বলেছেন, পুলিশের পক্ষ থেকে ‘মাছের রাজা ইলিশ দেশের রাজা পুলিশ’ বলে যে ঔদ্ধত্যপূর্ণ উক্তি করা হয়েছে তা একটি ভয়ানক উক্তি। পাশাপাশি বিএনপি নেতারাও বিভিন্ন সময় পুলিশকে উদ্দেশ করে এই উক্তি ব্যবহার করেন।

সংসদে নুরুল ইসলাম বলেন, আজকে আমি সচিবালয়ে গিয়েছিলাম। সেখানে যাওয়ার পরে আমার একটি কাগজ ছাড়া পড়েছিল। সেটা আনার জন্য আমার ড্রাইভার আর পিএকে পাঠিয়ে দিয়েছিলাম সচিবালয়ে বাইরে সেটা আনার জন্য। কিন্তু বাইরে এসে কাগজাটা নিয়ে যাওয়ার সময় সবিচালয় গেটে গাড়িসহ পিএকে আটকে দেওয়া হয়।

এ সময় সংসদ অধিবেশনে সভাপতির আসনে ছিলেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। তিনি সংসদ সদস্যদের অভিযোগ শুনে বলেন, ঘটনাটি কোন সচিবালয়ে।’ এর জবাবে নুরুল ইসলাম বলেন, মন্ত্রণালয় সচিবালয়ে।

এক্ষেত্রে পুলিশের কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের যুক্তি, যেহেতু এমপি সাহেব গাড়িতে নাই, সেহেতু তাকে সচিবালয়ের ভেতরে গাড়িসহ যেতে দেওয়া হবে না। আমার ড্রাইভার আমাকে মোবাইলে ফোন করলে আমি পুলিশের সঙ্গে কথা বলতে চাই, কিন্তু তারা আমার সঙ্গে কথা বলতে চায় না।

‘তখন আমি আমার পিএকে বললাম। যেতে যখন দেবে না, তখন আপনি থেকে যান। আমি বাইরে আসছি। কিন্তু তারা তাকে বাইরেও বের হয়ে যেতে দেবে না। আমার খুব খারাপ লাগছিল। আমি বললাম, দেখেন কোন পুলিশ অফিসার গেটের মধ্যে আছে কি না। যদি সেখানে অন্য কোন অফিসার থাকে তাহলে আমি একটু কথা বলি। অনেকক্ষণ পরে সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) জাফর মোবাইল ফোনটা দয়া করে ধরলেন। আমি বললাম, ইন্সপেক্টর সাহেব ঘটনাটি কী? দেশে কি যুদ্ধ শুরু হয়েছে, না মার্শাল ল জারি হয়েছে?

স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিরোধীদলীয় এই সংসদ সদস্য আরো বলেন, এটা অত্যন্ত দুঃজনক। এটা কোন ধরনের নিরাপত্তা? আপনার কাছে অনুরোধ করছি, এর একটা তদন্ত হোক।

তিনি বলেন, ওই গেটে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা অবশ্যই জামায়াত-বিএনপির লোক। তারা সরকার এবং আমাদের কাউকে মানতে চায় না, বরং অপমানিত করতে চায়।

এই যে পেপারে (সংবাদপত্র) সেদিন দেখলাম সে কথাটি বারবার মনে হচ্ছে। মাছের রাজা ইলিশ দেশের রাজা পুলিশ। তাহলে কি এটাই সত্যি হয়ে যাবে যে, এই দেশের রাজা পুলিশ। তারা কাউকে মানবে না। একজন সংসদ সদস্যের মোবাইল ফোন রিসিভ করবে না। আমি মনে করি, একজন সংসদ সদস্যকে অপমান করা মানে, গোটা সংসদকে অপমান করা।

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like