পর্যটন বর্ষের একমাস : পর্যটকের ‘আনুমানিক’ সংখ্যায় আটকে আছে কর্তৃপক্ষ

VB_2016_bg_975307614বাংলানিউজ : বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান পরিদর্শনের বিশেষ আয়োজন এবং নানা কর্মযজ্ঞের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ‘পর্যটন বর্ষ ২০১৬’। দেশি-বিদেশি নাগরিকদের বাংলাদেশ ভ্রমণে আকৃষ্ট করতে ইতোমধ্যে নানা সুযোগ-সুবিধা ঘোষণা করেছে সরকার।
তবে পর্যটন বর্ষের এক মাস পেরিয়ে গেলেও বাংলাদেশ ভ্রমণে আসা পর্যটকের সঠিক হিসাব রাখার উদ্যোগ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
ইমিগ্রেশন বিভাগ প্রতি বছর মোট কতজন বিদেশি নাগরিক বাংলাদেশে আসে তার তালিকা করলেও, এদের মধ্যে পর্যটকের সংখ্যা কত তার হিসাব নেই। পাশাপাশি সে তথ্য প্রকাশেও রয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা। অন্যদিকে পর্যটন বিষয়ক মন্ত্রণালয়, বোর্ডসহ বিভিন্ন সংস্থা আনুমানিক সংখ্যাতেই আটকে রয়েছে।
যেসব বিদেশি নাগরিক বাংলাদেশে প্রবেশ করে কমপক্ষে ২৪ ঘণ্টা অবস্থান করছে, তারাই পর্যটক-এ হিসেবে গত বছর প্রায় ৫ লাখ ৩০ হাজার বিদেশি পর্যটক বাংলাদেশে এসেছেন, জানাচ্ছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। কিন্তু কোন দেশ থেকে কতজন পর্যটক এসেছে-সে প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেনি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।
কর্তৃপক্ষের এ তথ্য নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ’র মহাসচিব মাসুদুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, “দেশে এ পরিমাণ পর্যটক এলে দেশের চেহারা অন্যরকম হতো”।
ভ্রমণে আসা পর্যটকদের সংখ্যা নিয়ে কথা বলতে গেলে কর্তৃপক্ষের মধ্যে সমন্বয়হীনতাও দেখা যায়।
বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের নির্বাহী কর্মকর্তা আকতার আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, ট্যুরিজম বোর্ডে পর্যটক সম্পর্কিত সঠিক কোনো তথ্য নেই। তবে গত বছর চার লাখের মতো বিদেশি নাগরিক বাংলাদেশে এসেছে। গত দুই বছর যাব‍ৎ ইমিগ্রেশন বিভাগ বিদেশি নাগরিক প্রবেশের তথ্য না দেওয়ায়, এই সংখ্যাও নির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না।
এ প্রসঙ্গে ইমিগ্রেশন বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার জাহিদুল ইসলাম বলেন, দেশে প্রতিদিন যেসব বিদেশি নাগরিক প্রবেশ করে তাদের প্রত্যেকের হিসাব আমরা রাখি। রাষ্ট্রীয় তথ্য হওয়ায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া প্রকাশ করার সুযোগ নেই। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি সাপেক্ষে তথ্য দিতে বাধ্য ইমিগ্রেশন বিভাগ।
পর্যটন খাত থেকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব। তবে তার জন্য দরকার সমন্বিত পরিকল্পনা এবং তার বাস্তবায়ন। সব বিদেশি নাগরিক পর্যটক হতে পারে না। পর্যটক তারাই, যারা নিখাদ আনন্দ কুড়াতে কোনো দেশ ভ্রমণ করেন। ব্যবসা বা অন্য কাজে ভ্রমণকারীদের পর্যটক বলা যাবে না, যোগ করেন মাসুদুর রহমান।
সরকারের পক্ষ থেকে পর্যটক ভ্রমণের যে সংখ্যা প্রকাশ করা হচ্ছে, তা অযৌক্তিক, উল্লেখ করেন তিনি।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like