বিলুপ্ত হচ্ছে আইসিসির ‘তিন মোড়ল প্রথা’

ICC_011454594423ক্রীড়া ডেস্ক : আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসির) ‘তিন মোড়ল প্রথা’ বিলুপ্ত হচ্ছে। এ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান হওয়ার পরই পরিবর্তনের কথা জানিয়েছিলেন শশাঙ্ক মনোহর। অবশেষে তার শক্ত অবস্থানের কারণেই বিলুপ্ত হতে যাচ্ছে ‘তিন মোড়ল প্রথা’।

২০১৪ সাল থেকে বিশ্ব ক্রিকেটে ভারত, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার আধিপত্য শুরু হয়। ওই সময়ের তৈরি করা বিতর্কিত গঠনতন্ত্র ও প্রশাসনিক ক্ষমতার নীতিতে পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে বিশ্বক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটি। বৃহস্পতিবার দুবাইয়ে আইসিসির সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আইসিসির চেয়ারম্যান হওয়ার পর এ বছর এটাই শশাঙ্ক মনোহরের প্রথম সভা। আর প্রথম সভাতেই বিতর্কিত ও অনৈতিক ‘তিন মোড়ল’ প্রথার বিপক্ষে কড়া অবস্থান নিলেন তিনি। মূলত ক্রিকেটকে সার্বজনীন করতেই এমন ব্যবস্থার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সংশোধনী গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, ২০১৬ সালের জুন মাস থেকে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হবে আইসিসির চেয়ারম্যান পদের নির্বাচন।

২০১৪ সালে আইসিসির প্রাক্তন চেয়ারম্যান শ্রীনিবাসনের আমলে আইসিসির গঠনতন্ত্রে যেসব সংশোধনী আনা হয়েছিল তাতে তিন মোড়লের আধিপত্য বিস্তারের বড় সুযোগ তৈর হয়। গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন কার্যকর হলে সেটা আর থাকবে না।

আইসিসির চেয়ারম্যান নির্বাচনের প্রসঙ্গে সংশোধনীতে বলা হয়েছে, আইসিসির স্বতন্ত্র অডিট কমিটির চেয়ারম্যানের অধীনে নির্বাচন হবে। নির্বাচিত চেয়ারম্যানের মেয়াদ দুই বছর। এছাড়া কোন চেয়ারম্যান তিনবারের অধিক এই পদে অধিষ্ঠিত হতে পারবেন না। চেয়ারম্যান হওয়ার পর, তিনি আইসিসির সদস্য দেশের কোন ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে জড়িত থাকতে পারবেন না।

চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে গেলে ওই ব্যক্তিকে বর্তমান বা সাবেক আইসিসির নির্বাহী সদস্য বা ডিরেক্টর হতে হবে। এছাড়া প্রার্থীকে সমর্থন আনতে হবে দুজন পূর্ণ সদস্যের।

সংশোধনী আসছে অন্যান্য কাঠমোগুলোতেও। বিশেষ করে আইসিসির নির্বাহী কমিটি, ফিন্যান্স ও কমার্শিয়াল অবকাঠামোতে। সংশোধিত নিয়মানুয়ায়ী ২০১৬ সালের জুন মাস থেকে এই তিন ক্রিকেট শক্তির (ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া) স্থায়ী পদ বিলুপ্ত হবে।

-রাইজিংবিডি

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like