অনূর্ধ্ব-১৯: বিশ্বকাপ গ্রুপ সেরার পথে মিরাজদের বাধা নামিবিয়া

বাংলামেইল: আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচ জিতে বেশ ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে মেহেদি হাসান মিরাজের দল। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণ আফ্রিকা এবং স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে বড় জয়ের পর ‘এ’গ্রুপ থেকে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সুপার লিগ ও কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। এবার গ্রুপ সেরা হওয়ার লড়াই স্বাগতিকদের।

একই গ্রুপে থাকা নামিবিয়াও পরপর দুই ম্যাচ জিতে স্বাগতিকদের সামনে বাধার প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়েছে। যারাই জিতবে তারাই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন। এমন সমীকরণ সামনে রেখেই মঙ্গলবার কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে নামিবিয়ার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ম্যাচটি শুরু হবে সকাল ৯টায়। ম্যাচটি কোনো টিভি চ্যানেল সরাসরি সম্প্রচার করবে না।

ঘরের মাঠে চলমান আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে স্বাগতিক বাংলাদেশ দলের ওপর প্রত্যাশার পারদটা ক্রমশই বেড়েই চলেছে। বিশেষ করে জুনিয়র টাইগারদের পারফরম্যান্স সেটিকে আরও উজ্জ্বল করে তুলছে। এর মধ্যে ‘এ’গ্রুপ থেকে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলা নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশের তরুণরা। তাই এবার গ্রুপ পর্বে শতভাগ জয়ের সাফল্য ধরে রাখার মিশনে মঙ্গলবার মাঠে নামবেন মেহেদি হাসান মিরাজ-নাজমুল হোসেন শান্তরা।

যুব বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ব্যাটে-বলে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে আশা-জাগানিয়া।পারফরম্যান্সের ধারাটা ঠিক এমন থাকলে নামিবিয়াকে নিয়ে বড় কোনো ভয়, হুমকি থাকার কথা নেই। তাই বলে নামিবিয়াকে আবার হালকাভাবে নেয়ারও সুযোগ নেই।

কারণ চলমান যুব বিশ্বকাপে ‘এ’গ্রুপে দক্ষিণ আফ্রিকা ও স্কটল্যান্ডকে হারিয়ে শেষ আটে জায়গা করে নিয়েছে এ দলটি। ফলে বাংলাদেশের মতো এক ও অভিন্ন লক্ষ্যে মাঠে নামবে নামিবিয়ার তরুণরাও। যুব বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বিপক্ষে পরিসংখ্যান অবশ্য দেশটির পক্ষে কথা বলছে না। বাংলাদেশের মুখোমুখি হয়ে চারবারই হেরেছে নামিবিয়া। ১৯৯৮ বিশ্বকাপে ৪ উইকেটে, ২০০০ বিশ্বকাপে ৭ উইকেটে, ২০১২ বিশ্বকাপে ৭ উইকেটে, ২০১৪ বিশ্বকাপে ৫২ রানে বাংলাদেশের কাছে হেরেছিল নামিবিয়া।

গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচের মতো তৃতীয় এবং শেষ ম্যাচেও সতর্ক স্বাগতিক বাংলাদেশ। কারণ গ্রুপ পর্বের তৃতীয় ম্যাচে হারলেই কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের মতো শক্ত প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলতে হবে।  তাই শুধু মঙ্গলবার শুধু গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার ম্যাচ নয়। নামিবিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটি বাংলাদেশের জন্য নানা ব্যঞ্জনায় ধরা দিচ্ছে। কোয়ার্টার ফাইনালের নকআউট যুদ্ধে টুর্নামেন্টের অন্যতম শক্তিধর, ফেবারিট ভারতকে এড়ানো লক্ষ্য।

একই সঙ্গে নেপালকে প্রতিপক্ষ বানানোর সুযোগটা প্রত্যক্ষভাবে গ্রুপ পর্বের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচের উপরই নির্ভর করছে। নামিবিয়ার বিপক্ষে জিতলে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হবে বাংলাদেশ। তাহলে শেষ আটের লড়াইয়ে আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে নেপালের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ দল। তবে এ ম্যাচটা হেরে গেলে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি ফতুল্লায় ভারতীয় যুবাদের মুখোমুখি হতে হবে মেহেদি হাসান মিরাজদের।

বোলিংয়ে বাংলাদেশের বড় অস্ত্র স্পিন। সেখানে বোলিং অ্যাকশনে ত্রুটি ধরা পড়ায় নিষিদ্ধ হয়েছেন সঞ্জিত সাহা। তার পরিবর্তে স্কোয়াডে সুযোগ পেয়েছেন আরেক অফ স্পিনার মোসাব্বেক হোসেন সান। তাছাড়া বাঁহাতি স্পিনার সালেহ আহমেদ শাওন, সাঈদ সরকার, আরিফুল ইসলাম ও দলনায়ক মেহেদি মিরাজ বল হাতেও রয়েছেন দুর্দান্ত ফর্মে। তারা সবাই স্পিন জাদু দেখাতে পারলে নামিবিয়ার জন্য ম্যাচটা কঠিন হবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তোলায়।

স্বাগতিক দলের হয়ে ব্যাট হাতে আলো ছড়াচ্ছেন সহ-অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। হাফ সেঞ্চুরি, সেঞ্চুরি করে দুই ম্যাচে দলকে জিতিয়েছেন তিনি। এমনকি দুবারই হয়েছেন ম্যাচসেরা। সেই নাজমুলের ব্যাটে মঙ্গলবারও আত্মবিশ্বাসের বর্ণীল রংটা আবারো দেখতে চাইবে জুনিয়র টাইগাররা। তবে বাংলাদেশ দলের সাইফ হাসান, অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ ছোট-খাটো ইনিংস খেললেও ওপেনার পিনাক ঘোষের ব্যাট সেভাবে হাসতে পারছে না। তাই নামিবিয়ার বিপক্ষে বাঁহাতি ওপেনার পিনাকের রানে ফেরাটা অত্যন্ত জরুরি হয়ে পড়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশের জন্য।

এদিকে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে স্বাগতিকদের ফেভারিট হিসেবে মানতে নারাজ নামিবিয়ার কোচ নর্বাট মানিয়ান্ডে। নামিবিয়ার কোচের মতে মঙ্গলবারের ম্যাচে কোন দলই ফেভারিট নয়।

সোমবার অনুশীলন শেষে সংবাদ মাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘কোনও দিক থেকেই বাংলাদেশ ফেভারিট নয়। এই মুহূর্তেও রান রেটে আমরাই এগিয়ে। ওরা অবশ্য টেস্ট খেলুড়ে দেশ, সেদিক থেকে বলতে পারেন ওরা ফেভারিট। কিন্তু আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, কাল (মঙ্গলবার) কোনও দলই ফেভারিট না।’

তবে কে ফেভারিট, আর কে ফেভারিট না; সবকিছুই পরিস্কার হয়ে যাবে মঙ্গলবার।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like