সূর্যমুখীর তেলে আছে স্বাস্থ্যকরী গুণ

বাংলামেইল : দৃষ্টি নন্দন ফুল সঙ্গে তেলবীজ হিসেবে সূর্যমুখী সবার কাছে খুব পরিচিত। সুন্দর এই ফুলটি সখের বাগান সাজাতেও পারদর্শী। বানিজ্যিকহারে তেল উৎপাদনেও এর তুলনা হয় না। দেশের বেশ কিছু অঞ্চলে সূর্যমুখীর চাষ মাঠের পর মাঠ দৃষ্টি জুড়ায় সূর্যের হাসিমাখা দৃশ্যে। দৃষ্টিনন্দন সূর্যমুখী বীজের তেলে রয়েছে অসাধারণ কিছু স্বাস্থ্য উপকারী গুণ। আর তাই সুস্থ থাকতে নিজেদের রান্নার কাজে এই তেল ব্যবহার করা যেতে পারে নির্ভাবনায়। আজ জেনে নেব সূর্যমুখী বীজের অসাধারণ স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে।

– মানবদেহে ক্যানসার প্রতিরোধী কোষগুলোকে সূর্যমুখীর বীজ সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে। সূর্যমুখী বীজে আছে সেলেনিয়াম নামক উপাদান, যা ক্যানসার প্রতিরোধে অত্যান্ত শক্তিশালী।

– যারা বেশি মাত্রায় মানসিক চাপে ভোগেন তাদের জন্য সূর্যমুখী বীজতেল অত্যান্ত জরুরি। সূর্যমুখী বীজের ম্যাগনেসিয়াম উপাদান আমাদের মানসিক চাপ দূর করে, মাইগ্রেনের সমস্যা দূর করে এবং আমাদের মস্তিষ্ককে শান্ত রাখতে সাহায্য করে।

– সূর্যমুখী বীজ আমাদের দেহের হাড় সুস্থ রাখে ও মজবুত করে। হাড় মজবুত করতে এই তেলে প্রয়োজনীয় ম্যাগনেসিয়াম ও কপার পাওয়া যায়। সূর্যমুখী বীজে থাকা ভিটামিন-ই আমাদের দেহে বাতের ব্যথা দূর করতে সহায়তা করে।

– আপনার ত্বকের সজীবতা বজায় রাখতে সূর্যমুখী বীজ সাহায্য করে। এই তেলে থাকা ভিটামিন-ই আমাদের ত্বককে সূর্যের আল্ট্রা-ভায়োলেট রশ্মি থেকে বাঁচায়।

– সূর্যমুখী বীজ আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে থাকে। সূর্যমুখী বীজে থাকা প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহের প্রতিটি হাড়ের সংযোগে ব্যথা, গ্যাস্ট্রিক আলসার, দেহের চামড়ায় জ্বালা-পোড়া, হাঁপানি ইত্যাদি রোগ সারিয়ে তোলে। প্রতিদিন দুই টেবিল চামচ সূর্যমুখী বীজ আমাদের হার্ট এর সমস্যা থেকে দূরে রাখে।

– সূর্যমুখী বীজ আমাদের দেহের অপ্রয়োজনীয় কলেস্টরেল দূর করে হৃদযন্ত্রকে ভালো রাখতে সাহায্য করে। সুস্থ থাকতে প্রতিদিন আপনি বাদামের মতো সূর্যমুখী বীজ ভেজে খেতে পারেন।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like