ইংলিশদের নাগাল পায়নি ওয়েস্ট ইন্ডিজ

বাংলামেইল : চেষ্টা করেও ইংল্যান্ডের নাগাল পেল না ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে গ্রুপপর্বের খেলায় ইংলিশ যুবাদের কাছে ৬১ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে ক্যারিবীয় যুবারা। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে শুরুতে ব্যাট করে সাত উইকেটে ২৮২ রান করে ইংলিশরা। জবাবে ৪৩.৪ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অলআউট হয়েছে ২২১ রান করে। এতে টানা দুই ম্যাচ জিতে ‘সি’ গ্রুপ থেকে সেরা আটে যাওয়া প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেল ইংল্যান্ডের।

ইংল্যান্ডের ইনিংসে টপ অর্ডারে ম্যাক্স হোল্ডেন ছাড়া বাকি সবাই বড় স্কোর গড়তে সহায়ক ইনিংস খেলেন। মিডল অর্ডারেও এই ধারা অব্যাহত থাকে। তাই প্রতিপক্ষের সামনে ২৮৩ রানের বড় লক্ষ্যমাত্রা ছূঁড়ে দিতে সক্ষম হয় ইংলিশ যুবারা। দলটির পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৯ রান করেন ক্যালম টেলর। এছাড়া ড্যান লরেন্স করেন ৫৫ রান। জর্জ বার্টলেট ৪৮, জ্যাক বার্নহাম ৪৪ ও স্যাম কুরান ৩৯ রান করেন। ইংলিশ বোলারদের মধ্যে গিডরন পপ সর্বোচ্চ দুটি উইকেট নেন।

জবাব দিতে নেমে মাত্র ২ রানেই দুই উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গিডরন পপ ও কিয়েসি কার্টি তৃতীয় উইকেটে ৮২ রান যোগ করে চাপ কিছুটা কাটিয়ে ওঠতে সক্ষম হন। দলীয় ৮৪ রানে পপ (২২) আউট ফেরার পরপর আরো দুটি উইকেট হারায় তারা। পপ ৬০ বল থেকে ছয়টি চার ও তিনটি ছক্কার মারে করেন ৬০ রান। পপ ফিরে গেলে দ্রুততার সঙ্গে আরো দুটি উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এক পর্যায়ে দুই উইকেটে ৮৪ থেকে তাদের স্কোর হয়ে যায় পাঁচ উইকেটে ১০৩ রান। বিপর্যয়েই পড়ে যায় ক্যারিবীয়রা।

ষষ্ঠ উইকেটে কিমো পাল ও জিদ গুলিয়ে ৯০ রান করে আবারো কিছুটা আশা জাগান। গুলিয়ে (২৭) দলীয় ১৯৩ রানে ফিরে গেলে ইনিংস শেষ হওয়া সময়ের ব্যাপারে পরিণত হয়। একপ্রান্তে পলকে রেখে ফ্রিও ও স্মিথ ফেরেন সাজঘরে। পরে তাদের সঙ্গী হন পলও। অবশ্য আউট হওয়ার আগে ৫৮ বলে সাত চার ও এক ছক্কার মারে ইনিংস সর্বোচ্চ ৬৫ রান করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৬.২ ওভার খেলা বাকি থাকতেই ২২১ রানে থামে ক্যারিবীয়দের ইনিংস।

সাকিব মাহমুদ ইংল্যান্ডের পক্ষে নেন চার উইকেট। ইনিংসের শেষ দুই বলে দুই উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিকের আশাও জাগিয়ে রাখেন তিনি। এছাড়া লরেন্স ও কুরান দুটি করে উইকেট নেন। বল হাতে দুই উইকেট ও ব্যাট হাতে ৫৫ রান করে ম্যাচসেরাও হয়েছেন লরেন্স।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like