ক্যানসার প্রতিকার করার ছোট্ট টিপস

Manisha-Koirala

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ক্যানসারের মতো মারণ রোগের শিকার হচ্ছেন যে কোনও বয়সের মানুষই। তবে গবেষকদের মতে ৫০ ঊর্ধ্ব মানুষরাই সব থেকে বেশি এই মারণ রোগের দ্বারা আক্রান্ত হচ্ছেন। ক্যানসারে প্রতিকার কোনও ভাবেই করা যায় না। কিন্তু তার মধ্যেও জীবন যাপনের পরিবর্তন ঘটিয়ে কিছুটা হলেও এই মারণ রোগের হাত থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব। এই পরিবর্তনের ফলে পুরোপুরিভাবে আটকানো না গেলেও কিছুটা আটকানো যায় এই মারণ রোগকে…

১. যোগা সব রকম রোগ প্রতিরোধে সক্ষম। নিয়মিত যোগার ফলে ব্রেস্ট ক্যানসার এবং কোলোন ক্যানসারের হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

২. মাত্রাতিরিক্ত ওজন থাকার ফলেও অনেক সময় ক্যানসার হয়। ওজনের জন্য প্রোস্টেড, প্যানক্রিয়াস, ইউট্রাস, কোলোন এবং ওভারির ক্যানসার হতে পারে। এমনকি যে সমস্ত বয়স্ক মহিলাদের ওজন বেশি হয়ে যায়, তাঁরা ব্রেস্ট ক্যানসারের শিকার হন।

৩. অনেকক্ষণ ধরে শুয়ে, বসে থাকার ফলেও ক্যানসার হতে পারে। যেমন ধরুন প্রয়োজনের থেকেও বেশি পরিমাণে ঘরে বসে টিভি দেখা অথবা শুয়ে থাকার ফলে শরীর আস্তে আস্তে অকেজো হয়ে পড়ে। যার ফলে ক্যানসার অনেক তাড়াতাড়ি শরীরকে কাবু করে দেয়।

৪. খুব বেশি পরিমাণে তামাক জাতীয় দ্রব্য সেবন করা।

৫. খুব বেশি সময় রোদের মধ্যে থাকা। সূর্যের অতবেগুনী রশ্মি ত্বকের ক্ষতি করে। যার ফলে ত্বক ক্যানসার হয়। রোদে বেরনোর সময় মুখে গায়ে ভালো ভাবে চাপা দিয়ে বেরন। আর অবশ্যই ছাতার ব্যবহার করবেন।

৬. প্রতিদিন অ্যালকোহল খাওয়ার ফলেও ক্যানসার হয়। নিয়মিত অ্যালকোহল গলা, মুখ প্রভৃতি স্থানে ক্যানসার হতে সাহায্য করে। যদি নিয়মিত অ্যালকোহল খান তাহলে ১ থেকে ২ গ্লাস খাবেন।

৭. যদি আপনার শরীরের ওপরে কোনও স্থানে অতিরিক্ত মাংস দেখতে পান তাহলে তা উপেক্ষা না করাই ভালো। যদি দেখেন ওই মাংসটিতে কোনও ব্যথা নেই এবং মাংসটির রঙ পরিবর্তন হতে শুরু করছে, তখন তাড়াতাড়ি ডাক্তারের পরামর্শ নিন। কিন্তু যদি দেখেন মাংস পিন্ডটির ওপরে লোম দেখতে পাওউয়া যাচ্ছে, তাহলে বুঝবেন ওটা ক্যানসার নয়।

সূত্র : জি নিউস

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like