সর্দির যম যেসব খাবার

বাংলামেইল : তীব্র বা হালকা শীতে সামান্য অবহেলায় হতে পারে সর্দি, কাশি বা জ্বরের সমস্যা। পশমী কাপড়ের আদুরে পরশে থাকার মজাটায় নষ্ট হয়ে যায় এসব ছোটখাটো সমস্যায়। তাই সমস্যাগুলো এড়াতে খাবারের অভ্যাসে চাই সামান্য কিছু পরিবর্তন। নিয়মিত এমন কিছু খাবার খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে যা আমাদের আশেপাশেই পাওয়া সম্ভব। এসব খাবারের পর্যাপ্ত প্রাপ্তিও থাকতে হবে। তাই আসুন জেনে নেয়া যাক সর্দির যম হতে পারে কোন কোন খাবার।

গাজর: গাজরে আছে প্রচুর পরিমাণ বেটা ক্যারেটিন। গাজরের স্যুপ রোগ প্রতিরোধে দারুণ কাজ করে। গাজর ঠাণ্ডা ও ফ্লু’র বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। এ ছাড়া ঠাণ্ডাজনিত ইনফেকশন থেকে রক্ষা করে।

সবুজ চা: সবুজ চা খুবই শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। সবুজ চায়ে ভাইরাস ও ব্যাকটিরিয়া প্রতিরোধী উপাদান রয়েছে। ঠাণ্ডার দিনে ৩ থেকে ৫ কাপ চা পান করুন। সবুজ চা শীতের সময় আপনাকে রোগ থেকে দূরে রাখবে।

মাশরুম: মাশরুম শরীরের প্রতিরোধ ব্যবস্থার জন্য উপকারী। এটি শীতকালের ঠাণ্ডাজনিত রোগ ও ভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করে।

রসুন: রসুন জ্বর ও ঠাণ্ডা প্রতিরোধী উপাদান হিসেবে খুবই পরিচিত। রসুন বিশেষ ধরনের এনজাইমের মাত্রা বৃদ্ধি করে। রসুন যকৃতের রক্ত থেকে বিষাক্ত দ্রব্য শোষণ করতে সাহায্য করে। কাঁচা রসুন আপনাকে দিতে পারে বেশি উপকার।

মধু: শীতজনিত ঠাণ্ডা ও জ্বর থেকে রক্ষা পাওয়ার কার্যকরী পথ্য হলো মধু। এটি ব্যাকটিরিয়া ও ভাইরাস প্রতিরোধ করে। প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে মধু সেবন ভাল ফল দেয়। প্রতিরাতে এক কাপ গরম দুধের সঙ্গে মিশিয়ে পান করলে বেশি উপকার পাবেন।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like