রামুতে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রকে নির্যাতন

ramu pic abu aiub 10.1.16রামু প্রতিনিধি, কক্সবাজারটাইমসডটকম, ১০ জানুয়ারি : রামুতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তৃতীয় শ্রেণির এক ছাত্রকে নির্মমভাবে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্যাতনের শিকার আবু আইয়ুব (৮) রামুর ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের অফিসেরচর এলাকার মৌলানা ওবাইদুল্লাহর ছেলে। রোববার বিকাল সাড়ে পাঁচটায় এ ঘটনা ঘটে।
গুরুত্বর আহত শিশু আবু আইয়ুবকে ঘটনার পর রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। কিন্তু রাতে অবস্থার অবনিত হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাপসাতালে প্রেরণ করে।
আহত শিশুর পিতা মাওলানা ওবাইদুল্লাহ জানান, তার ছোট ছেলে আবু আইয়ুব পাড়ার অন্যান্য শিশুদের সাথে বিকালে বাড়ির সামনে উঠোনে খেলা করছিলো। এসময় মুক্তিযুদ্ধকালীন রামুর শীর্ষ রাজাকার ও শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল হক প্রকাশ হক সাব এর ছেলে যুবদল নেতা আবুল আলা আবু আইয়ুবকে ডেকে ঘাড় ধরে লাথি মারতে শুরু করে। এসময় আবু আইয়ুব চিৎকার করতে থাকলে আবুল আলা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে শিশুটির পেটে লাথি মারে এবং লাটি নিয়ে শিশুটিকে বেদম প্রহার করে। অন্যান্য শিশুরা এ দৃশ্য দেখে চিৎকার করতে থাকলে আবুল আলা এসব শিশুদেরও মারধরের হুমকী দেয়। আহত আবু আইয়ুব এর সাথে থাকা শিশু মেহেদী, শাহরিয়ার, জাহেদ, নওরিন এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। আহত আবু আইয়ুব রামু কেন্দ্রীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র।
রামু হাসাপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানিয়েছেন, ব্যাপক মারধরের শিকার হওয়ায় এবং দুইবার বমি করায় শিশুটির অবস্থার অবনতি হয়েছে। এ কারনে শিশুটিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।
আহত শিশুর পিতা মাওলানা ওবাইদুল্লাহ আরো জানান, ঘটনার সময় তিনি বাড়িতে ছিলেন না। খবর পেয়ে বাড়িতে এসে তিনি এ ঘটনার প্রতিবাদ জানালে আবুল আলা এবং তার ভাই গোলাম মওলা, জামায়াত নেতা জুলফিকার আলী ভূট্টো, আবদুল হামিদ, জুলফিকার আলীর ছেলে আনিসুল ইসলাম সহ একদল সন্ত্রাসী কিরিচ, দা, লাটি-সোটা নিয়ে এসে তাকে এবং তার পরিবারের সদস্যদের মারধরের চেষ্টা চালায় এবং তার বাড়ি লক্ষ্য করে ব্যাপক ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে মাওলানা ওবাইদুল্লাহর ভাতিজি সুমি (২৫) সহ কয়েকজন আহত হন। তিনি আরো জানান, রাতে তার শিশুপুত্র আবু আইয়ুব দুইবার বমি করেছে। এখন চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি আইনের আশ্রয় নেবেন। উল্লেখ্য আবুল আলা ইতিপূর্বে স্কুল পড়–য়া ছাত্রকে পিঠিয়েছিলেন। তার বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারি সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে।
এ ঘটনায় এলাকায় চরম ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা আজিজুল ইসলাম, রহমত উল্লাহ, রুহুল আমিন, রাশেদ জানিয়েছেন, হামলাকারিদের অত্যাচারে এলাকার মানুষ এখন অতিষ্ঠ। দীর্ঘদিন ধরে এ পরিবারটি লোকজনকে মারধর, ভু সম্পদ জবর-দখল, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি, বিভিন্ন মামলায় নিরীহ লোকজনকে জড়িয়ে দেয়া সহ নানাভাবে হয়রানি করে আসছে। এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, মুক্তিযুদ্ধের পর দেশ স্বাধীন হলেও এ এলাকার মানুষ এখনো রাজাকারের অত্যাচার-নির্যাতন থেকে মুক্তি পায়নি। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগীরা প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে একটি সূত্র জানিয়েছেন, হামলাকারিরা আহত শিশুটিকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আপোষের চেষ্টা চালাচ্ছে।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like