ফিফা ব্যালন ডি’অর অ্যাওয়ার্ড: এবার কোন বেশে জুরিখে মেসি?

বাংলামেইল: ২০০৮ সাল থেকে শুরু। চলছে অবিরত। ফিফা বর্ষসেরার মনোনয়ন মানেই সংক্ষিপ্ত তালিকায় লিওনেল মেসির নাম। এর মধ্যে এই অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন টানা চারবার (২০০৯ থেকে ২০১২)। যা নতুন ইতিহাসই। ২০১৫ সালের বর্ষসেরা ফুটবলার হওয়ার দৌড়েও রয়েছেন তিনি। নান্দনিক ফুটবল, গোল, শিরোপা ও দলের জয়ে ভূমিকায় যে অনেকটাই এগিয়ে বার্সেলোনা সুপারস্টার। কেউ কেউ তো এবারও মেসির হাতেই দেখছেন বর্ষসেরার পুরস্কার।

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান হবে ১২ জানুয়ারি। সুইজারল্যান্ডের জুরিখে এদিন বসবে ফিফা ব্যালন ডি’অর ২০১৫’এর অ্যাওয়ার্ড নাইটস। সেখানেই ঘোষণা করা হবে বর্ষসেরা ফুটবলারের নাম। ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও নেইমার দ্য সিলভার সঙ্গে মঞ্চে হাজির হবেন মেসিও। তার আগে গবেষণা চলছে কোন বেশে দেখা যাবে আর্জেন্টাইন অধিনায়ককে। কেননা গত পাঁচবার তার বেশভূষার রংয়ে ছিল ভিন্নতা। রংয়ের পছন্দে বরাবর প্রশংসা পেলেও একবার বেশ সমালোচিত হয়েছিলেন লাল টুকটুকে কোর্ট পড়ায়।

২০১০ সালে মেসি জুরিখে উপস্থিত হন ধূসর বর্ণের স্যুট পরে। সেই পোশাকে তাকে বেশ ভালোই মানিয়েছিল। পরের বছর কুচকুচে কালো রংয়ের পোশাকে। ২০১২ সালে কালোর ওপর হালকা সাদার ছিটা। ২০১৩ সালে মেসি সাজেন লাল রংয়ে। ২০১৪ সালে পড়েন খয়েরি রংয়ের স্যুট। এভাবে রং বদলের খেলায় মেতে ওঠেন এলএম-টেন!

এবার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি কোন রংয়ের পোশাক পড়বেন? তা নিয়ে নানা মুনির নানা মত। কেউ ভাবছেন, জুরিখে মেসি যাবেন সফেদ(সাদা) বেশে। কেউ বা বলছেন, এবার ২৮ বছর বয়সী ফুটবলারের পোশাকটা হবে গাঢ় তাম্রবর্ণের।

এসব রংয়ের খেলা আসলে মেসির নয়, ডমিনিকো ডলস এ্যান্ড গ্যাবানা (ডিএ্যান্ডজি) নামের ফ্যাশন হাউজের! আর্জেন্টাইন অধিনায়কের গায়ে কোন রংয়ের পোশাক চড়বে, তা এবারও তারা নির্ধারণ করবে। মেসি তার ইনস্টিগ্রামে লেখেন, ‘আমার বন্ধু ডমিনিকো!’

মেসির গায়ে যে রংয়ের পোশাক উঠবে, সেটা যে বাজারে বেশ ভালো কাটবে।এটা কারো অজানা নয়। আর অজানা নয় ডিএ্যান্ডজি’রও। তাই চারবারের ব্যালন ডি’অরজয়ী ফুটবলারের পিছু ছাড়ছে না ইতালিয়ান ফ্যাশন হাউজটি!

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like