ঘুমধুমে প্রশ্নপত্র ফাঁস : প্রতিবাদে বিক্ষোভ সভা অনুষ্ঠিত

Ukhiya-Pic-03-01-2016_1উখিয়া সংবাদদাতা, কক্সবাজারটাইমসডটকম, ০৪ জানুয়ারি : পার্বত্য বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্র“ “উচ্চমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের (৮ম শ্রেণি পর্যন্ত) দপ্তরী-কাম নৈশ প্রহরী কর্তৃক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস, ছাত্রীর পরীক্ষার খাতা চুরি করে পুড়িয়ে ফেলা সহ ওই ছাত্রীকে লেলিয়ে দিয়ে সহকারী শিক্ষককে নাজেহাল করার ঘটনায় স্থানীয় অভিভাবকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। রোববার দুপুরে উত্তেজিত জনতা ও অভিভাবক মহল অভিযুক্ত নৈশ প্রহরীর দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে বিক্ষোভ ও পথসভা করেন। সন্ধ্যায় বান্দরবান জেলা প্রশাসক এর নেতৃত্বে একদল প্রতিনিধি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবু আহাম্মদ বলেন, অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হামিদুল হক এর নেতৃত্বে নৈশ প্রহরী এ কাজ করেছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।
জানা গেছে, গত ১৩ ডিসেম্বর ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্র““ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী হোছনে আরা বেগম, রোল নং- ২৯ ও তার বোন ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী রুনা আক্তার তানিয়া, রোল নং- ৩২ বিজ্ঞান পরীক্ষা দেওয়ার সময় স্কুলের সহকারি শিক্ষক মোঃ শাহজাহান পরীক্ষার প্রশ্নপত্র সহ হাতে নাতে আটক করেন। পরে ওই ছাত্রীর জবানবন্দি অনুযায়ী স্কুলের দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী মোস্তাফা কামাল ওইসব প্রশ্নপত্র সরবরাহ করেছে দাবি করে ছাত্রীর অভিভাবক লিখিতভাবে স্বীকারোক্তি প্রদান করেন। সহকারি শিক্ষক শাহজাহান বলেন, এ ঘটনা তাৎক্ষণিকভাবে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে মৌখিক ও লিখিতভাবে জানালেও তিনি অভিযুক্ত নৈশ প্রহরীর বিরুদ্ধে অদ্যবধি কোন ব্যবস্থা নেইনি। যার ফলে ওই নৈশ প্রহরী প্রভাবিত হয়ে অভিযুক্ত ছাত্রী দিয়ে তাকে লাঞ্চিত করা হয়। এ ঘটনা নিয়ে গত শুক্রবার স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে এক সালিশী বৈঠকে আকষ্মিক মাষ্টার শাহজাহান হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মাটিতে ঢলে পড়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। এ সময় তাকে প্রথমে কুতুপালং এমএসএফ হাসপাতাল ও পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল রবিবার বিকাল ৩টায় একটি বিক্ষোভ সমাবেশ তুমব্র““ বাজার প্রদক্ষিণ শেষে স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, এ ঘটনা মূল রহস্য উদঘাটন করে অভিযুক্ত নৈশ প্রহরী মোস্তাফা কামালকে চাকুরীচ্যুত ও শিক্ষককে লাঞ্চিত করার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রীকে স্কুল থেকে বহিষ্কার করা না হলে ছাত্র-ছাত্রীরা অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাশ বর্জন করতে বাধ্য হবে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাষ্টার হামিদুল হক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী কর্তৃক প্রশ্নপত্র ফাঁসের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তার বিরুদ্ধে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সম্মত হয়েছেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হামিদুল হক ঐ ঘটনার সাথে জড়িত বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন। ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংশা করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like